ঢাকাSunday , 9 April 2023
আজকের সর্বশেষ সবখবর

মাধবপুরে গ্লোরি এগ্রো প্রোডাক্টসের পরিবেশ দুষণ : নির্লিপ্ত পরিবেশ অধিদপ্তর

Link Copied!

মাধবপুর উপজেলার রতনপুর-ছাতিয়াইন সড়কের কাছে স্থাপিত গ্লোরি এগ্রো প্রোটাক্টস লিঃ নামের একটি কোম্পানি পরিবেশ অধিদপ্তরের নিয়ম অনুযায়ী ইটিপি(এফলুয়েন্ট ট্রিটমেন্ট প্লান্ট) ব্যবহার না করেই বছরের পর বছর উৎপাদন কার্যক্রম অব্যাহত রাখায় পরিবেশ ও জনস্বাস্থ্য চরম হুমকির মুখে পড়েছে।

কারখানা ব্যবস্থাপক দাবি করেছেন সর্বাধুনিক প্রযুক্তির উচ্চ ক্ষমতাসম্পন্ন ইটিপি ব্যবহার করা হচ্ছে গ্লোরি এগ্রোতে। কারখানা থেকে নিঃসরিত দূর্গন্ধে দম বন্ধ হওয়ার যোগাড় এই সড়কে চলাচলকারী লোকজনের।

২০১৬ সালে বহুল আলোচিত জনতা ব্যাংক ঋণ কেলেংকারীর ঘটনায় দীর্ঘদিন কারাগারে থাকা ক্রিসেন্ট গ্রুপের চেয়ারম্যান এম এ কাদের মাধবপুরের ছাতিয়াইন-রতনপুর সড়কের গোকুলপুর মৌজায় এ কোম্পানিটি প্রতিষ্ঠা করেন।

এম.এ. কাদের এ কোম্পানির চেয়ারম্যান হলেও আরো কয়েকজন অংশীদার রয়েছেন গ্লোরি এগ্রো প্রোডাক্টস লিমিটেডের।ফলে এটি ক্রিসেন্ট গ্রুপের অংগ প্রতিষ্টান নয় বলেও জানিয়েছেন কারখানা ব্যবস্থাপক জিয়াউদ্দিন ভুইয়া।

গ্লোরি এগ্রো প্রোডাক্টটস লিঃ মূলত ভুট্টা থেকে স্টার্চ উৎপাদন করে দেশের বিভিন্ন কাপড়, বিস্কুট ও বেকারি সামগ্রী,গাম ও কাগজ উৎপাদনকারী প্রতিষ্টানে এবং ওষুধ কোম্পানিতে সরবরাহ করে থাকে। কাপড় এবং বিস্কুট,গাম (আঁটা) ও কাগজ এবং ওষুধ উৎপাদনে কাঁচামাল হিসাবে এই স্টার্চ ব্যবহার করা হয়ে থাকে।

জানা যায় সেন্ট্রিফিউজ চালনি মেশিনের মাধ্যমে ভূট্টাকে পচিয়ে এখানে স্টার্চ আহরণের পর তা বিভিন্ন কোম্পানির চাহিদার ভিত্তিতে বিভিন্ন আকৃতির কনটেইনারে প্যাকেজিং করে সরবরাহ করে গ্লোরি।

এই প্রক্রিয়ার মাধ্যমে কারখানার বাইরে প্রচন্ড দূর্গন্ধ ছড়ায়। দূর্গন্ধে রতনপুর-ছাতিয়াইন সড়কে চলাচলকারী হাজার হাজার যাত্রীকে চরম দূর্ভোগ পোহাতে হচ্ছে প্রতিদিন। কারখানা থেকে নিঃসরিত দূর্গন্ধে ছাতিয়াইন,শিমুলঘর,সাকুচাইল,দাসপাড়া,গোপিনাথপুর,আলাকপুর, এক্তিয়ারপুর, শ্রীমতপুর ও মনিপুর গ্রামের বাতাস ভারি হয়ে উঠছে।

লোকজন ফুসফুসের প্রদাহ সহ শ্বাসকষ্ট জনিত নানা রোগে আক্রান্ত হচ্ছেন। দীর্ঘমেয়াদী প্রভাবে ফুসফুসের ক্যান্সার ও কিডনি বৈকল্যজনিত সমস্যায়ও পড়তে পারেন মানুষ এমন আশংকা প্রকাশ করেছেন স্বাস্থ্য বিশেষজ্ঞরা।

ইটিপি থাকলে এভাবে দম আটকানো দূর্গন্ধ ছড়াতো না বলে জানালে কারখানা ব্যবস্থাপক জিয়াউদ্দিন ভুইয়া দাবি করেন সর্বাধুনিক প্রযুক্তির ইটিপি তারা ব্যবহার করেন।

ইটিপি ব্যবহার করার কারনেই দূর্গন্ধ ছড়ায় দাবি করে তিনি বলেন পরিবেশ অধিদপ্তরের নিয়ম মেনেই তারা উৎপাদনে এসেছেন।

পাশাপাশি কোম্পানিটি তাদের যাবতীয় তরল বর্জ্য সড়কের পাশের খালে ছেড়ে দিচ্ছে।ফলে খালের পানি স্বাভাবিক রং হারিয়ে কুচকুচে কালো রং ধারণ করেছে। জিয়াউর রহমান বলেন , ‘খালে ছাড়া তার কোম্পানীর পানির রং কালো নয়। এ পানি মেরুন রঙের।ইটিপি ব্যবহার না করলে বর্জ্য আকারে নিস্কাশিত পানির রঙ সাদা হতো।’

ছাতিয়াইন ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান মিনহাজ উদ্দিন চৌধুরী বলেন, ‘আমরা এ আজাব থেকে মুক্তি চাই। এই রাস্তায় চলাচলের সময় আমাদের দম বন্ধ হয়ে আসে।’

পরিবেশ অধিদপ্তর হবিগঞ্জের উপ পরিচালক আক্তারুজ্জামান টুকুর সাথে যোগাযোগ করা হলে তিনি জানান এলাকাবাসীর কাছ থেকে অভিযোগ পেলে বিষয়টি দেখা হবে। নিজে থেকে খোঁজ নিয়েছেন কি না এমন প্রশ্নের জবাবে তিনি বলেন, ‘এটা আপনাকে বলবো কেন?’

হবিগঞ্জের সিভিল সার্জন মোঃ নুরুল হক জানান ‘দূর্গন্ধ ছড়ানোর মাধ্যমে পরিবেশ বিষাক্ত হওয়ায় মানবদেহে এর প্রভাব পড়বেই।’ সিভিল সার্জনের সাথে কথা বলার পরদিন (২২ মার্চ) তিনি জেলা স্যানিটারি ইন্সপেক্টর (ডিএসআই) ফরিদা ইয়াসমিনকে কারখানা পরিদর্শনে পাঠান।

পরিদর্শন শেষে ফরিদা ইয়াসমিন এ প্রতিনিধিকে বলেন, ‘কারখানা থেকে প্রচন্ড দূর্গন্ধ ছড়ানোর সত্যতা তিনি পেয়েছেন। তবে কারখানার লোকজন তাকে জানিয়েছেন এখানে ইটিপি ব্যবহার করা হয়।’

বাংলাদেশ পরিবেশ আন্দোলন(বাপা) হবিগঞ্জ জেলা শাখার সেক্রেটারী তোফাজ্জল সোহেল বলেন, ‘হবিগঞ্জে শিল্প দূষণ ভয়াবহ আকার ধারণ করেছে। এ ব্যাপারে সবাইকে যার যার অবস্থান থেকে আরো বেশী সোচ্চার হওয়া দরকার।’

মাধবপুর উপজেলা নির্বাহী অফিসার মনজুর আহ্সান জানান,গ্লোরি এগ্রো প্রোডাক্টসের ব্যাপারে তিনি শীঘ্রই খোঁজখবর নেবেন।