ঢাকাTuesday , 5 December 2023
আজকের সর্বশেষ সবখবর

লাখাইয়ে ধান কর্তনে আদায়কৃত অতিরিক্ত টাকা ফেরতের নির্দেশ

Link Copied!

লাখাইয়ে কৃষি অধিদপ্তরের নির্দেশনা অমান্য করে হারভেস্টারে ধান কর্তনে অতিরিক্ত টাকা আদায় -মর্মে শিরোনামে গত রবিবার (৩ডিসেম্বর) দৈনিক আমার হবিগঞ্জ পত্রিকায় সংবাদ প্রকাশের পর অভিযুক্ত অত্র উপজেলার কাশিমপুর গ্রামের হারভেস্টার মালিক বাবুলকে অতিরিক্ত আদায়কৃত টাকা কৃষকদের ফেরত প্রদানের নির্দেশ দিয়েছে লাখাই উপজেলা কৃষি অধিদপ্তর।

বিষয়টি নিশ্চিত করে সোমবার লাখাই উপজেলা কৃষি কর্মকর্তা মাহমুদুল হাসান মিজান বলেন, বাবুলকে আমাদের অফিসে ডেকে এনেছিলাম, হারভেষ্টারে ধান কর্তনে কৃষকদরে নিকট থেকে অতিরিক্ত আদায় কৃত টাকা ফেরত প্রদানের নির্দেশ দেওয়া হয়েছে ।

টাকা ফেরত প্রদানের আগপর্যন্ত তার হারভেষ্টার সাময়িক বন্ধ রাখার সিদ্বান্ত নেওয়া হয়েছে, যদি সে টাকা ফেরত দেয় উপজেলা কৃষি অধিদপ্তরের অনুমতিক্রমে তার হারভেষ্টার মাঠে ধান কর্তন করতে পারবে।

এছাড়াও সকল হারভেষ্টার মালিকগণকে কৃষকদের নিকট থেকে অতিরিক্ত টাকা আদায় না করার নির্দেশ প্রদান করা হয়েছে। এব্যাপারে অভিযুক্ত হারভেষ্টার মালিক বাবুলের মুঠোফোনে একাধিকবার কল দিলে রিসিভ না করায় বক্তব্য নেওয়া সম্ভব হয় নি।

পূর্বে প্রকাশিত সংবাদ সুত্রে জানাগেছে, লাখাই উপজেলার বিভিন্ন হাওর এলাকায় রোপা আমন ধান কাটা শুরু হয়েছে। সকল জাতের ধান পেকে যাওয়ায় শ্রমিক সংকটের কারনে বর্মানে কৃষকেরা ঝুকছে কম্বাইন্ড হারভেস্টার যন্ত্রের মাধ্যমে ধান কাটার চাহিদা বেড়েছে।

লাখাই উপজেলা কৃষি সম্প্রসারন সুত্রে জানা যায় এ বছর প্রতি বিঘা জমির ধান কাটা ১হাজার ৫০০ টাকা নির্ধারণ করে দিলেও, হার্ভেষ্টারের মালিকগন এই নির্দেশ মানছে না ফলে কৃষকদের মাঝে দেখা দিয়েছে চাপা ক্ষোভ। যার ফলে আর্থিক ভাবে ক্ষতিগ্রস্ত হচ্ছে কৃষক।

এই দিকে বেশ কয়েকদিন ধরে লাখাই উপজেলার বিভিন্ন এলাকাসহ ফুলবাড়িয়া, মোড়াকরি হাওড়ে হারভেষ্টার মেশিন দ্বারা কৃষকের ধান কাটতে দেখা গেছে।

সরেজমিনে গিয়ে দেখা যায়, কাশিমপুর গ্রামের হারভেস্টার মালিক বাবুল মিয়া প্রতি বিঘা জমির ধান কর্তন বাবত কৃষকদের নিকট থাকে ২ হাজার থেকে ২ হাজার ৫০০ টাকা নিচ্ছে।

এ ব্যপারে কৃষকরা জানান ধান মাটিতে নুয়ে পড়লে ২৫শত থেকে ৩ হাজার টাকা নিচ্ছে হারভেষ্টারের মালিক। শুধু তা- ই নয় উপজেলার অনেক হারভেষ্টার মালিকগণ অতিরিক্ত টাকা আদায় করছেন বলে তথ্য পাওয়া গেছে।

উপজলা কৃষি অধিদপ্তরের তথ্য মতে, এ উপজেলায় বিভিন্ন প্রকল্পে কৃষকদের মাঝে এপর্যন্ত সরকার ৭০ শতাংশ ভর্তুকি মূল্য, প্রায় ৭০টি কম্বাইন্ড হারভেস্টার, রিপার মেশিন বিতরণ করেছে। তবে ৬০টির মতো মেশিন মাঠে আছে বাকি মেশিন গুলির হদিস নেই।

এ বছর রোপা আমন ধান চাষাবাদের লক্ষ্যমাত্রা ধরা হয়েছিল ৪ হাজার ৫ শত ২০ হেক্টর জমি। তবে আবহওয়া অনুকুলে থাকায় ও সময় সময় বৃষ্টি হওয়ায় অর্জন হয়েছে ৫ হাজার ৯ শত ৫০ হেক্টর জমি।

আরও জানা যায়, হেক্টর প্রতি গড়ে ৫ মেট্রিকটন ধান ফলন হয়েছে, তবে কর্তন হয়েছে প্রায় ৩৫ শতাংশ।। যদি প্রয়োজন হয় বাকী অংশ যোগকরতে পারেনন

ফুলবাড়িয়া গ্রামের মোজাম্মেল নামে এক কৃষক জানান, কাশিমপুর গ্রামের বাবুল মিয়া হারভেষ্টারে মেশিন দ্বারা ধান কর্তনে বিঘা প্রতি ২ হাজার টাকা নিচ্ছে। এ বছর ১ হাজার ৫০০ টাকা কৃষি সম্প্রসারন কর্তৃক নির্ধারণ হয়েছে,কিন্তু আপনি ২ হাজার নিচ্ছেন কেন, এমন প্রশ্ন করলে তিনি বলেন সব মালিকগন বিঘা প্রতি ২ হাজারের নিচ্ছে।

আরেক কৃষক বলেন, একটি হারভেস্টার যন্ত্র দিনে ২০ থেকে ২৪ বিঘা জমির ধান কাটতে পারে, বিঘা প্রতি ৭/৮শত টাকার বেশি খরচ হয় না। এই অবস্থায় ১৫শত টাকা নিলেই বহু লাভ হয় তাদের। আর এ ধান উৎপাদনে খরচ বেশি, দুই-আড়াই হাজার টাকা নিলে , এটি জুলুম হয়ে যায়। মবিন নামে একজন বলেন, নিরুপায় হয়ে অনেক অনুনয় বিনয় করে ৫ বিঘা জমি ১০ হাজার টাকায় কাটিয়েছি।

বামৈ গ্রামের আলাল নামে এক কৃষক বলেন, হারভেস্টার যন্ত্রের মালিকরা গত বছর ১৫শ টাকায় প্রতি কেয়ার ধান কেটেছে। এবার ২ হাজার থেকে আড়াই হাজার টাকা প্রতিবিঘা নিচ্ছে।

সিংহগ্রামের বাহার নামে আরেক কৃষক বলেন, দীর্ঘদিন যাবত হার্ভেস্টার মালিক সমিতির নামে একটি মহল ইচ্ছে মতো মনগড়া ভাবে অর্থ আদায় করে চলছে। ক্ষতিগ্রস্থ হচ্ছে কৃষকেরা।

উপজেলার অনেক কৃষকেরা জানান, উপজেলা কৃষি অধিদফতর যদি বিষয়টি তদারকি করে, ধান কর্তনে হারভেষ্টার মালিকদের সিন্ডিকেট ভেঙ্গে যাবে, কৃষি অধিদফতরের নির্ধারিত টাকায় ধান কর্তন করতে পারব আমরা।

মুঠোফোনে কথা হলে অতিরিক্ত টাকা আদায়ের বিষয়টি স্বীকার করে অভিযুক্ত হারভেস্টার মালিক বাবুল বলেন, টাকা বেশি নিচ্ছি কেন তার উত্তর আমি আপনাকে দিব কেন, আপনার সাথে পরে কথা হবে বলে কল কেটে দেন।