ঢাকাSunday , 2 April 2023
আজকের সর্বশেষ সবখবর

লাখাইয়ের করাব ইউনিয়নে ভিজিডি তালিকায় অনিয়ম ও দুর্নীতির অভিযোগ

Link Copied!

লাখাই উপজেলার করাব ইউনিয়নে গরিব অসহায় ও দুঃস্থ নারীদের জন্য সরকারিভাবে মাসিক ৩০ কেজি করে চাল সাহায্য দেয়ার ভিজিডি/ভিডব্লিউবি তালিকায় অনিয়ম ও দুর্নীতির অভিযোগ উঠেছে।

নিয়মানুযায়ী অসচ্ছল, দরিদ্র ও দুস্থ নারীদেরকে তালিকাভুক্ত করার কথা থাকলেও ওই ইউনিয়নের একাধিক ওয়ার্ডের তালিকায় পাকা দালান ও জমিজমা রয়েছে এমন সচ্ছল পরিবারের নারীদেরকে কালিকাভুক্ত করার অভিযোগ উঠেছে ও ইউনিয়নের মেম্বার ও চেয়ারম্যানের বিরুদ্ধে।

তালিকা যাচাই-বাছাই করে চূড়ান্ত করার কথা থাকলেও উপজেলা মহিলা বিষয়ক কর্মকর্তা ভালো করে যাচাই-বাছাই করেননি বলে অভিযোগ পাওয়া গেছে।

চেয়ারম্যান ও মেম্বারদের আত্মীয়-স্বজন হিসেবে এবং অবৈধ সুবিধা গ্রহণ করে অনিয়মতান্ত্রিকভাবে ভিজিডি তালিকায় নাম দেয়ার অভিযোগ পাওয়া যায়।

ওই ইউনিয়নের চেয়ারম্যান আব্দুল কুদ্দুস, সচিব জিলু মিয়া ও মহিলা বিষয়ক কর্মকর্তা পেয়ারা বেগমের স্বাক্ষরিত ‘ভিডব্লিউবি কর্মসূচির জন্য উপকারভোগী মহিলা নির্বাচনের তালিকা চূড়ান্ত ছক ভিডব্লিউবি চক্র ২০২৩-২০২৪ যাচাই করে এ রকম নানা অভিযোগ পাওয়া যায়।

অভিযোগ পাওয়া যায় যে, ওই ইউনিয়নের ডিজিটাল উদ্যোক্তা মোস্তফা কামালের স্ত্রীর নাম ও তালিকার ১৫ নং ক্রমিকে অন্তর্ভুক্ত করা হয়েছে। ৫ নং ওয়ার্ডের মনতৈল গ্রামের ইউপি সদস্য খালেক মিয়ার অবিবাহিত মেয়ে পারভিতা আক্তারের নাম অন্তর্ভুক্ত করা হয়েছে ৬৮ নং ক্রমিকে। অবিবাহিতা হলেও অভিভাবক হিসেবে তার ভাই আব্দুল্লাহর নাম লেখা হয়।

তালিকার ২৯২ ক্রমিকে খালেক মেম্বারের কন্যা মোছাঃ সেলিনা খাতুনের নাম অন্তর্ভুক্ত করা হয়েছে। সেলিনা খাতুনের টাইলস করা পাকা ঘর রয়েছে এবং তার পরিবার স্বচ্ছল।

তালিকার ১৮ নম্বর ক্রমিকে ওই মেম্বারের আপন ভাইয়ের স্ত্রীর নাম অন্তর্ভুক্ত করা হয়েছে। তালিকার ৫০ ও ১২২ নম্বর ক্রমিকে মোসাম্মৎ সাবিরা খাতুন নামের এক নারীর তালিকা দুইবার অন্তর্ভুক্ত করা হয়েছে এবং ওই নারী ২০১৯-২০ সালের তালিকায় সুবিধাভোগী হিসেবে অন্তর্ভুক্ত ছিলেন। তালিকার ৭১, ৩০২, ৩১২, ৩১৫ নম্বর ক্রমিকে সচ্ছল নারীদের নাম অন্তর্ভুক্ত করা হয়েছে।

তালিকার ২৯, ৩৫, ৮১, ২৩৭ ক্রমিকের নাজিরা ২০১৯-২০ অর্থবছরে বিজেপি তালিকায় অন্তর্ভুক্ত ছিলেন। ৩৮, ৯০ ক্রমিকের নারীদের গ্রাম মনতৈল হলেও তালিকায় সিংহ গ্রাম হিসেবে অন্তর্ভুক্ত করা হয়েছে। ৯৭ ক্রমিকের মোসাম্মৎ স্বরূপা আক্তার কার্ড হাতে পাননি বলে অভিযোগ উঠেছে।

১৭৪, ২৯৮ ক্রমিকের নারীরা করাব ইউনিয়নের বাসিন্দা হিসেবে তালিকাভুক্ত হলেও বিবাহিতা হিসেবে অন্য ইউনিয়নে বসবাস করেন। ২৬৭ ক্রমিকের মোছাঃ সুফিয়া খাতুনের স্বামী মনতৈল আবু জাহির কলেজের নাইট গার্ড হিসেবে চাকরি করেন।

এ ব্যাপারে ইউপি সদস্য খালেক মিয়ার সাথে যোগাযোগ করা হলে তিনি তার দেয়া নামগুলির সব কয়টি অসচ্ছল বলে দাবি করেন। এ বিষয়ে করাব ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান আব্দুল কুদ্দুসের সাথে যোগাযোগ করা হলে তিনি জানান, এ বিষয়গুলি তারা খতিয়ে দেখবেন।

লাখাই উপজেলা মহিলা বিষয়ক কর্মকর্তা (অতিরিক্ত দায়িত্ব) পেয়ারা বেগমের সাথে যোগাযোগ করা হলে তিনি জানান, এখন গ্রামের অধিকাংশ মানুষই আধাপাকা ঘরে বাস করে। আধা পাকা ঘরে বাস করলেই তো সচ্ছল বলা যায় না।

এ ব্যাপারে লাখাই উপজেলা নির্বাহী অফিসার নাহিদা সুলতানার সাথে যোগাযোগ করা হলে তিনি জানান, এ ধরনের নামগুলি চিহ্নিত করে তাকে দেয়া হলে তিনি ব্যবস্থা নেবেন।