ঢাকাবুধবার , ২৯ জুন ২০২২
আজকের সর্বশেষ সবখবর

লস্করপুর ইউনিয়নের দারুল হুদা দাখিল মাদরাসার সুপারের বিরুদ্ধে দুর্নীতির নানা অভিযোগ

স্টাফ রিপোর্টার
জুন ২৯, ২০২২ ১১:২৭ পূর্বাহ্ণ
Link Copied!

হবিগঞ্জ সদর উপজেলার ১০নং লস্করপুর ইউনিয়নের দারুল হুদা দাখিল মাদ্রাসার ভারপ্রাপ্ত সুপারের বিরুদ্ধে পকেট কমিটি ও অতিরিক্ত ফি বানিজ্যের এবং প্রতিষ্ঠানের অর্থ আত্মসাৎসহ নানা দূর্নীতির অভিযোগ উঠেছে।

প্রতিষ্ঠানটিতে পড়ুয়া ছাত্রছাত্রীদের পক্ষে আজিজুল ইসলাম ও সাব্বির রহমান রাব্বি নামে দুই শিক্ষার্থী এমন অভিযোগ তুলে উপজেলা নির্বাহী অফিসার হবিগঞ্জ সদর, জেলা শিক্ষা অফিসার, উপজেলা মাধ্যমিক অফিসার, জেলা প্রসাশকসহ বিভিন্ন দপ্তরে একটি লিখিত অভিযোগ দায়ের করেছেন।

অভিযোগ ও স্থানীয় সূত্রে জানা যায়, মাদ্রাসার ভারপ্রাপ্ত সুপার ওবায়দুল হক নিয়োগ পাওয়ার পর থেকেই শিক্ষার্থীদের কাছ থেকে অতিরিক্ত বেতন, ভর্তি ফি, পরিক্ষার ফরম ফিলাপসহ বিভিন্ন প্রয়োজনে অতিরিক্ত ফি নিয়ে আসছিলেন।

কোন কারণে কেউ অতিরিক্ত টাকা দিতে অস্বীকার করলে তাদের শুনতে হয় বকাঝকা। শুধু তাই নয়, মাদ্রাসার ভারপ্রাপ্ত সুপার ওবায়দুল হক নিয়োগ পাওয়ার পর থেকেই দীর্ঘদিন যাবত
বিভিন্ন অনিয়ম ও দূর্নীতি করে মাদ্রাসা পরিচালনা করে আসছেন।

এ ব্যাপারে হবিগঞ্জ সদর উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা (অতিরিক্ত) দায়িত্বে নাজরাতুন নাঈম
জানান, সম্প্রতি ছুটিতে থাকার ফলে ছাত্রছাত্রীদের অভিযোগের বিষয়টি তার জানা নেই, খোঁজ নিয়ে তদন্ত সাপেক্ষে প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা নেয়া হবে।

জেলা শিক্ষা কর্মকর্তা মোহাম্মদ রুহুল্লাহ জানান, বিষয়টি তার জানা নেই। তবে খোজঁ নিয়ে ব্যবস্থা গ্রহন করা হবে। এর আগে, এড্হক কমিটির সভাপতি ও ভারপ্রাপ্ত সুপারকে ঘুষ দিতে রাজি না হওয়ায় ওই মাদ্রাসার এক শিক্ষককে বহিস্কার করার ঘটনা ঘটে ।

এ ঘটনায় বহিস্কৃত ওই শিক্ষক দীর্ঘদিন দায়িত্ব পালন করে বর্তমানে কর্মহীন হয়ে প্রতিকার চেয়ে বাংলাদেশ বেসরকারি শিক্ষক নিবন্ধন ও প্রত্যয়ন কর্তৃপক্ষ (এনটিআরসিএ) বরাবরে অভিযোগ
দায়ের করেন।

বাংলাদেশ বেসরকারি শিক্ষক নিবন্ধন ও প্রত্যয়ন কর্তৃপক্ষ (এনটিআরসিএ) এর নীতিমালা অনুযায়ী গত ১৬ ফেব্রুয়ারীতে দারুলহুদা ইসলামিয়া দাখিল মাদ্রাসায় সহকারী মৌলভী পদে নিয়োগপ্রাপ্ত হন শাহিন মিয়া নামে ওই শিক্ষক।

এরপর ৭ মাস ১২দিন দায়িত্ব পালন করার পর ওই মাদ্রাসার সভাপতি আফজল আলী দুদু ও ভারপ্রাপ্ত সুপার ওবায়দুল হক ২ লাখ টাকা দাবী করেন এবং তাদের চাহিদামত টাকা না দিলে চাকুরী স্থায়ী করা হবে না বলে জানিয়ে দেন।

সর্বশেষ কোন উপায়ন্তর না পেয়ে বিস্তারিত বিষয় উল্লেখ করে (এনটিআরসিএ) চেয়ারম্যান বরাবার গত ২১ অক্টোবর তিনি একটি অভিযোগ দায়ের করেন।

(এনটিআরসিএ) তার অভিযোগটি আমলে নিয়ে হবিগঞ্জ জেলা শিক্ষা কর্মকর্তাকে তদন্তের নির্দেশ দেন। এদিকে বিষয়গুলো উচ্চ আদালতের নজরে আসলে বাংলাদেশ মাদ্রাসা বোর্ডের পরিচালক ও চেয়ারম্যানকে আদেশ প্রাপ্তির ১৫ কার্য দিবসের মধ্যে সমাধানের নির্দেশ প্রদান করেন সংশ্লিষ্ট উচ্চ আদালতের বেঞ্চ।

Developed By The IT-Zone