ঢাকাশনিবার , ১১ জুন ২০২২
আজকের সর্বশেষ সবখবর

লাখাইয়ে বহিষ্কৃত প্রধান শিক্ষক নুরুল আমিনকে পুনর্বহাল না করার দাবিতে মানববন্ধন

স্টাফ রিপোর্টার
জুন ১১, ২০২২ ৯:৩২ অপরাহ্ণ
Link Copied!

লাখাই উপজেলার মুড়িয়াউক উচ্চ বিদ্যালয়ে অর্থ আত্মসাতের অভিযোগে সাময়িকভাবে বহিষ্কৃত প্রধান শিক্ষক মোঃ নুরুল আমিনকে পুনর্বহাল না করার দাবিতে এবার মানববন্ধন করেছেন ছাত্র-ছাত্রী, শিক্ষক ও অভিভাবকরা। একই দাবিতে কর্মবিরতি পালন ও জেলা প্রশাসকের নিকট স্মারকলিপি প্রদান করেছেন ওই বিদ্যালয়ের শিক্ষকগণ।

শনিবার (১১জুন) দুপুর ১২ টার দিকে বিদ্যালয় সংলগ্ন স্থানে প্রায় তিন শতাধিক ছাত্র-ছাত্রী ও অভিভাবকরা মানববন্ধনে অংশ নেন। সাবেক ইউপি চেয়ারম্যান ও বিদ্যালয়ের প্রতিষ্ঠাতা নুরুজ্জামান মোল্লার সভাপতিত্বে ও মাহমুদুল হাসানের সঞ্চালনায় মানববন্ধন পরবর্তী প্রতিবাদ সভা অনুষ্ঠিত হয়।

এতে বক্তব্য রাখেন বর্তমান মেম্বার আব্দুর রাজ্জাক চৌধুরী, নুর আলম, সাবেক মেম্বার ফারুক আহমেদ,বশির আলম চৌধুরী, মশিউর রহমান সাচ্চু, ছুরুক তালুকদার, হাবিবুর রহমান, ছানোয়ার কাদের চৌধুরী, মুর্শেদ কামাল চৌধুরী, আব্দুল হাই মাষ্টার, নুরুজ্জামান মিয়া, আব্দুল আহাদ, বাচ্চু মিয়া, অলিউর রহমান, সেলিম মিয়া ও তোফায়েল চৌধুরী প্রমুখ।

অর্থ আত্মসাতের অভিযোগে অভিযুক্ত সাময়িক বহিষ্কৃত প্রধান শিক্ষক নুরুল আমিনকে বিদ্যালয়টিতে পুনর্বহাল করার নির্দেশনা বাতিল করার দাবি জানান বক্তারা।

এ সময় কর্মবিরতি পালনকারী শিক্ষকরা জানান নুরুল আমিনের সাথে তাদের পক্ষে কাজ করা সম্ভব নয়। আইসিটি শিক্ষক মাসুম মিয়া অভিযোগ করে বলেন, নুরুল আমিন তাদের স্বাক্ষর জাল করে বিদ্যালয়ের টাকা উত্তোলন করে নিয়েছেন।

এ ব্যাপারে তারা আদালতে মামলা দায়ের করেছেন। শিক্ষার্থীদের অনেকেই অভিযোগ করে বলেন, নুরুল আমিন তাদেরকে ঠিকমত ক্লাস নেন না। এর আগে ১০ জুন বিদ্যালয়ের বেশ কয়েকজন শিক্ষার্থী উপজেলা নির্বাহী অফিসারের নিকট অভিযোগ করেন যে, তাদেরকে ভয়-ভীতি প্রদর্শন করে প্রধান শিক্ষক নুরুল আমিনের বিরুদ্ধে যেতে বাধ্য করা হচ্ছে। তবে ১১ জুনের মানববন্ধনে উপস্থিত শিক্ষার্থীদের কে এ ব্যাপারে জিজ্ঞেস করা হলে তারা স্বইচ্ছায় মানববন্ধনে অংশ নিয়েছেন বলে জানান।

উল্লেখ্য, নুরুল আমিনের বিরুদ্ধে অর্থ আত্মসাতের অভিযোগে তাকে সাময়িক বহিষ্কার করা হয়। তবে গত ৩০ মে সিলেট মাধ্যমিক ও উচ্চ মাধ্যমিক শিক্ষা বোর্ডের আপিল এন্ড আর্বিট্রেশন কমিটির সভায় তাকে প্রধান শিক্ষক পদে পুনর্বহালের সিদ্ধান্ত হয়। পরবর্তীতে ভারপ্রাপ্ত প্রধান শিক্ষকের মাধ্যমে প্রধান শিক্ষক হিসেবে নুরুল আমিনের নিকট দায়িত্ব হস্তান্তর নিয়ে জটিলতা সৃষ্টি হয়।

এ বিষয়ে বিদ্যালয়ের ভারপ্রাপ্ত প্রধান শিক্ষক সৈয়দা সুলতানা জানান, তিনি ১০ জুন আপিল এন্ড আর্বিট্রেশন কমিটির চিঠি রেজিস্ট্রি ডাকের মাধ্যমে পেয়েছেন। নিয়ম অনুযায়ী বিষয়টি উপজেলা নির্বাহি অফিসার কে তার অবগত করার কথা। এরপর তিনি নির্দেশনা দিলে সভার মাধ্যমে বিধিসম্মতভাবে নুরুল আমিনকে পুনর্বহালের অবস্থা নিতেন। কিন্তু তিনি চিঠি পাওয়ার আগেই তিনি অসুস্থ থাকাকালীন তড়িঘড়ি করে বিধিবহির্ভূতভাবে সিদ্ধান্ত প্রদান করা হয়।

এ নিয়ে একটি জটিলতা তৈরি হয়েছে। এ ব্যাপারে অভিযুক্ত প্রধান শিক্ষক নুরুল আমিনের সাথে যোগাযোগ করা হলে তিনি জানান, তদন্তে তিনি নির্দোষ প্রমানিত হলে শিক্ষা বোর্ড শুনানি করে তাকে স্বপদে পুনর্বহাল করেন। উপজেলা নির্বাহি অফিসার সভাপতি হিসেবে তাকে পুনর্বহাল করার নির্দেশনা বাস্তবায়ন করেন। জনগণকে বিভ্রান্ত করার জন্য ছাত্র-ছাত্রীদেরকে ভুল বুঝিয়ে তার বিরুদ্ধে মিথ্যা মানববন্ধন করা হয়।

এ বিষয়ে লাখাই উপজেলা নির্বাহী অফিসার মোঃ শরিফ উদ্দিনের সাথে যোগাযোগ করা হলে তিনি জানান, বিদ্যালয়ের ছাত্র-ছাত্রী, অভিভাবক ও শিক্ষকদের মঙ্গলের স্বার্থে সংশ্লিষ্ট সবাইকে নিয়ে আলোচনার মাধ্যমে বিষয়টি সুষ্ঠু সমাধান করার জন্য চেষ্টা করা হচ্ছে। এরপরেও বিষয়টি সমাধান না হলে আইনানুযায়ী যথাযথ পদক্ষেপ নেয়া হবে।

Developed By The IT-Zone