ঢাকাবৃহস্পতিবার , ২২ সেপ্টেম্বর ২০২২
আজকের সর্বশেষ সবখবর

রিচি গ্রামের ঐতিহ্যবাহী মন্দির-শ্মশান প্রভাবশালী নূর মোহাম্মদের দখলে : প্রতিকার চেয়ে জেলা প্রশাসক বরাবর আবেদন

স্টাফ রিপোর্টার
সেপ্টেম্বর ২২, ২০২২ ৯:৩৯ পূর্বাহ্ণ
Link Copied!

হবিগঞ্জ সদর উপজেলার রিচি গ্রামের ঐতিহ্যবাহী মন্দির শ্মশান দীর্ঘদিন ধরে জবরদখল করে রেখেছেন হবিগঞ্জ লাখাই শায়েস্তাগঞ্জ-৩ আসনের প্রভাবশালী এমপি আবু জাহিরের চাচাতো ভাই নুর মোহাম্মদ খান।

নুর মোহাম্মদ খান রিচি গ্রামের মৃত আফতাব আলীর পুত্র। আবু জাহিরের পিতার নাম আমীর আলী। আমীর আলী একে অপরের আপন চাচাত ভাই, আফতাব আলী এমপি আবু জাহিরের আপন চাচাত ভাই।

এই আত্মীয়তার সূত্রেই মূলত এমপি আবু জাহিরের প্রভাব খাটিয়ে দীর্ঘদিন ধরে মন্দির ও শ্মশানের বিপুল সম্পত্তি জবর দখল করে রেখেছেন বলে অভিযোগ সনাতন ধর্মাবলম্বীদের।

দখলদার নূর মোহাম্মদের পুত্র মোহাম্মদ মহসিন এক সময়ে ছাত্রদলের রাজনীতি করলেও ২০০৮ এর জাতীয় নির্বাচনের পর ছাত্রলীগের রাজনীতি শুরু করেন।

জানা যায়, মন্দির-শ্মশানের জায়গার দখল ধরে রাখতেই নূর মোহাম্মদের পুত্র মহসিন ছাত্রলীগের রাজনীতিতে আশ্রয় নেয়। মন্দির ও শ্মশান এর জমি জবরদখল করে রেখেছে।

ছবি : ছাত্রদলের মিছিলে নুর মোহাম্মদ এর পুত্র মহসিন

এ ব্যাপারে দৈনিক আমার হবিগঞ্জের পক্ষ থেকে অভিযুক্ত নুর মোহাম্মদের সাথে যোগাযোগ করার চেষ্টা করা হলে তিনি কল রিসিভ করেননি।

বাংলাদেশ হিন্দু বৌদ্ধ খ্রিস্টান ঐক্য পরিষদের সাধারণ সম্পাদক রানা দাশগুপ্ত দৈনিক আমার হবিগঞ্জ’কে জানান, তিনি চিকিৎসা সংক্রান্ত প্রয়োজনে এই মহুর্তে কলকাতা অবস্থান করছেন। আগামী মাসের মাঝামাঝিতে তিনি বাংলাদেশে ফিরবেন। দেশে ফিরলেই বিষয়টি নিয়ে কাজ করবে বাংলাদেশ হিন্দু বৌদ্ধ খ্রিস্টান ঐক্য পরিষদ।

জানা যায়, মন্দির-শ্মশানের জায়গার দখল ধরে রাখতেই নূর মোহাম্মদের ছেলে মহসিন ছাত্রলীগের রাজনীতিতে আশ্রয় নেয়। মন্দির ও শ্মশান এর জমি জবরদখল করে রাখার ঘটনাটি ওই এলাকার সব ধর্মের মানুষেরই জানা আছে। কিন্তু প্রভাবশালী এমপি আবু জাহিরের ছত্রছায়ায় ভয়ঙ্কর হয় ওঠা নূর মোহাম্মদের বিরুদ্ধে কথা বলার মত সাহস কারো নেই।

তবে গত ২০ সেপ্টেম্বর একজন সচেতন সনাতন ধর্মাবলম্বীহিসেবে সুমন নামে ব্যক্তি এক ব্যক্তি মন্দির ও শ্মশানের জমি পুনরুদ্ধার এর জন্য জেলা প্রশাসক বরাবরে একটি লিখিত আবেদন করেছেন।

অভিযোগ সুত্রে সূত্রে জানা যায়, সদর উপজেলার ২নং রিচি ইউনিয়ের শত শত বছরের পুরনো ঐতিহ্যবাহী মন্দির ও শ্মশান দীর্ঘদিন ধরে নূর মোহাম্মদ নামের এক ব্যক্তি জবর দখল করে আছেন।

দখলকৃত মন্দির ও শ্মশান এর জমির এসএ পর্চা খতিয়ান নং ১, ২৬৬ দাগে মন্দিরের ৩৪ শতক জমি, ও ২৬২ দাগে শ্মশানের ৭০ শতক জমি। যেগুলো বর্তমানে মন্দিরের এসএ দাগ নং ২৬৬ থেকে আর এস দাগ নং ৩৮৬, ৩৮৭, ৩৮৮, ও শ্মশানের ২৬২ থেকে ৩৮২, ১/১ ৩৮২ দাগে নতুন জরিপে লিপিবদ্ধ করা হয়েছে। তবে সবগুলোই এখন পর্যন্ত কোন ব্যক্তির নামে করা হয়নি খতিয়ান নং ১ এ লিপিবদ্ধ আছে।

বর্তমানে মন্দির ও শ্মশান এর জমির বৈধ কাগজপত্রে মালিক না হয়েও নূর মোহাম্মদ বাস্তবে মন্দির ও শ্মশানের জমিতে অনেক গুলো দোকান কোঠা তৈরি করে বিভিন্ন ব্যবসায়ীদের কাছে ভাড়া দিয়ে রেখেছেন। এছাড়া অবশিষ্ট জমিতে ঘর তৈরি করে পরিবারের লোকজন নিয়ে নিজেই বসবাস করে আসছেন।

অভিযোগকারী সুমন এর দাবি মন্দির ও শ্বশানের জমিটি পুনরুদ্ধার করে দিলে সনাতন ধর্মাবলম্বীরা পূজা আরাধনা ও সৎকার কার্যক্রম পুনরায় চালু করতে পারবেন।

অভিযোগকারি সুমন জানান, একজন সচেতন নাগরিক হিসেবে জেলা প্রশাসক বরাবর আবেদন করেছি জায়গাগুলো পুনরোদ্ধারের। এখন দেখি জেলা প্রসশাসক কোন ব্যবস্থা নেন কিনা। ব্যবস্থা না নিলে আদালতে মামলা করবো।

এ বিষয়ে রিচি গ্রামে সরেজমিনে গিয়ে তথ্য সংগ্রহ কালে ওই এলাকার একাধিক প্রবীণ মানুষ নাম না প্রকাশের শর্তে জানান, আমাদের জানা মতে ঐতিহ্যবাহী রিচি গ্রামের মন্দির ও শ্মশানে সনাতন ধর্মাবলম্বীদের পূজা আরাধনা ও সৎকার কার্যক্রম স্বাধীনতাযুদ্ধের আগ পর্যন্ত স্বাভাবিক গতিতে চলছিল।

মূলত ১৯৭১ সালে পাকিস্তানের সাথে বাংলাদেশের স্বাধীনতাযুদ্ধ শুরু হওয়ার সময় হিন্দুরা দেশ ছেড়ে ভারতে পালিয়ে যায়। এরপর থেকে ওই জমিটি কিছুদিন পরিত্যক্ত অবস্থায় ছিল।

ওই অবস্থা চলাকালীন সময়ে নুর মোহাম্মদ নামের ওই ব্যক্তি চোখ পড়ে মন্দির ও শ্মশানের জমির উপরে এবং আস্তে আস্তে দখল করতে শুরু করে। বর্তমানে আবু জাহির এমপির প্রভাব খাটিয়ে মন্দির ও শ্মশানের জমিতে একাধিক দোকান কোঠা তৈরি করে মাসে আয় করছে মোটা অংকের টাকা এবং অবশিষ্ট জমিতে সে নিজেই ঘর তৈরি করে পরিবার- পরিজন নিয়ে বসবাস করে আসছে।

উল্লেখ্য, রিচির ন্যায় সদর উপজেলার লুকড়া গ্রামেরআখড়া ও মন্দিরের জায়গা দখল করে সালমান ভবন
নামে দখল করে রেখেছে সাবেক বিএনপির নেতা বর্তমানে ইউনিয়ন আওয়ামী লীগ নেতা জহির মেম্বার। সালমান ভবন উদ্বোধনে আবু জাহির এমপি নিজে উপস্থিত ছিলেন বলে আমার হবিগঞ্জ পত্রিকায় প্রতিবেদনও ছাপা হয়েছিল।

এই বিষয়ে আবু জাহির এমপির সাথে যোগাযোগের চেষ্টা করা হলে, তিনি দৈনিক আমার হবিগঞ্জ পত্রিকার নাম শুনেই ফোন কেটে দেন।

Developed By The IT-Zone