ঢাকাসোমবার , ১৯ সেপ্টেম্বর ২০২২
আজকের সর্বশেষ সবখবর

ভূয়া এডমিট কার্ড বাণিজ্যের ঘটনায় অফিস সহকারী আশরাফ উদ্দিন বরখাস্ত

আতাউর রহমান ইমরান
সেপ্টেম্বর ১৯, ২০২২ ৮:৫৭ পূর্বাহ্ণ
Link Copied!

হবিগঞ্জ সদর উপজেলার নিজামপুর দাখিল মাদ্রাসার অফিস সহকারী/ নি¤œমান সহকারী কাম কম্পিউটার অপারেটর আশরাফ উদ্দিনের বিরুদ্ধে দাখিল পরীক্ষার্থীদেরকে ভুয়া রেজিস্ট্রেশন ও এডমিট কার্ড দিয়ে টাকা আদায় করার অভিযোগ ওঠার পর তাকে বরখাস্ত করার সিদ্ধান্ত নিয়েছে মাদ্রাসা পরিচালনা কমিটি।

এছাড়া পরীক্ষা দিতে না পারা ৪ শিক্ষার্থীর মধ্যে যাদের দাখিল পরীক্ষার এডমিট এবং রেজিষ্ট্রেশন কার্ডে ভুল ছিল তাদেরকে ২৫ হাজার টাকা করে ক্ষতিপূরণ প্রদান এবং ১ বছরের শিক্ষা জীবনের যাবতীয় খরচ বহন করার সিদ্ধান্ত নিয়েছে মাদ্রাসা পরিচালনা কমিটি। বিষয়টি নিশ্চিত করেন মাদ্রাসা পরিচালনা কমিটির সভাপতি কুতুবুদ্দিন ও সুপার মাওলানা ইজাজুল ইসলাম খান।

জানা যায়, ১৫ সেপ্টেম্বর হবিগঞ্জ দারুস সুন্নাহ কামিল মাদ্রাসা কেন্দ্রে দাখিল পরীক্ষা দিতে আসার পর নিজামপুর দাখিল মাদ্রাসার শিক্ষার্থী তাজুল ইসলামের পুত্র মোঃ সৌরভ মিয়া, সফর আলীর পুত্র শাহিন আলম, কাদির মিয়ার কন্যা শাকিলা আক্তার ও মোঃ মুতাসির মিয়া সহ ৪ শিক্ষার্থীর এডমিট ও রেজিস্ট্রেশন কার্ডে সঠিক তথ্য না থাকার বিষয়টি শনাক্ত করেন ওই কেন্দ্রের পরীক্ষকরা।

পরীক্ষা সংশ্লিষ্ট কাগজপত্র যাচাই করে দেখা যায় নিজামপুর দাখিল মাদ্রাসার পরীক্ষা না দেয়া অন্য ৪ শিক্ষার্থীর এডমিট ও রেজিস্ট্রেশন কার্ড দিয়ে পরীক্ষা দিতে এসেছিলেন ওই ৪ শিক্ষার্থী। কেন্দ্রের প্রধান দারুস সুন্নাহ কামিল মাদ্রাসার প্রিন্সিপাল ফারুক আহমেদ ওই শিক্ষার্থীদের সাথে নিয়ে আসা কাগজপত্র জব্দ করে তাদের পরীক্ষা বাতিল করেন।

পরীক্ষা বাতিল হওয়া শিক্ষার্থীদের সাথে কথা বলে জানা যায়, নিজামপুর দাখিল মাদ্রাসার কেরানি আশরাফ উদ্দিন তাদের প্রত্যেকের কাছ থেকে সময় মত ফরম ফিলাপ না হওয়ার অজুহাতে জনপ্রতি ৭ হাজার টাকা থেকে ১৩ হাজার টাকা পর্যন্ত আদায় করেন।

বিষয়টি আশরাফ উদ্দিনের চাচা মাদ্রাসার সুপার মাওলানা ইজাজুল হক কে জানালে তিনি ওই শিক্ষার্থীদের অভিভাবকদেরকে টাকা দিতে বলেন। আশরাফউদ্দিন টাকা পেলেও ২ শিক্ষার্থীর রেজিস্ট্রেশনই সম্পন্ন করেননি অন্য দুজনের রেজিস্ট্রেশন সম্পন্ন করলেও দাখিল পরীক্ষার ফরম ফিলাপ করেননি।

এ বছরের দাখিল পরীক্ষা শুরুর আগে এডমিট কার্ড হাতে না পেলে বিষয়টি শিক্ষার্থীরা আশরাফ উদ্দীনকে জানান। আশরাফউদ্দিন তাদের প্রত্যেককে নানাভাবে বুঝিয়ে পরীক্ষা কেন্দ্রে পাঠিয়ে জুনায়েদ নামে আরেক ছাত্রের মাধ্যমে এ বছর পরীক্ষা না দেয়া অন্য শিক্ষার্থীদের রেজিস্ট্রেশন ও এডমিট কার্ড সরবরাহ করে কেন্দ্রে থাকা শিক্ষার্থীদের নিকট পাঠান।

এ সময় তিনি তাদের জানান কয়েকটি পরীক্ষা দেয়ার পর পরীক্ষা চলাকালীন সময়েই তাদের সঠিক নামে এডমিট কার্ড ও রেজিস্ট্রেশন কার্ড হয়ে যাবে। নিজামপুর দাখিল মাদ্রাসার পরিচালনা কমিটির সভাপতি কুতুবউদ্দিন বিষয়টি স্বীকার করে জানান, রবিবার (১৮সেপ্টেম্বর) পরিচালনা কমিটির সভা করে এ ব্যাপারে সিদ্ধান্ত নেয়া হবে।

অভিযুক্ত আশরাফ উদ্দিনের সাথে যোগাযোগ করা হলে তিনি জানান, কম্পিউটারের ভুলে এরকম হয়েছে। তিনি কোন টাকাপয়সা নেন নি।

এ বিষয়ে জানতে হবিগঞ্জ জেলা শিক্ষা কর্মকর্তা মোহাম্মদ রুহুল্লার সাথে যোগাযোগ করা হলে তিনি জানান, এ ব্যাপারে তিনি এখনো অবগত নন। তবে এরকম হয়ে থাকলে অবশ্যই জড়িতদের বিরুদ্ধে আইনানুগ ব্যবস্থা নেয়া হবে।

Developed By The IT-Zone