ঢাকাTuesday , 15 February 2022
আজকের সর্বশেষ সবখবর

লাখাইয়ে টিআর-কাবিটার টাকা আত্মসাত : সাবেক চেয়ারম্যান এনামুল হক মামুনের বিরুদ্ধে দুদকের মামলা

এম এ রাজা
February 15, 2022 10:33 am
Link Copied!

লাখাই উপজেলার বামৈ ইউনিয়ন পরিষদের সদ্য সাবেক চেয়ারম্যান এনামুল হক মামুনসহ আরো দুই আসামীর বিরুদ্ধে উন্নয়ন কাজের জন্য বরাদ্দকৃত টিআর ও কাবিটা প্রকল্পের অর্থ কাজ না করেই ভুয়া স্বাক্ষর দিয়ে আত্মসাতের অভিযোগে হবিগঞ্জ জেলা দুর্নীতি দমন কমিশনে মামলা রুজু করা হয়েছে।

মামলার অন্য দুই আসামি হলেন লাখাই উপজেলার সাবেক প্রকল্প কর্মকর্তা মেশকাতুল ইসলাম ও প্রকল্প বাস্তবায়ন অফিসের অফিস সহায়ক গোলাম কিবরিয়া।

গত বছরের ৩০ সেপ্টেম্বর হবিগঞ্জ জেলা দুর্নীতি দমন কমিশনের উপ সহকারী পরিচালক মোহাম্মদ সোয়ায়েব হোসেন বাদী হয়ে এ ব্যাপারে মামলা এফআইআর করেন।

মামলা সূত্রে জানা যায়, ২০১৮-১৯ অর্থবছরে ২ লক্ষ ৮২ হাজার টাকার ‘ভাদিকারা জেলখানা রোড হতে মোহাম্মদিয়া ঈদগাহ পর্যন্ত রাস্তা পুনঃ নির্মাণ প্রকল্পে’র সভাপতি হিসেবে সংরক্ষিত ইউপি মহিলা সদস্য মোছাঃ বিউটি আক্তার ও একই অর্থবছরে ৪ নং বামৈ ইউনিয়ন পরিষদ উন্নয়ন প্রকল্প’ এর জন্য টিআর বরাদ্দের ৫০ হাজার টাকার প্রকল্পের সভাপতি হিসেবে সংরক্ষিত ইউপি মহিলা সদস্য মোছাঃ ফাহিমা আক্তারকে প্রকল্প কমিটির কাগজপত্রে দেখানো হয়।

কিন্তু এ প্রকল্পের কোন রেকর্ড পত্রে তারা দুজনেই স্বাক্ষর করেননি এবং কোন বিল নেননি মর্মে দেখা যায়। দুদকের অনুসন্ধানে প্রকল্প দুটির কাজ সঠিকভাবে করা হয়নি বলেও দেখা যায়। বাস্তবে উপজেলা প্রকল্প বাস্তবায়ন কর্মকর্তা মেশকাতুল ইসলামের নির্দেশে লাখাই উপজেলা প্রকল্প বাস্তবায়ন অফিসের অফিস সহায়ক মোঃ গোলাম কিবরিয়া বিভিন্ন প্রকল্পের মাস্টাররোল পূরণ করে সেগুলোতে প্রকল্প কমিটির স্বাক্ষর নিজেরাই দিয়ে কাবিখা প্রকল্পের টাকা আত্মসাতে সহায়তা করেন।

একই সাথে ইউপি চেয়ারম্যান এনামুল হক মামুন প্রকল্প কমিটির সভাপতিসহ অন্যান্যদের ভুয়া স্বাক্ষর সম্বলিত তালিকা উপজেলা প্রকল্প বাস্তবায়ন অফিসে দাখিল করেন। পিআইও মেশকাতুল, অফিস সহায়ক কিবরিয়া ও চেয়ারম্যান এনাম পরস্পর যোগসাজসে ওই দুটি উন্নয়ন প্রকল্পের ৩ লক্ষ ৩২ হাজার টাকা ভুয়া স্বাক্ষর সংবলিত বানোয়াট প্রকল্প কমিটি দেখিয়ে আত্নসাত করেন বলে মামলা সুত্রে জানা যায়।

এ বিষয়ে দুদককে লিখিত অভিযোগের মাধ্যমে তথ্য সরবরাহকারী বামৈ ইউপি সদস্য মোঃ ইকবাল মিয়া জানান, প্রায় ৪ মাস আগে আমার অভিযোগের প্রেক্ষিতে দুদক এ মামলা এফআইআর করলেও এ সংক্রান্ত তথ্য আমাকে জানায় নি। ইউপি নির্বাচনের পর আমি গত ৪/৫ দিন আগে বিষয়টি জানতে পেরে গনমাধ্যমকে জানাই।

তিনি অভিযোগ করেন, মামলা এফআইআর এর ৪ মাস অতিবাহিত হলেও এখনো আসামীদের গ্রেফতার করতে দুদকের কোন তৎপরতা লক্ষ করা যায় নি। তিনি জানান, ২০১৯ সালের জুন মাসে তিনি ইউপি চেয়ারম্যান এনামের বিরুদ্ধে ট্যাক্স আদায় করেও ইউপি সদস্যদের সম্মানী ভাতা না দেয়া, ২০১৮ সালে ৪ শত কৃষকের জন্য বরাদ্দকৃত প্রতিমাসে জনপ্রতি ৩০ কেজি চাল ৫০০ টাকা করে মোট ১২ মাসে শত শত কৃষকের বরাদ্দ আত্নসাত, বিশেষ ভিজিএফ, ভিজিডি, কর্মসৃজন প্রকল্প ও এলজিএসপি প্রকল্পের লক্ষ লক্ষ টাকা আত্নসাতের লিখিত অভিযোগ হবিগঞ্জ জেলা দুদকে তদন্তাধীন থাকলেও এখনো সবগুলো বিষয়ে পুর্নাঙ্গ ব্যবস্থা গ্রহন হয়নি।

এ ব্যাপারে লাখাই উপজেলার সাবেক পিআইও মেশকাতুল ইসলাম জানান, আমি নিজেও এ বিষয়টি দুদিন আগে জেনেছি। আমি আদালতে আইনানুগভাবে নিজেকে নির্দোষ প্রমান করতে পারবো বলে মনে করি। অফিস সহায়ক কিবরিয়ার সাথে মোবাইলে যোগাযোগ করা করা হলে তিনি বলেন, ভাই আমি ছোট চাকুরী করি আমার কিভাবে সংশ্লিষ্টতা থাকে আপনিই বলুন। আমি এ ঘটনায় দায়ী নই।

চেয়ারম্যান এনামুল হক মামুনের মোবাইলে কল দেয়া হলে তার ফোন রিসিভ করে তার আত্নীয় জানান তিনি অসুস্থ রয়েছেন, কথা বলার অবস্থায় নেই। মামলার বাদী ও তদন্তকারী কর্মকর্তা হবিগঞ্জ জেলা দুর্নীতি দমন কমিশনের উপ সহকারী পরিচালক মোহাম্মদ সোয়ায়েব হোসেনের সাথে মোবাইলে যোগাযোগ করা হলে, এ ব্যাপারে মন্তব্য করতে আইনী বাধা রয়েছে বলে জানান তিনি।