ঢাকাবুধবার , ৭ ডিসেম্বর ২০২২
আজকের সর্বশেষ সবখবর

মুক্তিযুদ্ধের মহান সংগঠকের অবমাননায় প্রতিক্রিয়া

বিশেষ প্রতিনিধি
ডিসেম্বর ৭, ২০২২ ১০:০৯ পূর্বাহ্ণ
Link Copied!

১৯৭১ সালের রক্তক্ষয়ী যুদ্ধে যে কজন বীর মুক্তিযোদ্ধা ও মুক্তিযুদ্ধের সংগঠক পাকিস্তানী হানাদারবাহিনীর বর্বরোচিত আক্রমণের মুখে যারা বীরত্বব্যঞ্জক প্রতিরোধযুদ্ধের সূচনা করেছেন তাদের মধ্যে কমাণ্ড্যান্ট মানিক চৌধুরীর ভূমিকা গৌরবময় ৷

মুক্তিযুদ্ধের প্রারম্ভে এই প্রতিরোধ যুদ্ধগুলি ছিল অত্যন্ত তাৎপর্য্যময় ৷ একজন নির্বাচিত সংসদ সদস্যের এই সামরিক অভিযানে নেতৃত্ব দেয়া ছিল একটি ব্যতিক্রমধর্মী ঘটনা ৷

মানিক চৌধুরীর এই সাহসী এবং সময়োপযোগী নেতৃত্ব তাকে মুক্তিযুদ্ধের ইতিহাসে একটি স্থায়ী এবং গৌরবময় আসন দিয়েছে ৷ তিনি মুক্তিকামী জনতার আশা-আকাঙখার প্রতীকে পরিণত হয়েছিলেন ৷ মুক্তিযুদ্ধে অংশগ্রহণের জন্য তিনি সামরিক-বেসামরিক যুবক-বৃদ্ধ, ছাত্র-কৃষক-রাজনীতিক-ব্যবসায়ী-শ্রমিক নির্বিশেষে সকলকে উদ্বুদ্ধ করেন ৷

ইতিহাসের পাতায় যেই কজন রণাঙ্গনের যোদ্ধা হিসেবে প্রশংসিত হয়েছেন কমাণ্ড্যান্ট মানিক চৌধুরী অন্যতম ৷ তিনি দল-মতের উর্ধ্বে একজন প্রতিষ্ঠিত ব্যক্তিত্ব যাকে নিয়ে কোন বিতর্কের অবকাশ নেই ৷ হবিগঞ্জের তথা বৃহত্তর সিলেট অঞ্চলের মুক্তিযুদ্ধের ইতিহাস বললে অবিসংবাদিতভাবে মানিক চৌধুরীর নাম আসবে ৷ তাকে বাদ দিয়ে মুক্তিযুদ্ধের ইতিহাস পূর্ণতা পাবে না ৷

আমি অত্যন্ত ক্ষুব্ধ ও দুঃখিত হয়েছি যখন শায়েস্তাগঞ্জ থানা উদ্বোধনে বাংলাদেশ পুলিশ কর্তৃক আয়োজিত অনুষ্ঠানে সরকারের সম্মানিত স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী, বিমান প্রতিমন্ত্রীর উপস্থিতিতে একজন অভিজ্ঞ ও দায়িত্বশীল জাতীয় সংসদ সদস্য কর্তৃক ব্যক্তিগত কটাক্ষ করা ৷

এই বক্তব্যের সুনির্দিষ্ট লক্ষ্য ছিল যে মুক্তিযুদ্ধের গৌরবান্বিত ব্যক্তির মানহানি ঘটানো এবং মুক্তিযুদ্ধের গৌরবময় ইতিহাসকে প্রশ্নবিদ্ধ করা ৷ স্বাধীনতাপদকপ্রাপ্ত এই সর্বজনগ্রহণযোগ্য এবং সর্বব্যাপী জনপ্রিয় ব্যক্তির প্রতি অবিচার এবং অবিবেকোচিত মন্তব্য ৷

কোন ব্যক্তিকে সুবিধাবাদী বলার আগে তার আদ্যোপান্ত মূল্যায়ন করা উচিত ৷ জীবনের দীর্ঘকাল তিনি আওয়ামী লীগ করেছেন বলেই তিনি সর্বসময়ে সর্বমহলে আওয়ামী লীগের নেতা হিসাবে পরিচিত ছিলেন ৷ এটি অনেকেরই অজ্ঞাত নয় যে ১৯৭৫ সালের ক্ষমতার পটপরিবর্তনের প্রথম প্রহরে তিনি সামরিক নিগ্রহের শিকার হন, অস্ত্র মামলায় আসামী হন এবং দীর্ঘদিন করাবরণ করেন ৷

মুক্তির অব্যবহৃত পরিস্থিতিতে একটি গ্রাম্য দলাদলির কারণে হত্যাজনিত ঘটনায় সংশ্লিষ্ট হন৷ কথিত বিএনপিতে যোগদানের বিষয়টি অসার এবং এর কোন প্রামাণ্য দলিল বা সাক্ষ্য নেই ৷ কিন্তু তার বিরুদ্ধে একদল চক্রান্ত করে গুজব রটিয়ে আওয়ামী লীগ থেকে তাকে বিযোজিত করে ৷

তিনি সুবিধাবাদী হলে কোন সরকারের মন্ত্রী, এমপি হতেন বা শিল্প-বাণিজ্য করতেন ৷ শেষ জীবনে যে তিনি উপজেলা চেয়ারম্যান ছিলেন তা তার যোগ্যতা এবং জনপ্রিয়তার পরিমাপক ছিল ৷

কোন সুবিধাবাদের প্রশ্রয় ছিল দাবী করা ঠিক হবে না ৷ বরঞ্চ তার সার্বিক অর্জন এবং তৃণমূলে ব্যাপক গ্রহণযোগ্যতার তুলনায় এই সামান্য জনপ্রতিনিধিত্ব কিঞ্চিত এবং অতি স্বাভাবিক বলেই মনে হয় ৷

আমার ক্ষোভ ও দুঃখ আরো বেড়ে যায় যখন দেখি কোন মৃত ব্যক্তিকে এমন এক অগ্রহণযোগ্য অপবাদ দেয়া হচ্ছে যার জবাব দিতে তিনি অপারগ৷ আমরা যেনো কারো মান-ইজ্জ্বতের উপর হস্তক্ষেপ করার সংস্কৃতি থেকে বেরিয়ে আসি এই আহ্বান রাখবো ৷

আমি কমাণ্ড্যান্ট মানিক চৌধুরীর রাজনৈতিক সহযোদ্ধা বা অন্ধ দলীয় অনুসারী না হলেও তার মুক্তিযুদ্ধে কালজয়ী অবদানের জন্য এবং একজন মহৎপ্রাণ, সৎ, নিষ্ঠাবান, ত্যাগী ও বলিষ্ঠ রাজনৈতিক নেতা হিসাবে শর্তহীনভাবে শ্রদ্ধা করি, করবো ৷

আসুন আমরা দল-মত-নির্বিশেষে মুক্তিযুদ্ধের অন্যতম গৌরব এবং আমাদের অহংকার কমাণ্ড্যান্ট মানিক চৌধুরীর অবদান,ইতিহাস সমাজজীবনে সুপ্রতিষ্ঠিত করি এবং সকল দ্বন্দ্ব-সমালোচনার কন্টক থেকে তাকে মুক্ত করি ৷

ভবিষ্যতেও যেনো কোন অসঙ্গত দৃষ্টিভঙ্গীতে অসতর্কভাবে কোন ব্যক্তি বা গোষ্ঠী আমাদের মুক্তিযুদ্ধের গৌরব-গাঁথা ম্লান করে না দেন সেই ব্যাপারে একটি সুস্পষ্ট জনমত প্রতিষ্ঠা পাক এই আশাবাদ রাখছি ৷

Developed By The IT-Zone