ঢাকাFriday , 7 August 2020
আজকের সর্বশেষ সবখবর

রিকশা চালকের বাড়ি থেকে চাল উদ্ধার, দোষীদের বিরুদ্ধে ব্যবস্থা না নেওয়ায় ডিসি বরাবর এলাকাবাসীর অভিযোগ

Link Copied!

ছবি : ডিসি বরাবর এলাকা বাসীর লিখিত অভিযোগ

 

স্টাফ রিপোর্টার || করোনা ভাইরাসকে ইস্যু করে দেশে বেড়েছে চাল চুরির হিড়িক। এ থেকে পিছিয়ে নেই হবিগঞ্জও। একরে পর এক চাল চুরির ঘটনা সামনে আসছে। আবার ধামাচাপা দেয়ারও চেষ্টা চালিয়ে যাচ্ছে প্রভাবশালী মহল। কেউ কেউ ব্যবহার করছে ক্ষমতার পদ-পদবী।

কোরবানীর ঈদকে সামনে রেখে সারা দেশে বিতরণ করা হয়েছিল ভিজিএফের চাল। এরই ধারাবাহিকতায় হবিগঞ্জের শায়েস্তাগঞ্জ উপজেলার ১১’নং ব্রাহ্মণডুরা ইউনিয়নে গত ২৭ জুলাই দেড় হাজারের বেশি হত দরিদ্রদের মাঝে বিতরণ করা হয় ১০ কেজি করে চাল। কিন্তু ঐসব চাল পৌঁছেনি হতদরিদ্রদের ঘরে। অনেকেই জানেন না তাদের নামে চাল আসার খবর। নামে বেনামে চাল বিতরণের নামে করা হচ্ছে সরকারি চাল আত্মসাৎ।

এমনই অভিযোগ উঠে ১১’নং ব্রাহ্মণডুরা ইউনিয়নের খাদ্যবান্ধব কর্মসুচির ডিলার ও দুই ইউপি সদস্যের নামে।

 

ছবি: ২৯ জুলাই উদ্ধার হওয়া চাল

 

বৃহস্পতিবার (৬ আগস্ট) হবিগঞ্জ জেলা প্রশাসক, স্থানীয় সরকার ও শায়েস্তাগঞ্জ উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তার বরাবরে জনস্বার্থে একটি লিখিত অভিযোগ দায়ের করেন এসএম ফখরুদ্দীন আহমদ সাজিব।

অভিযোগের প্রেক্ষিতে জানাযায়, গত ২৯ জুলাই ওই ইউনিয়নের জাঙ্গাল গ্রামের জাদু সরকারের বাড়ি থেকে শত শত মানুষের সামনে ৫ বস্তা ভিজিএফের সরকারি চাল উদ্ধার করে থানায় নিয়ে যায় পুলিশ। উদ্ধারের এক সপ্তাহ পেরিয়ে গেলেও নেয়া হয়নি কোন ব্যবস্থা। হয়নি কোন তদন্ত টিম। কোন মামলা বা অপরাধীদের নামে কোন ব্যবস্থা না নেয়ায় পুরো এলাকায় বিরাজ করেছে নিরবতা। কোন অদৃশ্য শক্তির কারণে কি থেমে গেল তদন্ত? নাকি অন্যকিছু?

এদিকে চাল উদ্ধারের দিন মিডিয়ার কাছে রিকশা চালক জাদু সরকারের স্ত্রী গোরী রাণী সরকার জানান, ৫ নং ওয়ার্ড সদস্য নান্টু সুত্রধর, ৬ নং ওয়ার্ড সদস্য শাহাবুদ্দিন এবং ইউনিয়ন আওয়ামীলীগের সভাপতি খাদ্যবান্ধব কর্মসুচি চালের ডিলার মাহবুব হোসেন চৌধুরী দিলু মিলে তার বাড়িতে ভিজিএফের ৫ বস্তা চাল রেখে যান। যা স্থানীয় জনতা সন্দেহ হলে প্রশাসনকে খবর দিলে পুলিশ এসে উদ্ধার করে।রহস্যজনক কারণে তদন্ত হয়নি উদ্ধারকৃত চালের। ধামাচাপা দেয়ার চেষ্টা করা হচ্ছে বলেও জানান এলাকাবাসী। ডিলার ও দুই ইউপি সদস্যের খুঁটির জোড় কোথায়? নাকি তাদের পিছনে কারো হাত রয়েছে? এমন নানা প্রশ্নও এখন ইউনিয়নবাসীর মুখে মুখে।

সরকারের দেয়া অসহায় দরিদ্রদের মাঝে চাল আত্মসাৎ করায় এবং তদন্ত সাপেক্ষে জড়িতদের দৃষ্টান্ত শাস্তি চেয়ে ঊর্ধ্বতন কর্তৃপক্ষের বরাবরে জনস্বার্থে লিখিত অভিযোগ দায়ের করেন এসএম ফখরুদ্দীন আহমদ সাজিব।

অভিযোগের বিষয়ে এসএম ফখরুদ্দীন আহমদ সাজিব মুঠোফোনে জানান, সরকারের দেয়া ভিজিএফের ৫ বস্তা চাল ইউনিয়ন অফিস থেকে কিভাবে এক সাথে রিকশা চালকের ঘরে গেল। যে চাল অসহায় মানুষ পাবার কথা, তাদের ঘরে না গিয়ে রিকশা চালকের ঘরে কেন? এর সুষ্ট তদন্ত ও দোষীদের দৃষ্টান্তমূলক শাস্তি দাবী করে অভিযোগ দায়ের করেছি। আমি চাই অসহায়দের দেয়া সরকারের চাল দারিদ্ররা সঠিকভাবে পায়। আশা করি কর্তৃপক্ষ দ্রুত দোষীদের শাস্তির আওতায় আনবে।

এ বিষয়ে জানতে ওই ইউনিয়নের চেয়ারম্যান হোসেইন মুহাম্মদ আদিল জজ মিয়াকে ফোন করলে তিনি জানান, বিষয়টি সম্পর্কে আমি কিছুই জানি না। যেহেতু ডিসি ও ইউএনও’র বরাবরে অভিযোগ দেয়া হয়েছে তখন যা কিছু করার প্রশাসন করবে।

শায়েস্তাগঞ্জ উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা (সুমি আক্তার) জানান, অভিযোগ পেয়েছি। অভিযোগের সত্যতা পেলে দোষীদের বিরুদ্ধে আইনানুগ ব্যবস্থা গ্রহণ করা হবে।

উল্লেখ্য, এর আগে ওই ইউনিয়নের চেয়ারম্যান ও উপজেলা আওয়ামীলীগের সাধারণ সম্পাদক হোসেইন মুহাম্মদ আদিল জজ মিয়া এবং ইউনিয়ন আওয়ামীলীগের সভাপতি ও এমএস ডিলার মাহবুব হোসেন চৌধুরী দিলুসহ এক ইউপি সদস্যের বিরুদ্ধে হতদরিদ্রদের খাদ্যবান্ধব কর্মসূচির চাল আত্মসাতের অভিযোগ এনে গত ২৩ জুলাই, ২৮ জুলাই ও ৩০ জুলাই জেলা প্রশাসক, স্থানীয় সরকার বিভাগ, উপজেলা ইউএনও’র বরাবরে ৪টি লিখিত অভিযোগ দায়ের করেন এলাকার ভুক্তভোগীরা।