ঢাকামঙ্গলবার , ১১ জানুয়ারি ২০২২
আজকের সর্বশেষ সবখবর

লাখাইয়ের বুল্লা ইউপি চেয়ারম্যান মুক্তার হোসেন বেনু’র বিরুদ্ধে সরকারি টাকা আত্মসাতের অভিযোগে মামলা দায়ের

স্টাফ রিপোর্টার
জানুয়ারি ১১, ২০২২ ৯:১১ পূর্বাহ্ণ
Link Copied!

লাখাই উপজেলার বুল্লা ইউনিয়ন পরিষদের বিদায়ী চেয়ারম্যান শেখ মুক্তার হোসেন বেনু ও ৫নং ওয়ার্ডের সদস্য কাসেম মিয়ার বিরুদ্ধে বুল্লা বাজার উন্নয়নের সরকারি টাকা আত্মসাৎ করার অভিযোগ উঠেছে। এ ব্যাপারে সদ্য বিদায়ী লাখাই উপজেলা নির্বাহী অফিসার লুসিকান্ত হাজং তার শেষ কর্মদিবসের আগের দিন দুটি পৃথক সার্টিফিকেট মামলা করেন।

জানা যায়, গত অর্থবছরে লাখাই উপজেলার বুল্লা বাজার ইজারা ডাক হতে প্রায় ৩২ লক্ষ টাকা রাজস্ব আদায় করা হয়। এছাড়া অন্যান্য হাট বাজার ইজারা ডাক হতেও রাজস্ব আদায় করা হয়। আদায়কৃত রাজস্ব দ্বারা গঠিত হাট বাজার তহবিল হতে বুল্লা ইউনিয়ন পরিষদের মাধ্যমে বুল্লা বাজারের উন্নয়নের জন্য ৪ লক্ষ টাকা সরকারিভাবে বরাদ্দ প্রদান করা হয়।

বরাদ্দকৃত অর্থ হতে ‘বুল্লা বাজার হতে ইউনিয়ন পরিষদ পর্যন্ত রাস্তা মাটি ভরাট’ ও ‘বুল্লা বাজার হতে ইউনিয়ন পরিষদ পর্যন্ত রাস্তা প্যালাসাইডিং বা প্রতিরক্ষা দেয়াল দ্বারা উন্নয়ন’ নামে দুটি উন্নয়ন প্রকল্প হাতে নেয় বুল্লা ইউনিয়ন পরিষদ।

এরমধ্যে ‘বুল্লা বাজার হতে ইউনিয়ন পরিষদ পর্যন্ত রাস্তা প্যালাসাইডিং দ্বারা উন্নয়ন’ প্রকল্পটির বাস্তবায়ন কমিটির সভাপতি হন বুল্লা ইউনিয়ন পরিষদ চেয়ারম্যান শেখ মুক্তার হোসেন বেনু এবং ‘বুল্লা বাজার হতে ইউনিয়ন পরিষদ পর্যন্ত রাস্তা মাটি ভরাট দ্বারা উন্নয়ন’ প্রকল্পটির বাস্তবায়ন কমিটির সভাপতি হন ইউপি সদস্য কাসেম মিয়া।

ইতোমধ্যেই বরাদ্দের ৫০ শতাংশ অর্থ উত্তোলন করলেও দীর্ঘদিন পরও এ দুটি প্রকল্পের কাজ শুরু করেননি তারা। বরং আরেক ইউপি সদস্য বাচ্চু মিয়া কর্তৃক ৯১ হাজার টাকা ব্যয়ে ‘গ্রামীণ অবকাঠামো রক্ষণাবেক্ষণ’ খাত হতে একই রাস্তায় বাস্তবায়িত অন্য একটি প্রকল্প দেখিয়ে বাকি ৫০ শতাংশ অর্থও উত্তোলন করে আত্মসাৎ করার চেষ্টা করেন তারা।

উপজেলা নির্বাহী অফিসার লুসিকান্ত হাজং বিষয়টি জানতে পেরে তাদের এ চেষ্টা ব্যর্থ করে দেন। পরবর্তীতে লাখাই উপজেলা নির্বাহী অফিসার কর্তৃক ওই কাজ শুরু করার জন্য একাধিকবার তাগাদা দেয়া হলেও কাজ শুরু করব, করছি বলে সময়ক্ষেপণ করেন তারা।

শেষ পর্যন্ত কোন কাজ শুরু না করেই উত্তোলিত ৫০ শতাংশ অর্থ আত্মসাৎ করেন। প্রতিটি ২ লক্ষ টাকার দুটি প্রকল্পের ৫০ শতাংশ হিসেবে ১ লক্ষ টাকা করে ২ লক্ষ টাকা এবং এর সাথে ভ্যাট ও আয়কর ধরে মোট প্রায় ২ লক্ষ ৪০ হাজার টাকা আত্মসাতের অভিযোগে লাখাই উপজেলা নির্বাহী অফিসার লুসিকান্ত হাজং দুটি সার্টিফিকেট মামলা দায়ের করেন।

উল্লেখ্য, সার্টিফিকেট মামলার ক্ষেত্রে নির্ধারিত সময়ের মধ্যে দেনাদার কর্তৃক দাবিকৃত টাকা পরিশোধে ব্যর্থ হলে প্রথমে গ্রেফতারী পরোয়ানা এবং পরবর্তীতে স্থাবর ও অস্থাবর সম্পত্তি ক্রোক ও নিলামে বিক্রি করে দাবিকৃত টাকা আদায়ের কার্যক্রম গ্রহণ করা হয়।

এ ব্যাপারে জানতে অভিযুক্ত চেয়ারম্যান শেখ মুক্তার হোসেন বেনুর সাথে যোগাযোগ করা হলে তিনি পরস্পরবিরোধী বক্তব্য প্রদান করেন। দৈনিক আমার হবিগঞ্জ পত্রিকার প্রতিনিধির সাথে মোবাইলে আলাপকালে তিনি একবার বলেন, এ প্রকল্পের কাজ শুরু করেছেন, পরে আবার বলেন শ্রমিকের অভাবে কাজ করাতে পারেননি। তবে মামলার বিষয়ে তিনি কিছু জানেন না বলে জানান।

এ বিষয়ে জানার জন্য অভিযুক্ত ইউপি সদস্য কাশেম মিয়ার মোবাইলে একাধিকবার কল দেয়া হলেও তিনি তা রিসিভ না করায় কথা বলা সম্ভব হয়নি।

এ বিষয়ে জানতে সদ্য বিদায়ী লাখাই উপজেলা নির্বাহী অফিসার লুসিকান্ত হাজংয়ের সাথে মোবাইলে যোগাযোগ করা হলে তিনি জানান, তারা উন্নয়ন প্রকল্পের জন্য টাকা নিয়ে ভুয়া উন্নয়ন প্রকল্প দেখিয়েছেন কিন্তু আসলে কোন কাজ করেননি। তাদেরকে ৩ কর্মদিবসের মধ্যে কাজের ছবিসহ অগ্রগতি জানানোর জন্য চিঠি দেয়া হয়। কিন্তু ২০/২৫ দিন পেরিয়ে যাওয়ার পরেও তারা কাজের অগ্রগতি জানাননি এবং নোটিশের কোনো উত্তর দেননি।

এ ব্যাপারে তারা কোন প্রকার যোগাযোগও করেননি। শুধু কাজ চলছে বলে জানানো হয়। কিন্তু কি কাজ চলছে, কোথায় কাজ চলছে এ ব্যাপারে কিছু জানানো হয়নি। আত্মসাৎকৃত টাকা উদ্ধারের জন্য তাদের বিরুদ্ধে সার্টিফিকেট মামলা করা হয়েছে।

Developed By The IT-Zone