ঢাকাসোমবার , ২৩ জানুয়ারি ২০২৩
আজকের সর্বশেষ সবখবর

লাখাইয়ে সারের বস্তায় পাথরের গুড়োর ঘটনায় আদালতের স্বপ্রণোদিত মামলা দায়ের

স্টাফ রিপোর্টার
জানুয়ারি ২৩, ২০২৩ ৮:৪৫ অপরাহ্ণ
Link Copied!

লাখাই উপজেলার বুল্লা বাজারে কৃষক সার কিনে সারের বস্তায় পাথরের গুড়ো পাওয়ার ঘটনায় আদালত স্বপ্রণোদিত মামলা দায়ের করেছেন।

গত ২০ জানুয়ারি ‘লাখাইয়ে সারের বস্তায় পাথরের গুড়ো’ শিরোনামে দৈনিক আমার হবিগঞ্জ পত্রিকায় সংবাদ প্রকাশিত হওয়ার প্রেক্ষিতে ২৩ জানুয়ারি হবিগঞ্জ জেলার স্পেশাল ম্যাজিস্ট্রেট জাকির হোসাইনের আমলী আদালত ৭ লাখাই মিস মামলা ২/২০২৩ নম্বর মামলা দায়ের করেন। আদালত এ ঘটনা তদন্তে পিবিআই কে দায়িত্ব প্রদান করেন।

আদালত সংবাদটি বিশ্লেষন করেন যে, লাখাই উপজেলার বুল্লা বাজারের আলমগীর মিয়া নামে এক সার বিক্রেতার কাছ থেকে নজরুল মিয়া নামে এক ব্যক্তি এক বস্তা সার কিনেন। উক্ত সার পাথরের গুড়া মিশ্রিত ভেজাল সার মর্মে প্রতীয়মান হয়। উক্ত সার বিক্রেতা পরিবর্তন করে অন্য আরেক বস্তা সার দেন তা ও ভেজাল সার হিসাবে প্রতীয়মান হয়।

অর্থ্যাৎ লাখাই উপজেলার বুল্লা বাজারে ব্যবসায়ী গোষ্ঠি কর্তৃক ভেজাল সার উৎপাদন ও বিপনন করে বাজারে বিক্রয় করে কৃষকদের সাথে প্রতারণা ও কৃষি ব্যবস্থাপনার ক্ষতিকর কাজ করে অপরাধ সংঘটন করেন মর্মে প্রতীয়মান হয়।

উক্ত অভিযোগ সার ব্যবস্থাপনা আইন, ২০০৬ এর ১৭(১) ও (৩) ধারা এবং পেনাল কোড ১৮৬০ এর ৪২০ ধারার অপরাধ হয়। যা আইন অনুযায়ী শাস্তিযোগ্য ও বিচারযোগ্য হয়।

ওই ঘটনা জনস্বার্থে ও ন্যায় বিচারের উদ্দেশ্যে অপরাধ উদ্ঘাটন, ভেজাল সার উৎপাদনকারী, বিপননকারী ও বিক্রেতা কে আসামী হিসাবে চিহ্নিতকরণ, আদেশে উল্লেখিত সংবাদের বিষয়ে ও দায়ী ব্যক্তিদের বিরুদ্ধে বিস্তারিত তদন্ত প্রয়োজন মর্মে প্রতীয়মান হয়।

এদিকে লাখাই উপজেলা কৃষি সম্প্রসারণ কর্মকর্তা শাকিল খন্দকার কৃষক নজরুল ও সার বিক্রেতা আলমগীরের নিকট থেকে ভেজাল মিশ্রিত সারের বস্তা ২৩ জানুয়ারি জব্দ করেন।

এর আগে গত ২০ জানুয়ারি দৈনিক আমার হবিগঞ্জে সংবাদ প্রকাশিত হয় যে, লাখাই উপজেলায় পাথরের গুড়ো মিশ্রিত সার বাজারে বিক্রি করার অভিযোগ পাওয়া গিয়েছে। বৃহস্পতিবার (১৯ জানুয়ারি) পূর্ববুল্লা গ্রামের নজরুল মিয়া নামের এক কৃষক উপজেলার বুল্লা বাজারের আলমগীর মিয়া নামের এক সার বিক্রেতার দোকান থেকে ১ বস্তা সার কেনেন।

এসময় সারের বস্তা খুলে তিনি দেখতে পান প্রায় অর্ধেক পরিমাণে পাথরের গুঁড়ো মিশ্রিত রয়েছে। তিনি দোকানদার আলমগীরের কাছে বিষয়টি জানালে আলমগীর বস্তা কি পরিবর্তন করে আরেকটি ইনটেক্ট বস্তা দেন। ওই বস্তা ঠিক হলেও একই অবস্থা দেখতে পাওয়া যায়।

সারের ক্রেতা নজরুল ইসলাম জানান, আলমগীরের কাছ থেকে সার কিনে জমিতে নেয়ার পর তিনি বস্তা খুলে দেখতে পান ভেতরে বালু (পাথরের গুড়ো) মিশ্রিত আছে। আলমগীরের সাথে যোগাযোগ করলে সারের বস্তা পাল্টে আরেক বস্তা সার দেন তিনি। কিন্তু ওই বস্তাটি খোলার পর আরো বেশি পরিমাণে বালু (পাথরের গুড়ো) মিশ্রিত রয়েছে। এ অবস্থা দেখালে আলমগীর জানান তিনি আর পরিবর্তন করে দিতে পারবেন না।

সার বিক্রেতা আলমগীর জানান, তিনি ইনটেক্ট অবস্থায় এ সার কিনে নিয়ে আসেন। বস্তা খুলে তিনি পরিবর্তন করেননি। এ বিষয়ে উপজেলা কৃষি সম্প্রসারণ কর্মকর্তা শাকিল খন্দকারের সাথে যোগাযোগ করা হলে তিনি জানান, সারের নমুনা নিয়ে পরীক্ষাগারে প্রেরণ করা হবে। ভেজাল মিশ্রিত হলে যথাযথ ব্যবস্থা নেয়া হবে।

Developed By The IT-Zone