ঢাকাSunday , 31 March 2024
আজকের সর্বশেষ সবখবর

মহাসড়কে ‘ম্যানেজ’ করে অবাধে চলছে ফিটনেসবিহীন গাড়ি

তারেক হাবিব
March 31, 2024 11:54 am
Link Copied!

শায়েস্তাগঞ্জের অলিপুর এলাকার মহাসড়কে অবাধে চলছে লক্করঝক্কর ফিটনেসবিহীন গাড়ি। ভোর সকাল থেকে মধ্যরাত পর্যন্ত অলিপুর এলাকার মহাসড়কে দাপিয়ে বেড়াচ্ছে ‘ত্রুটিপূর্ণ যানবাহন’। এতে করে লাফিয়ে বাড়ছে দুর্ঘটনা, দীর্ঘ হচ্ছে মৃত্যুর মিছিল। সংশ্লিষ্ট একাধিক সূত্র জানায়, গত দুবছরে শায়েস্তাগঞ্জ অলিপুরে সড়ক দুর্ঘটনা ঘটেছে শতাধিকেরও বেশী।

এ দূর্ঘটনাগুলোর অধিকাংশ লোকই মারা গেছেন ঘটনাস্থলে। যা পাশ্ববর্তী জেলার তুলনায় অনেক বেশি। দুর্ঘটনায় মানবসম্পদের যে ক্ষতি হয়েছে তা পূরণীয় বলে মনে করেছেন বিশ্লেষকরা। অলিপুরে রেল গেটের দুপাশের আধা কিলোমিটার রাস্তা যেন মৃত্যুকূপে পরিণত হয়েছে। প্রতিদিনই এখানে ঘটছে দুর্ঘটনা। নিহত হচ্ছে পথচারীসহ গাড়ির চালকরাও।

দূঘর্টনার তথ্য অনুসন্ধানে জানা যায়, গত ১৮ মার্চ অলিপুরের কাছে নাভানা (মাইক্রোবাস) ট্রাকের সংঘর্ষে ২ জন নিহত ও ৮জন আহত হয়। মেয়াদ উত্তীর্ণ ফিটনেসবিহিন গাড়িটি প্রাণ-আরএফএল কোম্পানীর শ্রমিক পরিবহন করছিলো বলে জানা গেছে।

গত ১৫ নভেম্বর বুধবার সকাল ১০টায় অলিপুর-সুরাবই নামক এলাকায় ট্রাকের ধাক্কায় সিএনজিচালিত অটোরিকসা চালক নিহত হন, ৭ জানুয়ারি ২০২৩ শনিবার রাত ২টায় অলিপুর এলাকায় মর্মান্তিক সড়ক দুর্ঘটনার শিকার হন মৌলভী বাজার কুলাউড়া এলাকার প্রবাসী পরিবার। এতে ঘটনাস্থলেই নিহত হন একই পরিবারের ৫সদস্য। ৮জানুয়ারী সকাল ৮টায় অলিপুরে যাত্রীবাহি ইমা গাড়ির সাথে অপর একটির গাড়ীর ধাক্কায় ঘটনাস্থলেই নিহত হন আলম মিয়া (১৮) নামে এক ব্যক্তি। নিহত আলম সুতাং এলাকার সুরাবই গ্রামের আতড় আলীর পুত্র। এভাবে তথ্য অনুসন্ধানে একেরপর এক বাড়তেই থাকে মৃত্যুর তথ্য।

নাম প্রকাশ্যে অনিচ্ছুক এক নাভানা (মাইক্রোবাস) চালক জানান, কতিপয় ব্যক্তিদের ম্যানেজ করেই ওই এলাকায় চলে শ্রমিক পরিবহনকারী নাভানা (মাইক্রোবাস)সহ মেয়াদ উত্তির্ণ ফিটনেসবিহীন গাড়িগুলো। এজন্য প্রতি গাড়ি হিসেবে মাসিক ৩’শ টাকা হারে চাঁদা দিতে হয় চালকদের। টাকা তুলেন স্থানীয় বাচ্চু নামে এক ব্যক্তি। এভাবে প্রাণ-আরএফএল হবিগঞ্জ ইন্ডাস্ট্রিয়াল পার্কের শ্রমিক পরিবহনের কাজে থাকা প্রায় ১০০টি গাড়ী থেকে মাসিক ৩০ হাজার তুলেন বাচ্চু।

মহাসড়কটি নির্মাণে সময় অলিপুর রেল লাইনের ওপর ওভারব্রিজ নির্মাণের পরিকল্পনা ছিল বলে একটি সূত্র জানায়। কিন্তু সড়কটি নির্মাণের সময় অজ্ঞাত কারণে ওভার ব্রিজটি বাদ দিয়ে পাহাড় কেটে সড়কটি নির্মাণ করা হয়। বর্তমানে অর্ধ কিলোমিটার সড়কটি যান চলাচলের জন্য খুবই ঝুঁকিপূর্ণ হয়ে পড়েছে। দেবে যাওয়া সড়কটি মেরামতের দায়িত্ব সংশিষ্ট কর্তৃপক্ষের থাকলেও তাদের খুব একটা মাথাব্যথা আছে বলে মনে হয় না। তবে রেল কর্তৃপক্ষের দায়িত্ব না থাকা সত্ত্বেও রেল লাইনের দুপাশের দেবে যাওয়া স্থানে রেলের লোকদের মাটি দিয়ে গর্ত ভরাট করতে দেখা গেছে।