ঢাকারবিবার , ৩১ জুলাই ২০২২
আজকের সর্বশেষ সবখবর

লাখাইয়ে গণধর্ষণের ঘটনায় ইউপি সদস্য তোফাজ্জল গ্রেফতার

স্টাফ রিপোর্টার
জুলাই ৩১, ২০২২ ১১:২৩ পূর্বাহ্ণ
Link Copied!

লাখাই উপজেলার মোড়াকড়ি গ্রামের টিক্কাপুর হাওরে নৌকায় গত বছর ঘটে যাওয়া চাঞ্চল্যকর নববধু গণধর্ষণের
ঘটনায় তোফাজ্জল হক নামের এক ইউপি সদস্য গ্রেফতার হয়েছে।

শনিবার (৩০ জুলাই) সন্ধ্যার পর লাখাই থানার অফিসার ইনচার্জ (তদন্ত) চম্পক দামের নেতৃত্বে লাখাই থানা পুলিশের একটি দল তাকে গ্রেফতার করে।

গ্রেফতারকৃত তোফাজ্জল হক মোড়াকরি গ্রামের মন্নাফ মিয়ার পুত্র। এ ব্যাপারে চম্পক দামের সাথে যোগাযোগ করা হলে তিনি জানান,ধর্ষণের ঘটনার পরবর্তী সময়ে ধর্ষণের ভিডিও চিত্র মোবাইলের মাধ্যমে ছড়িয়ে দেয়া এবং ধর্ষণের ঘটনা পরবর্তী সময়ে সংশ্লিষ্টতার কারনে তাকে গ্রেফতার করা হয়েছে।

এ ঘটনায় ৮ জনের বিরুদ্ধে মামলা দায়ের করা হয়। মামলার অন্য আসামীরা হলেন, মোড়াকরি গ্রামের বাসিন্দা খোকন মিয়ার পুত্র মুছা মিয়া, ইব্রাহিম মিয়ার পুত্র মিঠু মিয়া, পাতা মিয়ার পুত্র হৃদয় মিয়া, বকুল মিয়ার পুত্র সুজাত
মিয়া, মিজান মিয়ার পুত্র জুয়েল মিয়া, ওয়াহাব মিয়ার পুত্র মুছা মিয়া ও রুকু মিয়ার পুত্র শুভ মিয়া। ধর্ষণের শিকার
গৃহবধূর স্বামী বাদী হয়ে হবিগঞ্জ নারী ও শিশু নির্যাতন দমন ট্রাইব্যুনালে ২ সেপ্টেম্বর মামলা দায়ের করেন।

এ নিয়ে এ মামলার ৭ জন আসামী গ্রেপ্তার হয়েছে। এর আগে র‍্যাব ও পুলিশের হাতে সোলায়মান রনি, মিঠু মিয়া,
নাঈমুর রহমান শুভ, হৃদয় মিয়া ,সুজাত মিয়া ও জুয়েল মিয়া গ্রেপ্তার হয়। তবে মামলার প্রধান আসামী মোড়াকড়ি
গ্রামের বাসিন্দা খোকন মিয়ার পুত্র মুছা মিয়া এখনো গ্রেপ্তার হয়নি।

গত বছর গ্রেফতারকৃদের মধ্যে মুড়াকরি গ্রামের ইকবাল হোসেন ছোট্টু মিয়ার পুত্র উপজেলা ছাত্রলীগ নেতা
সোলায়মান হোসেন রনির সাথে মোটরসাইকেল চুরির মামলায় ওয়ারেন্টভুক্ত আসামি হবিগঞ্জ জেলা ছাত্রলীগের
সাবেক সভাপতি সাইদুর রহমান, ছাত্রলীগ নেতা পায়েল, কেন্দ্রীয় ছাত্রলীগ সভাপতি আল নাহিয়ান জয় সহ তোলা
একটি ছবি সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে ভাইরাল হয়। এ নিয়ে সংবাদ প্রকাশিত হলে বিষয়টি নিয়ে তুমুল
সমালোচনার সৃষ্টি হয়।

মামলা সূত্রে জানা যায়, গত ২৫ আগস্ট ধর্ষণের শিকার ওই নারী তার স্বামী ও স্বামীর বন্ধুকে নিয়ে কৃষ্ণপুর গ্রামের
পাশের টিক্কাপুর হাওড়ে নৌকা ভাড়া করে নৌকা ভ্রমনে যান। ঐদিন দুপুরে ইঞ্জিনচালিত আরেকটি নৌকায় করে
অভিযুক্ত আসামিরা তাদেরকে ঘেরাও করে ফেলেন। এ সময় মুছা মিয়া, সুজাত মিয়া, জুয়েল মিয়া ভিকটিমের  স্বামীর বন্ধু ও নৌকার মাঝি কে প্রচন্ড রকম মারধর করেন।

এরপর অভিযুক্তরা গৃহবধূর স্বামী স্বামীর বন্ধুকে তাদের ইঞ্জিনচালিত নৌকায় গুড়ায় হাত পা বেঁধে রাখেন। নৌকার মাঝি কে খুন করার ভয় দেখিয়ে জোরপূর্বক হাওরের সুইচগেট এ নৌকাটি নিয়ে যেতে বাধ্য করেন। সুইচ গেটে নৌকাটি বেঁধে রেখে অভিযুক্ত সকল আসামীগন নৌকাটিতে উঠে পালাক্রমে দীর্ঘ প্রায় দু’ঘণ্টা ধরে ওই নববধূকে গনধর্ষণ করেন। এ সময় পৈশাচিক যৌন নির্যাতনে ওই গৃহবধূ নিস্তেজ হয়ে পড়েন।

এরপর আবারো ধর্ষিতার স্বামী ও স্বামীর বন্ধু কে ধর্ষকেরা মারধর করে তাদের শরীরের সকল কাপড়-চোপড় খুলে ধর্ষিতার পাশে শুইয়ে দিয়ে তাদের উলঙ্গ অবস্থায় ছবি ও ভিডিও ধারন করেন। ৯ লক্ষ টাকা না দিলে এসব ছবি ও ভিডিও ভাইরাল করে দেবেন বলে ধর্ষকেরা হুমকি দেন।

এসময় এ ঘটনা নিয়ে কোনো প্রকার মামলা-মোকদ্দমা কিংবা লোক জানাজানি করলে তাদেরকে হত্যা করে লাশ পানিতে ভাসিয়ে দেয়ার হুমকি ও দেন তারা। বিকাল তিনটার দিকে তাদেরকে এ অবস্থায় ফেলে রেখে ধর্ষকগণ চলে যায়।

লোক লজ্জায় ও অত্যন্ত প্রভাবশালী ধর্ষকদের ভয়ে ধর্ষিতার চিকিৎসা না করে তার স্বামী ও স্বামীর বন্ধু পার্শ্ববর্তী নাসিরনগর উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে চিকিৎসা গ্রহণ করেন। ঘটনার চারদিন পর ধর্ষকরা টাকা না দিলে ভিডিও ছড়িয়ে দেয়ার ভয় দেখায় ধর্ষিতা ও তার স্বামীকে।

টাকা না দেয়ায় এলাকার কয়েকজনের কাছে ভিডিওটি ছড়িয়ে দেওয়া হয়। পরবর্তীতে ধর্ষিতার শারীরিক অবস্থার মারাত্মক অবনতি হওয়ায় তাকে ১ সেপ্টেম্বর হবিগঞ্জ সদর আধুনিক হাসপাতালে ভর্তি করে চিকিৎসা দেওয়া হয়।

Developed By The IT-Zone