ঢাকাThursday , 1 February 2024

রুবেল-জলিল ও তাদের সহযোগীদের বিরুদ্ধে অর্থ আত্মসাতের অভিযোগে আরও একটি মামলা

Link Copied!

সিটি-সাইবার ক্রাইম ইনভেস্টিগেশন ডিভিশন এর কাউন্টার টেরোরিজম ইউনিট এর দায়ের করা মামলায় জেল হাজতে প্রেরণের পর এবার অভিযুক্তদের বিরুদ্ধে আরও একটি মামলা দায়ের করা হয়েছে। প্রতারণা করে প্রায় ২০ লক্ষাধিক টাকা হাতিয়ে নেয়ার এ মামলায় আসামী করা হয়েছে স্থানীয় কয়েকজন অনলাইন জুয়ার এডমিন ও এজেন্টদের।

মামলার প্রধান আসামীরা হলেন, ‘হবিগঞ্জ সদর উপজেলার শরীফপুর এলাকার আব্দুল মালেকের পুত্র আব্দুল জলিল ওরফে মেম জলিল (৪৫), আব্দুল লতিফের পুত্র রুবেল মিয়া (৩৫), বনদক্ষিণ এলাকার মৃত সৈয়দ আলীর পুত্র রেজাউল (৩৬)সহ আরও অনেকে।

সদ্য দায়েকৃত মামলার বিবরণে জানা যায়, সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে ফেইক আইডি’র মাধ্যমে লোভনীয় বিজ্ঞাপনের দিয়ে সাধারণ মানুষদের আকৃষ্ট করে বিকাশ, রকেটসহ নানা অনলাইন লেনদেন মাধ্যম ব্যবহার টাকা হাতিয়ে নেয় তারা। এভাবেই অনলাইন জুয়ার এজেন্টধারীদের প্রতারণার শিকার হয়ে নিঃস্ব হয়েছে হাজারো পরিবার।

এ মামলায় অভিযুক্তদের দ্রুত রিমান্ডের আওতায় আনা হবে বলে জানিয়েছে বিশ্বস্ত সুত্র। এর আগে গত ২০ জানুয়ারী রাজধানীর রমনা থানায় সিটি-সাইবার ক্রাইম ইনভেস্টিগেশন ডিভিশন এর কাউন্টার টেরোরিজম ইউনিট বাদী হয়ে একই অভিযোগে মামলা দায়ের করেন।

এ মামলায় স্থানীয় কটিয়াদি বাজার নামক জায়গা থেকে রাতভর অভিযান চালিয়ে অনলাইন ক্যাসিনোর মূলহোতা সুপার এডমিন রুবেল মিয়া ও তার সহযোগী আব্দুল জলিল ও ওরফে মেম জলিলকে আটক করে সিটি-সাইবার ক্রাইম ইনভেস্টিগেশন ডিভিশন এর কাউন্টার টেরোরিজম ইউনিট।

কে এই রুবেল?– স্থানীয় সুত্র জানায়, দু বছর আগেও কটিয়াদি বাজারের অস্থায়ী টং দোকানে চা বিক্রি করতেন রুবেল। তার বাবা আব্দুল লতিফ কিছুদিন আগেও রিক্সা চালিয়ে জীবিকা নির্বাহ করেছেন। রুবেল মিয়ার বাকী ভাইদের সুনির্দিষ্ট কোন পেশা নেই। অনলাইন জুয়ার আর্শিবাদে হঠাৎ করে আঙ্গুল ফুলে কলাগাছ হয়ে গেছে সে। অনলাইন জুয়ার বিরূপ প্রতিক্রিয়াতে নিঃস্ব হয়েছে তারই আশপাশের অনেক পরিবার। রক্তচোষা জোঁকেরমত এলাকার উঠতি বয়সিদের চুষে নিয়েছে সে। নিজেকে আড়াল করে গুছিয়ে অবৈধ উপার্জন করতে তৈরি করে রেখেছেন নিজস্ব চক্র। কাউকে মাসোহারা আবার কাউকে নিজের অধীনস্থ করে আয়ত্ব করে রেখেছেন নিজের সাম্রাজ্য।

কে এই আব্দুল জলিল?-– কখনো বিএনপি আবার কখনো জাতীয় পার্টি সর্বশেষ কোনদিকে সুবিধা করতে না পেরে যোগদান করেন ক্ষমতাসীন দল আওয়ামী লীগে। দলে সুবিধার ঘাটতি হলেই পল্টিমারার অভিযোগ রয়েছে সুবিধাবাদী এই নেতার বিরুদ্ধে। এ ছাড়াও থানায় মামলার তদবীর, স্থানীয় গ্রাম্য আদিপত্যকে কেন্দ্র এলাকার বিচার-সালিসে ফায়দা হাসিল করাই তার কাজ।