ঢাকাMonday , 10 April 2023
আজকের সর্বশেষ সবখবর

লাখাইয়ে ইউপি চেয়ারম্যান কুদ্দুসের বিরুদ্ধে ভিজিডির চাল বিতরণে অনিয়মের অভিযোগ

এম এ রাজা
April 10, 2023 10:28 am
Link Copied!

লাখাই উপজেলার ৫ নং করাব ইউনিয়নের চেয়ারম্যান মোঃ আব্দুল কুদ্দুসের বিরুদ্ধে ভিজিডির চাল বিতরণে অনিয়মের অভিযোগ উঠেছে। চেয়ারম্যান ভিজিডির চাল না দিয়ে দিলেন ১৪শ টাকা।

চালের বদলে টাকা কেন দিলেন এই প্রশ্ন করায় মহিলার হাত থেকে কেড়ে নিলেন ভিজিডির কার্ড ও ১৪শ টাকা, দিলেন খারাপ ভাষায় গালি।

এ বিষয়ে ভুক্তভোগী ফযিলা আক্তার নামের এক মহিলা গত ৪ এপ্রিল লাখাই উপজেলা নির্বাহী অফিসার নাহিদা সুলতানার কাছে লিখিত অভিযোগ দায়ের করেছেন। অভিযোগ সূত্রে জানা যায় , উপজেলার সিংহ গ্রামের মোঃ তৌহিদ মিয়া তালুকদারের স্ত্রী ফযিলা আক্তার

গত ২০ মার্চ তাদের ওয়ার্ড মেম্বার মোস্তাক মিয়া ও গ্রাম পুলিশ শ্যামল শীল মোবাইল ফোনে কল দিয়ে জানায় ইউনিয়ন পরিষদ থেকে ডিজিডির চাল নিয়ে আসতে।

এর কিছুদিন আগে ওই মহিলার জাতীয় পরিচয় পত্র নিয়ে ভিজিডির তালিকায় তার নাম অন্তর্ভুক্ত করেছিলেন বলে ওয়ার্ড মেম্বার নিশ্চিত করেছিল মহিলাকে।

মেম্বার এবং গ্রাম পুলিশের জানানো নির্ধারিত তারিখে ইউপি পরিষদে চাল আনার জন্য গেলে চেয়ারম্যান ওই মহিলাকে বলেন আজকের মত চাল বিতরণ শেষ।

আগামী রবিবারে অর্থাৎ ২৬ মার্চ ইউনিয়ন পরিষদে আসার জন্য। চেয়ারম্যানের কথা মত ২৬ মার্চ ইউনিয়ন পরিষদে গেলে তখন তাকে ভিজিডির চাল না দিয়ে বিভিন্ন কথা বার্তা বলে বিদায় করে দেন। পরবর্তীতে ওই মহিলা তার স্বামীকে আবার ইউনিয়ন পরিষদে পাঠালে চেয়ারম্যান পুনরায় তার আইডি কার্ড নিয়ে যাওয়ার জন্য বলেন।

পরে ২ এপ্রিল তার আইডি কার্ড নিয়ে চেয়ারম্যানের কাছে গেলে চেয়ারম্যান চাল না দিয়ে নগদ ১হাজার ৪শত টাকা দিলেন। চাল না দিয়ে কেন টাকা দেওয়া হল এই প্রশ্ন করলে চেয়ারম্যান কুদ্দুস উত্তেজিত হয়ে ওই মহিলার হাত থেকে ভিজিডির কার্ড ও টাকা কেড়ে নিয়ে বিভিন্ন ভাষায় গালিগালাজ করতে থাকেন।

এমতাবস্থায় ওই মহিলা নিরোপায় হয়ে বাড়িতে এসে তার স্বামীকে উক্ত ঘটনা বিষয়ে অবগত করেন। এরপর তার স্বামী গ্রামের মাতাব্বরের স্বরনাপন্ন হয়েও কোন বিচার না পেয়ে বাধ্য হয়ে উপজেলা নির্বাহী অফিসারের কাছে লিখিত অভিযোগ দায়ের করেন।

ভুক্তভোগী মহিলার স্বামী তৌহিদ মিয়া দৈনিক আমার হবিগঞ্জকে বলেন, ২ এপ্রিল ইউনিয়ন পরিষদের চাল আনতে গিয়ে জানতে পারেন চেয়ারম্যান ৪১ জনের চাল বিক্রয় করে দিছেন। তাদের চাল কেন বিক্রয় করে দিলেন এই প্রশ্নের জবাবে চেয়ারম্যান তাকে বলে তোমাদের নাম তালিকায় নেই।

পরবর্তীতে কম্পিউটারে চেক করে দেখা যায় ২৩১ নাম্বার সিরিয়ালে তার স্ত্রীর নাম আছে। এরপর বাধ্য হয়ে ১৪শ টাকা দিয়ে তাদের বিদায় করে দিতে চান চেয়ারম্যান কুদ্দুস। চাল না দিয়ে কেন টাকা দেওয়া হচ্ছে এই প্রশ্ন করায় তাদের হাত থেকে টাকাও কেড়ে নেওয়া হয়।

এ বিষয়ে কুদ্দুস চেয়ারম্যান দৈনিক আমার হবিগঞ্জ কে বলেন, ভিজিডির তালিকায় ওই মহিলার নাম-ঠিকানা ঠিক থাকলেও এনআইডি নাম্বার গরমিল ছিল যার জন্য তাকে চাল বা টাকা কোনটাই দেওয়া হয়নি।

চালের পরিবর্তে টাকা কেন দেওয়া হচ্ছে এই প্রশ্নের জবাবে তিনি বলেন, আমার ইউনিয়ন পরিষদ অরক্ষিত যদি কেউ সময় মত চাল নিতে না আসে, তাহলে আমরা সেগুলো বিক্রয় করে দেই পরবর্তীতে যারা আসে তাদেরকে টাকা দিয়ে দেই।

আপনি নাকি ৪১ জনের চাল বিক্রয় করে দিয়েছেন, এই কথার জবাবে তিনি বলেন, যদি এত মানুষের চাল বিক্রয় করে দেই তাহলে সবাই আপনাদের কাছে অভিযোগ নিয়ে যাবে। উপজেলা নির্বাহী অফিসার নাহিদা সুলতানার কাছে কল দিলে তিনি মিটিং এ আছেন বলে কল কেটে দেন।