ঢাকাMonday , 27 November 2023

মাধবপুরে এক বছরেও নির্মাণ হয়নি কালভার্ট : দুর্ভোগে এলাকাবাসী

Link Copied!

হবিগঞ্জের মাধবপুর উপজেলার একটি কালভার্ট ভেঙ্গে পড়ায় দুর্ভোগ পোহাচ্ছেন চার গ্রামের মানুষ। দীর্ঘদিনেও তা নতুন করে নির্মাণ না করায় বন্ধ হয়ে গেছে যানবাহন চলাচল।

তাই বাধ্য হয়ে হেঁটে চলাচল করতে হচ্ছে পথচারী ও এলাকাবাসীকে। বেশি ভোগান্তি পোহাতে হচ্ছে পণ্যবাহী ছোট ছোট যানবাহনগুলোকে।

এলাকাবাসীর অভিযোগ, কালভার্ট নির্মাণের বিষয়ে স্থানীয় জনপ্রতিনিধিদের বার বার বলার পরেও কোনো কাজ হয়নি। ২০/২৫ বছর আগে কালভার্টটি নির্মাণ করা হয়েছিলো। এক বছর আগে মালামাল নিয়ে পার হতে গিয়ে কালভার্টটি ভেঙে যায়।

স্থানীয়রা জানায়, মাধবপুর উপজেলার ধর্মঘর ইউনিয়নের ধর্মঘর মধ্য বাজার হতে দক্ষিণ দিকে পুরাতন বিজিবি ক্যাম্প সংলগ্ন কাঁচা রাস্তায় কালভার্টটি নির্মাণ করা হয়েছিল। এটি দত্তপাড়া, মালঞ্চপুর, কালিকাপুর,ও দক্ষিণ ধর্মঘর এ চার গ্রামের মানুষের চলাচলের একমাত্র সহজ রাস্তা এটি।

কিন্তু এক বছরের বেশি সময় ধরে কালভার্টটি ভেঙ্গে পড়ে রয়েছে। ভারী যানবাহনের চাপে এক বছর আগে এটি ভেঙে যায়। এরপর সেটি আর নির্মাণ করা হয়নি।

এই রাস্তা দিয়ে স্কুল, কলেজ ও পথচারীরা চলাচল করলেও কালভার্টটি ভেঙে পড়ায় তাদের যাতায়াত করতে কষ্ট হচ্ছে। ঝুঁকি নিয়ে কাঠের সাঁকো দিয়ে রাস্তাটি দিয়ে কোনরকম পথচারীরা চলাচল করছেন।

দত্তপাড়া গ্রামের বাসিন্দা শিক্ষক মোশাররফ হোসেন জানান, এই কালভার্টটি দিয়ে এলাকার কয়েকটি গ্রামের মানুষ ও ছোট বড় যানবাহন চলাচল করত কিন্তু সেটি ভেঙে যাওয়ায় এই রাস্তা দিয়ে কোনো যানবাহন চলতে পারছে না। বেশি সমস্যায় পড়তে হচ্ছে ধান, চাল বা অন্য পণ্যবাহী পরিবহন পারাপারে।

দত্তপাড়া গ্রামের বাসিন্দা মো. ফজলু মিয়া মালঞ্চপুর গ্রামের বাসিন্দা সুমন ও কালিকাপুর গ্রামের বাসিন্দা কুদ্দুস মিয়া জানান, কালভার্টটি চার গ্রামের মানুষ সংযোগ স্থল। এ পথ দিয়ে এলাকাবাসী যাতায়াত করে। রিকশা, বাইসাইকেল, মোটরসাইকেল, অটোরিকশা ও ভ্যান চলাচল করতো।

তবে কালভার্টটি ভাঙা থাকায় তাদের অনেকটা পথ ঘুরে যেতে হয়। তখন মানুষের দুর্ভোগের সীমা থাকে না। এটি দ্রুত নির্মাণ করা প্রয়োজন।

ধর্মঘর ইউনিয়নের ৩ নম্বর ওয়ার্ডের ইউপি সদস্য মোঃ নাছির উদ্দিন খোকন জানান, কালভার্টটির কারণে বেশ কয়েকটি গ্রামের জনগণ অনেক ভোগান্তি পোহাচ্ছেন। আমি ভেঙ্গে পড়া কালভার্টির বিষয়ে গত ২/৩মাস আগে এলাকাবাসীর পক্ষে উপজেলা চেয়ারম্যানের বরাবর বরাদ্দ চেয়ে একটি দরখাস্ত করেছি তবে এখন পর্যন্ত কোনো ব্যবস্থা হয়নি।

এ ব্যাপারে মাধবপুর উপজেলা এলজিইডির প্রকৌশলীর সাথে বারবার যোগাযোগের চেষ্টা করলেও তার মোবাইল বন্ধ পাওয়া যায়।