ঢাকাThursday , 30 March 2023
আজকের সর্বশেষ সবখবর

লাখাইয়ে টিসিবির পণ্য বিতরণ নিয়ে অনিয়ম ও দুর্নীতির অভিযোগ

Link Copied!

লাখাই উপজেলার বুল্লা ইউনিয়ন পরিষদের টিসিবির পণ্য বিতরণ নিয়ে অনিয়ম ও দুর্নীতির অভিযোগ উঠেছে। বুধবার (২৯মার্চ) বুলা ইউনিয়ন পরিষদে টিসিবির ডিলার দেলোয়ার হোসেন মান্না ও কাউসার আহমেদের প্রতিষ্ঠান থেকে পণ্য বিতরণ করা হয়।

অভিযোগ উঠে, তারা ওই বিক্রয় স্থলের জন্য নির্ধারিত ৫৩০ জন গ্রাহকের পণ্য না এনে ৩৯৮ জনের পণ্য নিয়ে আসেন। ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান খোকন চন্দ্র গোপ ও ওয়ার্ড মেম্বার নজরুল ইসলাম অভিযোগ করেন বাকি গ্রাহকদের পণ্য কৌশলে আত্মসাৎ করার জন্য কৌশল অবলম্বন করেন তারা।

বিকাল পাঁচটার দিকে ওই বিতরণ কেন্দ্রে গিয়ে দেখা যায় ৩৫ থেকে ৪০ জন গ্রাহক পণ্য পাননি। লোকজন জানান, অনেকেই অপেক্ষা করে বাড়ি চলে গেছেন।

সেখানে উপস্থিত ডিলার কাউসার আহমেদ জানান, তাদের পণ্য শেষ হয়ে গেছে কিন্তু আরো পণ্য আসছে। ট্যাগ অফিসার জানান, বৈরী আবহাওয়ার কারণে নির্ধারিত পরিমাণ পণ্য কেন্দ্রে নিয়ে আসা সম্ভব হয়নি তবে আরো পণ্য আসছে।

তবে চেয়ারম্যান খোকন চন্দ্র গোপ অভিযোগ করেন, প্রতিবারই এভাবে কম পণ্য নিয়ে এসে এই কেন্দ্রে বিতরণ করা হয়। কৌশলে পণ্য বিতরণ করে কম গ্রাহক এনে অবিক্রিত পণ্য আত্মসাৎ করেন ডিলার।

তবে সরেজমিনে দেখা যায়, বিকাল পাঁচটা পেরিয়ে গেলেও নির্ধারিত পরিমাণ পণ্য না আসায় গ্রাহক অসন্তোষ বেড়ে যায়।

উপস্থিত সাংবাদিকরা বিষয়টি উপজেলা নির্বাহী অফিসার নাহিদা সুলতানা কে জানালে তার হস্তক্ষেপে পরিস্থিতি শান্ত হয়। উপস্থিত গ্রাহকদের মধ্যে পণ্য বিতরণ করা হয়।

তবে তথ্য রয়েছে ওই বিতরন কেন্দ্রে এখন ও প্রায় ৮২ জন গ্রাহকের পণ্য বিতরণ বাকি রয়েছে। এদিকে, এ ব্যাপারে ডিলার দেলোয়ার হোসেন মান্না সংবাদ সম্মেলন আহবান করেন।

সংবাদ সম্মেলনে তিনি অভিযোগ করেন চেয়ারম্যান খোকন চন্দ্র গোপ তাকে পণ্যের লভ্যাংশ দিয়ে সমুদয় পণ্য নিজেদের দোকানে নিয়ে বিক্রি করার অনৈতিক প্রস্তাব দেন।

এ লক্ষ্যে তিনি আগেই খালি অবিকৃত রেজিস্টারে দস্তখত করে তাকে সেই কাগজপত্র প্রদান করেন। তিনি সেই প্রস্তাবে রাজি না হওয়ায় চেয়ারম্যান খোকন তার লোকজন দিয়ে ইচ্ছাকৃত ভাবে কৃত্রিম সংকট তৈরি করে তাকে বেকায়দায় ফেলার চেষ্টা করেন।

এব্যাপারে চেয়ারম্যান খোকনচন্দ্র গোপের সাথে যোগাযোগ করা হলে তিনি জানান, এসব অভিযোগ সম্পূর্ণ মিথ্যা। মূলত ডিলার দেলোয়ার হোসেন মান্না দুর্নীতির অভিযোগ থেকে রক্ষা পেতেই মিথ্যা অভিযোগ আনয়ন করছেন।

অবিক্রিত রেজিস্টারে তার দস্তখত থাকা প্রসঙ্গে তিনি বলেন দস্তখত সংবলিত কাগজ দেখলে তিনি বুঝতে পারবেন দস্তখত আসলে সঠিক কিনা। তবে এ ধরনের কাগজে দস্তখত করার বিষয়টি তার জানা নেই।

এ বিষয়ে লাখাই উপজেলা নির্বাহী অফিসার নাহিদা সুলতানার সাথে যোগাযোগ করা হলে তিনি জানান, এ ব্যাপারে তদন্ত কমিটি গঠন করে দেয়া হবে। তদন্ত কমিটির রিপোর্ট অনুযায়ী ব্যবস্থা নেয়া হবে।