ঢাকাবৃহস্পতিবার , ১৩ জানুয়ারি ২০২২
আজকের সর্বশেষ সবখবর

মাধবপুরে গত ১১ মাসে ৩ লাখের ও বেশী মানুষ করোনার টিকা নিয়েছেন

জালাল উদ্দিন লস্কর
জানুয়ারি ১৩, ২০২২ ৬:০৬ অপরাহ্ণ
Link Copied!

মাধবপুর উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে প্রতিদিনই বাড়ছে করোনার টিকা নিতে আগ্রহী লোকজনের ভীড়। সাম্প্রতিক সময়ে মাথাচাড়া দিয়ে উঠা ওমিক্রন আতংকের কারনে টিকা গ্রহণে লোকজনের আগ্রহ বেড়েছে বহুগুণ। তাই এমন ভীড়-বলেছেন খোদ স্বাস্থ্যবিভাগের লোকজন। কিন্তু বরাদ্দের বাইরে যাওয়ার সুযোগ নেই বলেও জানিয়েছেন তারা।

২০২১ সালের ৭ ফেব্রুয়ারী থেকে করোনার টিকা দেওয়ার কার্যক্রম শুরু হওয়ার পর থেকে ১৩ জানুয়ারী(২০২২) পর্যন্ত ১ম ও ২য় ডোজ মিলিয়ে মোট ৩ লাখ ৭ হাজার ৫৫৮ জন টিকা নিয়েছেন।

১ম ডোজ পেয়েছেন ১ লাখ ৮৪ হাজার ৭৩০ জন এবং ২য় ডোজ পেয়েছেন ১ লাখ ২২ হাজার ৮২৮ জন। এর মধ্যে আছে ৩৭ টি শিক্ষা প্রতিষ্ঠানের ২০ হাজার শিক্ষার্থী যারা করোনার ১ম টিকার ডোজ পেয়েছে। তবে উপজেলার মোট টিকা গ্রহনে সক্ষম লোক সংখ্যা ও চাহিদার তুলনায় এ সংখ্যা অপ্রতুল।

উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সের সংস্লিষ্ট সূত্র আমার হবিগঞ্জকে এ তথ্য জানিয়ে বলেছে ‘বরাদ্দ অনুযায়ী আমরা সর্বোচ্চ আন্তরিকতার সাথে টিকা প্রদান কর্মসূচী চালিয়ে যাচ্ছি।’

সূত্রমতে, করোনা মহামারী প্রতিরোধে সরকারীভাবে সারাদেশে টিকা প্রদান কর্মসূচীর অংশ হিসাবে মাধবপুর উপজেলায় ২০২১ সালের ৭ ফেব্রুয়ারী মাধবপুর উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সেও সাধারণ জনগণের মাঝে টিকা দেওয়া শুরু হয়।

শুরুতে মানুষের মধ্যে তেমন আগ্রহ দেখা না গেলেও দিনেদিনে টিকা গ্রহনে আগ্রহীর সংখ্যা বেড়েছে এবং বর্তমানে এই সংখ্যা বহুলাংশে বৃদ্ধি পেয়েছে।

টিকা প্রাপ্তি নিশ্চিত করতে সুরক্ষা অ্যাপসের মাধ্যমে রেজিস্ট্রেশন করে ম্যাসেজ পাওয়ার জন্য অধীর আগ্রহে অপেক্ষাকারী বেড়েছে। এমনকি ম্যাসেজ ছাড়াই অনেকে টিকা নিতে স্বাস্থ্য কমপ্লেক্স এবং ইউনিয়ন পর্যায়ের টিকা কেন্দ্র সমুহেও ভীড় করেছেন অনেকে।

গত ২৬ জানুয়ারী থেকে ১২ থেকে ১৭ বছর বয়সী শিক্ষার্থীদের টিকাদানের আওতায় আনে সরকার। মাধবপুরেও শুরু হয় এ কার্যক্রম। উপজেলা মাধ্যমিক শিক্ষা অফিস থেকে প্রাপ্ত তথ্য অনুযায়ী সরকারী নির্দেশনা মেনে মাধবপুর উপজেলার ২৬ টি মাধ্যমিক বিদ্যালয়,১ টি জুনিয়র হাইস্কুল, ৭ টি মাদ্রাসা ও ৩টি কলেজের ২২ হাজার শিক্ষার্থীকে টিকা প্রদানের লক্ষ্যে স্বাস্থ্য বিভাগের সাথে সমন্বয় করে টিকা প্রদান কর্মসূচী নেওয়া হয়।

এ পর্যন্ত এসব শিক্ষা প্রতিষ্ঠানের ২০ হাজারেরও বেশী শিক্ষার্থী উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সের শীতাতপ নিয়ন্ত্রিত টিকাদান কক্ষ থেকে ফাইজারের করোনা টিকা গ্রহণ করেছে বলে মাধ্যমিক শিক্ষা অফিসের একটি সূত্র আমার হবিগঞ্জকে নিশ্চিত করেছেন।

উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সের পরিসংখ্যান বিভাগের একটি দায়িত্বশীল সূত্র জানিয়েছে,দেশে নতুন করে ওমিক্রন আতংক ছড়িয়ে পড়াতে লোকজন এখন আগের যে কোনো সময়ের তুলনায় টিকা নিতে বেশী মরিয়া হয়ে উঠেছে।

তবে সরকারী বরাদ্ধের বাইরে যাওয়ার কোনো সুযোগ নেই। উপজেলা স্বাস্থ্য ও পরিবার পরিকল্পনা কর্মকর্তা ডাঃ এএইচএম ইশতিয়াক মামুন জানান স্বাভাবিক নিয়মেই সুন্দরভাবে টিকা দান কার্যক্রম চলছে।

 

Developed By The IT-Zone