ঢাকাTuesday , 5 May 2020
আজকের সর্বশেষ সবখবর

মুক্তিযুদ্ধ,সংবিধান,রাজনীতিতে যিনি সু-রঞ্জিত তিনিই সুরঞ্জিত

Link Copied!

মতামত।। ৫ মে বিশিষ্ট পার্লামেন্টিয়ান সুরঞ্জিত সেনগুপ্তের জন্মদিন। তাই জন্মদিনেকে শ্রদ্ধা রেখে এই লেখাটি লিখেছেন লন্ডন প্রবাসী রাজনীতিক ও সাংস্কৃতিককর্মী সুশান্ত দাস(প্রশান্ত)

ব্রিটিশ নাগরিকত্ব নিতে তার দেশের রাজনীতি, ইতিহাস,সংস্কৃতি ঐতিহ্য নিয়ে সন্নিবেষ্টিত লাইফ ইন দ্যা ইউকে পরীক্ষা পাস করতে হয়। পড়তে হয় কুটিনাটি। তেমনি এক কুটিনাটি খুঁজতে চোখে পড়ে এক ব্রিটিশ কবিকে। যিনি প্রথম ব্রিটিশ ব্যক্তি সাহিত্যে পুলিৎজার পুরস্কার সহ এখন পর্যন্ত সর্বকনিষ্ঠ লেখক হিসেবে,মাত্র ৪১ বছর বয়সে ১৯০৭ সালে সাহিত্যে নোবেল পান। যাকে শিশু সাহিত্যের অনন্য দিকপালও বলা যায়। তিনি হলেন রুডইয়ার্ড কিপলিং।

Suranjit Sengupta was being taken to safe zone after the attack on August 21, 2004. Photo- Roton Gomes.

অনেক সমালোচক তাকে উপনিবেশবাদী, উগ্র দেশপ্রেমিক, জাতিবিদ্বেষী, ডানপন্থী সাম্রাজ্যবাদী, যুদ্ধে প্ররোচক এবং নারীবিদ্বেষী বলে অভিহিত করেছেন। পরিষ্কার ভাবে বলতে গিয়ে তিনি তাঁর White man’s burden কবিতায় সাদা চামড়ার মানুষকে অনুন্নত জাতিকে উন্নত করার দায়িত্ব নিতে অনুরোধ করেন। অথচ রুড ইয়ার্ডের জন্ম ভারতের বোম্বে শহরে। যদিও তখন সমগ্র ভারতবর্ষ ব্রিটিশ উপনিবেশের অন্তর্ভুক্ত ছিলো। বিশ্বকবি রবি ঠাকুর উনার চেয়ে ৪ বছর কয়েক মাস আগে জন্ম নিলেও উনি নোবেল পেয়েছেন ৬ বৎসর আগে।

একজন কবি,ঔপন্যাসিক,নাট্যকার,প্রাবন্ধিক,দর্শন, সঙ্গীতজ্ঞ,চিত্রশিল্পী ও গল্পকার হিসেবে সর্বদিকে বাংলা ও বাঙ্গালীকে বিশ্ব পরিমন্ডলে সমাদৃত করলেও অন্যজন শুধু ইংরেজি সাহিত্য রচনা করে থেমে থাকেন-নি বরং ইংরেজিতে লিখেছেন বিশ্বসাহিত্য। রুড ইয়ার্ড কিপলিং কলমের নিখুঁত লেখনীতে তাঁর শৈলপিক সাহিত্যে শাসক সমাজকে তুলে ধরলেও কবিগুরু তুলে ধরেছেন তাঁর মা ও মাটির শোষিত শ্রেণীজনের কথা। যাক এতোবড় বিজ্ঞ গুরুপন্ডিত জনদের কথা আমার মতো সাধারনের বিশ্লেষন খুব দুরহ ব্যাপার। তবে আমার প্রশ্ন এখানেও নয় আমার প্রশ্ন হচ্ছে লাইফ ইন দ্যা ইউকে পড়তে তৎকালীন রবীন্দ্র নাথ ঠাকুরের সময়ে ব্রিটিশ কবি ভারতে জন্ম, আবার ১৯০৭ সালে নোবেল বিজয়ী দেখতেই মাথায় শু শু করে প্রশ্ন জাগতে থাকে। অত:পর জানা। আজকে বাংলাদেশ হলেও ভারতবর্ষে আমার জন্ম হয়ে,জানতে পারলাম ব্রিটিশ কবির দেশে এসে। কথায় আছে-না ‘ইতিহাস কথা বলে’ কিংবা ইতিহাসই কালের স্বাক্ষী। আরা যারা ঐতিহাসিক তাদের নাম ইতিহাসের কোন না কোন পাতায় যুগের পর যুগ না হলেও কোন না কোন কালে বেরিয়ে আসবেই। এখন সেটা পজেটিভ হউক আর নেগেটিভ হউক। তেমনি বাংলার এক ঐতিহাসিক নাম ১৯৭১ সালে জন্ম নেয়া বাংলাদেশের ইতিহাস,জন্মযুদ্ধ থেকে সংবিধান সমৃদ্ধ ব্যক্তি হাওর বর পুত্র সুরঞ্জিত সেনগুপ্ত। গত ১লা জানুয়ারি(২০২০) ব্রিটেনের ব্রাডফোর্ড সিটিতে এক চা-চক্রে সাংস্কৃতিক কর্মী ওমর বৈদ্যের বদান্যতায় স্বচোখে দেখা স্মৃতিচারন করেন ব্রিটিশ এমবিই খেতাব প্রাপ্ত তৎকালীন ছাত্র ইউনিয়কর্মী জনাব শওকত আহমদ।

তিনি বলেন- তখন আমি ফৌজদারহাট ক্যাডেট কলেজে অধ্যয়নরত। একটি নাটকও করেছিলাম খুব সম্ভবতো ১৯৭৩ সাল। প্রধান অতিথি ছিলেন কে এম ওবায়দুর রহমান তিনি ডাক ও তার বার্তা বিভাগের প্রতি মন্ত্রী ছিলেন। খুশি হয়ে আমাদের ১৫০০ টাকা উপহার দিয়ে যান। পড়াশুনায় ভালো,প্রগতিশীল ছাত্ররাজনীতি ও সাংস্কৃতিক কর্মকান্ডে সম্পৃক্তার জন্য সম্পর্ক হয়ে উঠে মধুর, সমাজ সম্পৃক্ততায় বেড়ে যায় আমার স্পৃহা। ১৯৭০ সালের নির্বাচনের জাতীয় এবং প্রাদেশিক পরিষদের নির্বাচিত ৪৬৯-এর (জাতীয় পরিষদে ১৬৯ জন আর প্রদেশিক পরিষদে ৩০০ জন) মধ্যে ৪০৩ জন সদস্য নিয়ে গণপরিষদ গঠিত হয়। ৪০৩ জনের মধ্যে ৪০০ জন সদস্য ছিল আওয়ামী লীগের আর ১জন ছিল ন্যাপের আর ২ জন ছিল নির্দলীয়। এই গণপরিষদের প্রথম অধিবেশন বসে ১০ এপ্রিল ১৯৭২ সালে। ১১ এপ্রিল গণপরিষদের প্রথম অধিবেশনের দ্বিতীয় দিনে ৩৪ সদস্য বিশিষ্ট “খসড়া সংবিধান-প্রণয়ন কমিটি” গঠিত হয়। আর এদের মধ্যে একজন ছিলেন আমাদের সেনদাদা প্রাদেশিক পরিষদ সিলেট-২ এর প্রতিনিধি।

প্রতিদিনের ন্যায় দেখতাম সেন দাদা সংবিধান প্রনয়নে নাখাল পাড়ায় প্রাদেশিক পরিষদ ভবনে (বর্তমান প্রধানমন্ত্রীর কার্যালয়) একেবারে সাধারন মানুষের মতো পান চিবিয়ে চিবিয়ে আসতেন। আমাদের সাথে হেসে হেসে আঞ্চলিকতাপূর্ন কথাও বলতেন। স্মৃতিচারন করতে তিনি আরো বলেন আমার স্বচুক্ষে দেখা-সহ খুব কাছ থেকে সেনদা, সামাদ ভাই থেকে বৃহত্তর সিলেটের অনেক বড় বড় রাজনীতিকের সংস্পর্শ পেয়েছি কিন্তু সিলেটি ভাষায় বলতে গিয়ে সেনদাদার রাজনৈতিক পার্থক্যটা ঐ জায়গাতে পাই- “ রাজনীতিতে গাওয়ালী মার্কা মাথ ও উকিল মার্কা মাথ আছে,দাদা উকিল মার্কা মাথ মাথতেন”। তিনি রাজনীতিতে যেমন সু-রঞ্জিত ছিলেন ঠিক আচার ব্যবহার কথা বার্তায়ও প্রমান দেখাতে পারতেন তেমনি চাঁপাইনবাবগঞ্জে কৃষকসম্মেলনে রাজনৈতিক মনিষী কমরেড মনিসিংহের উপস্থিতিতে সেনদাদার সাথে ছিলাম আমি(১৯৭২)।

২০০৭/২০০৮ সালের কথা আমি তখন সাউথ ইস্ট ইউনিভার্সিটির এলএলবিতে অধ্যয়নরত। স্যারের নাম এই মুহুর্তে স্মরণ হচ্ছে না তবে এইটুকু মনে পড়ছে সাংবিধানি আইন পড়াতে টোটাল-ক্লাস পিরিয়ডের সময়টার দুই থেকে আড়াই মিনিট সয়ম ঐ মানুষটি সমন্ধে তাঁর সাংবিধানিক দক্ষতা,পরিকল্পনা সহ সমগ্র জাতি সত্তার উপড় তাঁর শ্রদ্ধা নিয়ে পূজার মন্ত্রের মতো তুলে ধরেছেন তিনি হচ্ছেন আমাদের হাওরপুত্র সেনগুপ্ত। এর প্রকৃষ্ট উদাহরন মিলে সুপ্রিম কোর্ট আইনজীবি ইমতিয়াজ মাহমুদের লেখায় “ বিশেষ করে সংবিধানের দ্বিতীয় ভাগ, যেখানে রাষ্ট্রের মৌলিক নীতিমালাগুলি লেখা আছে, সেখানে একটু ভাল করে দেখলেই আপনি বুঝতে পারবেন কোন কোন বিধানগুলি সুরঞ্জিত সেনগুপ্তের তৎপরতায় যেখানে অন্তর্ভুক্ত করা হয়েছে। না, তিনি একা সেগুলি করেননি। একটা সংগঠিত উদ্যোগের মুখপাত্র ছিলেন তিনি। কিন্তু তাঁর ব্যক্তিগত উদ্যোগ, উৎসাহ, দক্ষতা ও দৃঢ়তা না থাকলে সোশ্যালিস্ট ধরনের সেইসব মৌলিক ধারনা আমাদের সংবিধানে কি থাকতো? সম্ভবত থাকতো না “। প্রকৃতপক্ষে সুরঞ্জিত সেনগুপ্ত হচ্ছেন হাতে গোনা সেইসব কয়েকজন ব্যক্তির একজন যারা বাংলাদেশ নামক দেশটি গঠনের জন্যে মৌলিক অবদান রেখেছেন।

মুখে ভাষা ফুটে উঠার সময়কাল থেকে তাঁর নামটি শ্রবনীয় হলেও পরিচিত হয়ে উঠি নির্বাচনী প্রতীক কুঁড়েঘর প্রতীকে। ঐ চিহ্নটি আমাদের গলি ঘেষা ঘরের বেড়াতে আলকাতরার ন্যায় কালো রং দিয়ে ছাপ ছিলো। আরো দেখেছি শাল্লার মহাজন বাড়ি খ্যাত ভাটি অঞ্চলের শিক্ষার আলোক বর্তিকা গিরিধর হাই স্কুলের প্রতিষ্ঠাতা বাবু মহেন্দ্র মাস্টারের দোতলা বিল্ডিং-এ। আজকের ন্যায় তখন মুদ্রণ ছাপাখানার এতো ব্যাপ্তি ছিলনা বিধায় বাড়ি ঘর দেখে দেখে ঘরের বেড়াতে(দেয়াল/ওয়াল) আলকাতরার ন্যায় কালো রং দিয়ে হয়তো ছাপা হতো।

ঐতিহাসিক ভাবে তাঁকে যে যেভাবেই পরিচিত করিয়ে তুলক-না কেন দিরাই-শাল্লার কাছে তিনি অতি আপন ও পারিবারিক। তিনি দিরাই-শাল্লার সাধারন মানুষের মনের কুঠিরে স্থান করতে পেরেছিলেন। সাধারন মানুষে এতো সাংবিধানিক,বিজ্ঞ বা বিশিষ্ট পার্লামেন্টিয়ান কিছু বুঝেনা,তাঁরা বুঝে বাবু আসছে আমাদের কথা শুনবে আমরাও উনার কথা শুনবো। সত্যিই তিনি শুনতেন ও শুনাতেন। কৈশোরে স্কুলে যেতে দেখেছি উনার লোকাল বাজারে আসা মানে মানুষ দল বেঁধে বাজারে যাওয়া, স্কুল কলেজ আগটানে বন্ধ দেওয়া। এমনও দেখেছি ক্ষেতে হালের বলদ না ছেড়েই সব কিছু ফেলে তাঁর মিটিং-এ উপস্থিত হওয়া। শুধু তাই নয় জামাই আসছে শ্বশুর বাড়িতে বা বৌ আনতে যাবে শ্বশুর বাড়িতে যদি শুনে সেনবাবু আসছেন তাহলে তা আনার তারিখও পরিবর্তন করা এসব শুধু রাজনৈতিক কারনে নয় মানুষের প্রতি অঘাত ভালবাসাই সম্ভব। ২০০১/২০০২ দিকে সিলেটের তালতলা গুলশান হোটেলে দিরাই-শাল্লার উন্নয়ন মূলক কোন এক অনুষ্ঠানে শাল্লার কোন এক বক্তা (নাম মনে নেই) এমনভাবেই বক্তব্য উপস্থাপন করেছিলেন যেন উন্নয়নের পাশাপাশি দিরাই-শাল্লার মানুষকে চাকুরি দেওয়াটাও উনার উপর বর্তায়। এখন আমাদের যোগ্যতা থাকুক আর না থাকুক। ঐ যে পূর্বে উল্লেখ করলাম,ঐতিহাসিক ভাবে তাঁকে যে যেভাবেই পরিচিত করিয়ে তুলক-না কেন দিরাই-শাল্লার কাছে তিনি অতি আপন ও পারিবারিক তাই সেটা প্রাসঙ্গিক বা অপ্রাসঙ্গিক হউক তাঁর কাছে বলতেই হবে। উনার সাথে জীবনে অসংখ্যবার দেখা হলেও কিছু দেখা স্মরনীয়।

ষষ্ঠ/সপ্তম শ্রেনীতে পড়তে সময় ঘুঙ্গিয়ারগাও(শাল্লা উপজেলা) বাজার থেকে ফেরার পথে হঠাৎ এমন ঝড়-বৃষ্টি এলো আমি দৌড়ে কলেজ রোড়ের এক ঘরে ঢুকি(সঠিক মনে নেই, খুব সম্ভবতো মেশিনারি জিনিসের দোকান বা ওয়ার্কশপ)। দেখি উনি সহ নরেশ চেয়াম্যান,মুহিম বাবু,কবীন্দ্র বাবু,অধীর বাবু(ডুমরা) অনেক স্থানীয় মুরব্বীগন। সেদিনের নরেশ চেয়াম্যানের সাথে উনার স্থানীয় রাজনৈতিক কথোপকথন এখনও কানে ভাসছে। থাক সেই কথা কোন এক সময় নরেশবাবুর স্মৃতিচারনে না হয় বলা যাবে। তখন সময়টা ছিলো বর্ষাকাল। হাতে বাউয়া নৌকা ছাড়া যাতায়াত করা যেতো না। আমি আধঘন্টা-চল্লিশ মিনিট থাকার পর বৃষ্টি থামায় হঠাৎ করে চলেও আসি তবে তখন কেউ কেউ বাবার নামও জিজ্ঞেস করছে আবার আদর করে বসাইছেও।

২০০৭/২০০৮ এর দিকে আমি থাকতাম সংসদ ভবনের ২নং গেইটের ঠিক উল্ঠো দিকে ফার্মগেইটের মনিপুরী পাড়ায় কৃষি ভবনের পেছনে। সংসদ ভবন ওয়াকিং ডিসটেন্স থাকায় দরকারে বেদরকারে সংসদে যাওয়া হতো। একদিন গিয়ে দেখি যারা উনার চুলকীগায় তাঁরাই উনার পাশে দাঁড়িয়ে ভিড় জমানো। নাম উল্লেখ করলাম না আমারই এক বন্ধুবর,তারা কন্ট্রাকটারী কোন কাজের জন্য গিয়েছে।যাক সেসব কথা। যখন আওয়ামীলীগের মন্ত্রীত্ব বন্টন শেষ এমনকি উনার প্রেসিডিয়াম সদস্য পদও হারানোর পথে তখন ঘুরতে ঘুরতে অনুজ রঞ্জিত দাস সহ কোন এক দুপুরে ঝিগাতলার বাসাতে যাই। গায়ে সাদা বেনিয়ম গেঞ্জি ও লুঙ্গি পড়াছিলো । অনেক প্রসঙ্গ বলতে গিয়ে বলছিলেন বিজ্ঞানী নিউটনের ৩য় সূত্রটি আরো বলছিলেন “আমি জনগনের নেতা, আমি জনগনের বন্ধু, জনগন আমার বন্ধু এখন কেউ কিছু দেওক আর না-দেওক তা দিয়েতো জনসম্পৃক্ততার সম্পর্ক ছিন্ন করতে পারবেনা”। আমি এখন লিখবো ; জানি না উনি কোন ডায়রী লিখেছেন কি-না। আর যদি লিখে থাকেনও তবে ডায়রী পাই আর না-পাই; পাওয়া যাচ্ছে বাংলার ইতিহাসে সংরক্ষিত অনেক ভাষন।

তেমনই এক ভাষন বা বক্তব্য চূড়ান্তরূপে সংবিধান গৃহীত হওয়ার পূর্বে সংবিধান-বিলের উপর বক্তব্য প্রদান করার অনুমতি নিয়ে সেদিন ন্যাপ দলীয় এই গণপরিষদ সদস্য যে বক্তব্য দিয়েছিলেন তা হলো –

…” এই সংবিধানে বাঙালী জাতীয়তাবাদ- ধর্মীয় জাতীয়তাবাদের বেড়াজাল ভেঙ্গে যে নূতন ধর্মনিরপেক্ষ, বাংলা-ভাষাভিত্তিক জাতীয়তাবাদ, পৃথিবীর সামনে স্থান পেয়েছে, তার মূলমন্ত্র যেটা, সেটা হলো, একটা জাতির অন্য দিকে উত্তরণ এবং সেই উত্তরণের যিনি কাণ্ডারী থাকেন, তাঁকে নেতা বলে গ্রহণ করা হয়। …আজকে এই সংবিধানের মাধ্যমে দেখা যাবে যে, কৃত্রিম রাষ্ট্র পাকিস্তানের যে ধর্মীয় গোঁড়ামি ছিল, সেই জাতীয়তাবাদের বেড়াজাল ভেঙ্গে আজ সত্যি ধর্ম-নিরপেক্ষতার আগড়ে ভাষাভিত্তিক জাতীয়তাবাদের জন্ম হয়েছে।”

আর এই সংবিধান মোট ২১টি অধিবেশনে ২০৮ দিনে প্রণয়ন করা হয়েছিলো।

২০০৯ সালের মাঝামাঝি পড়াশুনার জন্য বিদেশ আসা।একদিকে ল’পরীক্ষা অন্যদিকে হাতে ভিসা; ঘনিয়ে আসছিলো ফ্লাইট। আঞ্চলিক সংগঠন শাল্লা সমিতি ঢাকা’র অভিষেক। বাড়ি থেকে বিদায় নেওয়ার বেলায় বাপ-বেটার কথোপকথন। আমি জিজ্ঞাসা করলাম ঢাকায় বাবা’র কি কি কাজ? বাবা বললেন আমার যা শারিরীক অবস্থা তুমি চলে গেলে আবার কার সাথে যে ঢাকা যাবো তার কোন ঠিক ঠিক ঠিকানা নাই কাজেই যেহেতু ঢাকা তোমার ফ্লাইটে যাবই তাহলে পার্টি অফিসে যাবো মঞ্জু ভাই (সিপিবি সভাপতি মঞ্জুরুল আহসান খান), সালেহ ভাই (সাংবাদিক সালেহ চৌধুরী) সহ সুরঞ্জিতের সাথে দেখা করবো। এটাই বাবার জীবনের শেষ ঢাকা আসা। পরিস্কার মনেপড়ছে কোন একদুপুরের ঝিগাতলার সুরঞ্জিত সেনের বাসায় এবং আরেক দুপুরের সালেহ কাকুর উত্তরায় বাসায় দুপুরের খাবার হয়েছিল। সালেহ কাকুর গোঁফ মুখে হা হা হাসি, বলছিলেন শ্রীকান্তদা আপনারতো দারুন স্মৃতি! ঘটনা তো আপনার সব মনে আছে । একটু দিন তারিখ ঠিক করলেই চলবে(মুক্তিযুদ্ধের দিনপঞ্জি ও নাটক মুক্তিযুদ্ধে প্রত্যন্ত অঞ্চল)।

আর সুরঞ্জিত কাকুর বাসায় লাঞ্চ সহ সময় আগেই নির্ধারণ ছিলো বিধায় রুমে ঢুকতেই উনি উনার চেয়ার থেকে উঠে দুহাতে কড়োজোড়ে প্রনাম জানিয়ে উনার এটেন্ডেন্স ডেকে চেয়ার আনিয়ে ঠিক উনার পাশে বাবাকে বসিয়েছিলেন। এ যেন অবিশ্বাস্য সিনেমার মতো এখনও লাগছে।

তখন হাউজ ভর্তি মানুষ।সবাই টগবগ করছেন; যে ব্যক্তি ঘার নামিয়ে কথা বলেন না সেই ব্যক্তি চেয়ার থেকে উঠে নমস্য করছে। কি শ্রদ্ধা ! আমি অবশ্য সবাইকে চিনি না, দু-একজন পরিচয়ও দিয়েছেন। এর মাঝে একজন ছিলেন দিরাই রফিনগর ইউনিয়ন চেয়াম্যান আরেকজন ভদ্রলোক মতিন ভাই নামে বানিয়াচুং-এর। বাবাকে মামা বলে সম্বোধন করছিলেন। এই পরিবেশে আমি চুপ করে কয়েক ধাপে সাজানো চেয়ারের ঠিক পেছনের চেয়ারে বসেছিলাম। বাবার সাথে কথা বলার মাঝেই সেনকাকু আমাকে বললেন আমি কি করি ? কোথায় থাকি অবশ্য বলেননি, কারন উনি জানতেন আমি ঢাকাতেই থাকি। তখন দু-একজন আমাকে ফিস ফিস করে শিখিয়ে দিচ্ছিলেন আমি যেন কোন চাকুরী-টাকুরীর কথা বলি। কিন্তু যারা শিখিয়ে দিয়েছিলেন তাঁদেরকে পাস কাটিয়ে বলছিলাম আমি ল’তে পড়াশুনা করছি আশীর্বাদ করবেন যাতে ভালো ল’য়ার হতে পারি। তখন বাবা ও সেনকাকু দুজনেই মুশকি মুশকি হাসছিলেন। ২০০৯ সালে বিলেতে আসার পর মন্ত্রী হওয়ার আগে ও পরে আরো কয়েকবার দেখা হয়েছে। দেখা হয়েছে প্রয়াত সাংবাদিক বেলাল সাহেবের বাসাতে। কথা প্রসঙ্গ উঠতেগিয়ে দেখি,বেলাল আংকেল বলে উঠলেন তুমি শ্রীকান্তদার ছেলে আগে পরিচয় দেওনি কেন? কানাডা থেকে ফেরত পথে টেমসের তীরে লন্ডনের সিটি অব হার্ট ক্যানারী ওয়ার্ফে “মেম সাহেব” রেস্টুরেন্টে এক নাগরিক সভার আরেক দৃশ্য চোখে ভাসছে। তখন বঙ্গবন্ধুর প্রেস সচিব বাদশা ভাই জীবিত। উনি ইউকের এটিএন বাংলার ক্যামেরামেন নিয়ে ইন্টারভিউ করতে চাইছিলেন। তখন সুরঞ্জিত সেনগুপ্ত মশকরা করে বাদশা ভাইকে বলছিলেন আপনার ক্যামেরামেন ছেলেকে বলুন আগে আমার কথা শুনোক তারপর ওর ক্যামেরা ওপেন করে ইন্টারভিউ নিবোনে। আজ বাদশা ভাইও নাই,উনিও নাই,সব যেন স্মৃতি।

১৯৯৬ সালে জাতীয় নির্বাচনে দিরাই-শাল্লায় ৫০৪ ভোটে উনি ফেল করেন। আমাদের সেন্টারে সিপিবি প্রার্থী ২৪ ভোট পেয়ে দ্বিতীয় স্থান দখল করে। এই নির্বাচনী সময়ে ঘুঙ্গিয়ারগাও বাজারের ডাকবাংলার পাশে রতীশদার স্টলের পেছন থেকে আমরা মিছিল দিয়ে যাচ্ছি। আমি প্রভাংশু কাকু ও বাবার মাঝখানে। আমাদের অপরদিকে অনেক বড় নৌকার মিছিল আসছিলো সামনে ছিলেন সেনকাকু। এই মুখামুখি অবস্থায় নমস্কার জানিয়ে যখন সেনকাকু বললেন দাদা আশীর্বাদ করবেন তখন প্রভাশু কাকু মিছিলের সাথে আগালেও বাবা বলে উঠলেন – সবার সমানে ধমকের সুরে নমস্কার ! না ! তুমি বড় দলে গিয়েছো । মুজিবের সাথে রাজনীতি কইরা এখন তাঁর ফুরির(মেয়ে) সাথে রাজনীতি করবা! যাও মিয়া রাজনীতি করো গিয়া। অগ্নি কন্যা(মতিয়া চৌধুরী) হইছে পানি কন্যা আর তুমি সুরঞ্জিত হইবা দুখুমিয়া। আজ যতো সমস্থ চরিত্রের কথা স্মরন করলাম হাতেগুনা কয়েক জন ছাড়া সবাই তাঁর স্থায়ী নিবাসে পাড়ি জমাচ্ছেন। ১৯৯৬ সালে নির্বাচনে পরাজয় করলেও রাজনীতিতে পরাজয় করেছেন মন্ত্রিত্ব পাওয়ার পরে(৯ এপ্রিল ২০১২)। তারপরও একজন মুক্তিযোদ্ধা হিসেবে, বাংলাদেশের সংবিধানের অন্যতম রচয়িতা হিসেবে এবং এদেশের সব জাতিসত্তার মানুষের সাংবিধানিক স্বীকৃতির একজন লড়াকু সৈনিক হিসেবে তাঁর প্রতি মানুষের অফুরান ভালবাসা থাকবেই। এই বাগ্মী নেতার জন্ম ১৯৪৫ সালের ৫মে।

তিনি দিরাই উপজেলার আনোয়ারপুর গ্রামের পিতা দেবেন্দ্র নাথ সেনগুপ্ত ও মাতা সুমতি বালা সেনগুপ্তের একমাত্র সন্তান। মৃত্যু বরন করেন ৫ই ফেব্রুয়ারী ২০১৭ ইংরেজী। এই মেধাবী মানুষটি দিরাই স্কুল,সিলেটের এমসি কলেজ,ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় ও সেন্ট্রাল ল’কলেজ থেকে পড়াশুনা করেছেন তাছাড়া দক্ষতা অর্জন করেছেন বাংলা, ইংরেজী,সংস্কৃত ও হিন্দি সহ বিভিন্ন ভাষায়।

প্রকৃতপক্ষে তিনি রাজনীতি,মুক্তিযুদ্ধ,সংবিধান তথা বাংলাদেশ নামক দেশ গঠনের জন্যে যে মৌলিক অবদান রেখেছেন নতুন প্রজন্ম পাবে ইতিহাসের পাতায়। আর বলবে-মুক্তিযুদ্ধ,সংবিধান,রাজনীতিতে যিনি সু-রঞ্জিত তিনিই সুরঞ্জিত ।

লেখক- সুশান্ত দাস(প্রশান্ত)
রাজনীতিক ও সাংস্কৃতিককর্মী
লন্ডন,যুক্তরাজ্য।
ইমেইল- sushantadas62@yahoo.co.uk