ঢাকাMonday , 24 June 2024
আজকের সর্বশেষ সবখবর

লাখাইয়ে চায়না দুয়ারি’র ফাঁদে অস্তিত্ব সংকটে দেশীয় মাছ

Link Copied!

লাখাই উপজেলার বিভিন্ন হাওড়ে কারেন্ট জালের পাশাপাশি অবৈধ চায়না দুয়ারি নামের একপ্রকার ফাঁদ ব্যবহার করে মৎস্য সম্পদ ধ্বংস করে চলছে এক শ্রেণির অসাধু মাছ শিকারিরা। চায়না দুয়ারিকে স্থানীয়ভাবে জাল বলা হলেও এটি মাছ ধরার বিশেষ একটি ফাঁদ। একে চায়না জাল, ম্যাজিক জাল নামেও ডাকা হয়। এ ফাঁদের কারণে জলাশয়গুলো দিন দিন মাছশূন্য হয়ে পড়ছে বলে অভিযোগ মৎস্যজীবীদের।

জানা যায়, এই চায়না দুয়ারি দৈর্ঘ্য প্রায় ৭০ থেকে ১০০ ফুট লম্বা হয়।লোহার রডের রিং দিয়ে খোপ আকারে বাক্স তৈরি করে চারপাশ সূক্ষ্ম জাল দিয়ে ঘেরাও করে তৈরি করা হয়। এই দুয়ারির দুই দিকে মুখ থাকায় মাছ ভেতরে ঢুকলে আর বের হতে পারে না। ঘন ফাঁসের এই দুয়ারিতে পোনা মাছ থেকে শুরু করে ছোট বড় সব ধরনের মাছ আটকা পড়ায় ধ্বংস হচ্ছে মৎস্য সম্পদ। রবিবার (২৩জুন) উপজেলার চিকনপুর সেতু সংলগ্ন হাওড়ে এ জাল দিয়ে মাছ নিধনের দৃশ্য লক্ষ্য করা গেছে।

জানাযায়, উপজেলার ধলেশ্বরী, মেঘনা , সুতাং, ভলবদ্র নদী কুচিয়া বিল, জিরুন্ডা হাওড়, স্বজনগ্রাম হাওড়, রুহিতনসী হাওড়, কৃষ্ণপুর হাওড়, বুল্লা হাওড়, শিবপুর হাওড়, নোয়াগাও হাওড় সহ বিভিন্ন হাওড়ে চায়না দুয়ারি দিয়ে নিধন করা হচ্ছে দেশীয় প্রজাতির মাছ।

সারা বছরই বিভিন্ন স্থানে এই ফাঁদ দিয়ে মাছ শিকার করলেও বর্ষা মৌসুমে যেন অসাধু শিকারিরা মাছ ধরার মহোৎসবে নামে। জোয়ারের পানির সঙ্গে ডিমওয়ালা বিভিন্ন প্রজাতির মাছ খাসল, বিলসহ বিভিন্ন স্থানে বংশ বিস্তারের জন্য আসার গতি পথে পাতা হচ্ছে এই ফাঁদ।

অতিন্দ্র সহ একাধিক মৎস্য শিকারির সঙ্গে কথা বলে জানা যায়, প্রথম দিকে এই দুয়ারি চীন হতে আমদানি করা হতো বলে দামও ছিল চড়া । বর্তমানে আমাদের দেশের বিভিন্ন কারখানায় তৈরি হচ্ছে তা। তাই দুয়ারির মূল্য আগের তুলনায় অর্ধেক হওয়ায় নানা শ্রেণিপেশার মানুষ এই ফাঁদ ব্যবহার করে নিধন করছে বিভিন্ন প্রজাতির মাছ। এতে অল্প টাকায় দুয়ারি কিনে কম পরিশ্রমে বেশি মাছ নিধন করে বেশিলাভবান হচ্ছে সবাই, তাই মাছ নিধন করছে। এদিকে সচেতন মহল বলছে, চায়না দুয়ারি জাল ব্যাবহার বন্ধ না করলে এক সময় দেশীয় মাছ বিলুপ্ত/ অস্তিত্ব সংকটে পড়বে।

লাখাই উপজেলা মৎস্য কর্মকর্তা মো.আবু ইউসুফ বলেন, ,অচিরেই আমরা আইনানুগ ব্যবস্থা গ্রহণ করব। পূর্বে হাওড়ে অবৈধ জাল ব্যাবহার রোধেও মোবাইল কোর্ট করা হয়েছে।