ঢাকাSaturday , 13 January 2024
আজকের সর্বশেষ সবখবর

ভারপ্রাপ্ত প্রধান শিক্ষক দিয়েই চলছে জেলার ২৩১ স্কুল !

Link Copied!

হবিগঞ্জ জেলায় দীর্ঘদিন ধরে ভারপ্রাপ্ত প্রধান শিক্ষক দিয়েই চলছে ১০৫২টি সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়। এতে করে বিদ্যালয়গুলোর প্রাথমিক শিক্ষা কার্যক্রম বাধাগ্রস্ত হচ্ছে বলে মনে করছেন অভিভাবকরা। জেলায় সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ের সংখ্যা ১০৫২টি। এই ১০৫২টি স্কুলের প্রধান শিক্ষক থাকার কথা ১০৫২ জন। কিন্তু এর মধ্যে দীর্ঘদিন ধরে ২৩১টি বিদ্যালয়ে নেই প্রধান শিক্ষক।

অপরদিকে জেলায় বেসরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ের সংখ্যা ২৯টি। এরমধ্যে প্রধান শিক্ষক নেই ১১টি প্রতিষ্ঠানের। আর প্রধান শিক্ষক নিয়োগে মামলা সংক্রান্ত জটিলতা রয়েছে ১২টি প্রতিষ্ঠানে। এসব বিদ্যালয়ে ভারপ্রাপ্ত প্রধান শিক্ষক দিয়েই চালানো হচ্ছে বিদ্যালয়ের পাঠদান কার্যক্রম। তবে বিদ্যালয়গুলোতে প্রধান শিক্ষক না থাকায় পাঠদানে কোনো সমস্যা হচ্ছে না বলে দাবি সংশ্লিষ্ট কর্তৃপক্ষের।

প্রাথমিক শিক্ষা অফিস সুত্রে জানা যায়, হবিগঞ্জ সদরে সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ের সংখ্যা ১১৫টি, বেসরকারি ৩টি। প্রধান শিক্ষক নেই ৩২টির আর বেসরকারি ৩টির। শায়েস্তাগঞ্জ উপজেলায় সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ের সংখ্যা ২৯টি। প্রধান শিক্ষক নেই ৯টিতে।

লাখাই উপজেলায় সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ের সংখ্যা ৭২টি। প্রধান শিক্ষক নেই ১৪টিতে। আজমিরীগঞ্জ উপজেলায় সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ের সংখ্যা ৬৫টি। প্রধান শিক্ষক নেই ১৯টিতে। বানিয়াচং উপজেলায় সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ের সংখ্যা ১৬৭টি, বেসরকারি ৯টি। প্রধান শিক্ষক নেই ৩০টিতে। নবীগঞ্জ উপজেলায় সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ের সংখ্যা ১৮২টি, বেসরকারি ৪টি। প্রধান শিক্ষক নেই ৩৭টিতে এবং বেসরকারি ৪টিতে।

বাহুবল উপজেলায় সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ের সংখ্যা ১০৩টি। প্রধান শিক্ষক নেই ২৭টিতে। চুনারুঘাট উপজেলায় সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ের সংখ্যা ১৭০টি, কেসরকারি ১৩টি। প্রধান শিক্ষক নেই ৩৪টিতে। মাধবপুর উপজেলায় সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ের সংখ্যা ১৪৯টি। প্রধান শিক্ষক নেই ২৯টিতে। এ উপজেলায় প্রধান শিক্ষকের মামলা সংক্রান্ত জটিলতা রয়েছে ১২টি।

অভিভাবকরা বলেন, শিশুদের লেখাপড়া শেখার জন্য প্রথম ধাপ প্রাথমিক বিদ্যালয়। কিন্তু উপজেলার বেশ কিছু বিদ্যালয়ে দীর্ঘদিন ধরে প্রধান শিক্ষক না থাকায় কিছু শিক্ষকের স্বেচ্ছাচারিতায় অনেক বিদ্যলায় পাঠদানের সুনাম হারাতে বসেছে। যার কারণে অনেক অভিভাবক তাদের সন্তানদের প্রাইভেট স্কুলগুলোতে ভর্তি করে দেয়। এমনকি প্রধান শিক্ষক না থাকায় ওই সব স্কুলগুলোর প্রশাসনিক কার্যক্রম ভেঙে পড়ছে।

অন্যদিকে সুষ্ঠু পরিবেশ ভেঙে পড়ে চরমভাবে ব্যাহত হচ্ছে পাঠদান কর্মক্রম। শিক্ষার্থী ভর্তি হলেও প্রয়োজনীয় দিকনির্দেশনা ও তত্ত্বাবধান থেকে বঞ্চিত হচ্ছে, এমন অবস্থায় দ্রুত শূন্য পদে প্রধান ও সহকারী শিক্ষক নিয়োগ, অবকাঠামোগত উন্নয়ন ও শিক্ষার্থীদের প্রতি নিবিড় তত্ত্বাবধান বাড়াতে না পারলে বিদ্যালয়গুলোতে শিক্ষার্থীর সংকট চরম আকার ধারণ করতে পারে বলে মন্তব্য তাদের।

নাম প্রকাশে অনিচ্ছুক উপজেলার প্রাথমিক বিদ্যালয়ের কয়েকজন ভারপ্রাপ্ত প্রধান শিক্ষক বলেন, যখন শিক্ষক নিয়োগ দেওয়া হয়, তখন শিক্ষক সংকট রেখেই কর্তৃপক্ষ নিয়োগ প্রদান করেন। আবার দীর্ঘদিন ধরে প্রধান শিক্ষক নিয়োগ ও পদোন্নতি বন্ধ থাকায় সিনিয়র সহকারী শিক্ষকদের কাঁধেই ভারপ্রাপ্তের ভার পড়ছে।

কিন্তু দায়িত্ব পালনকালে ভারপ্রাপ্ত প্রধান শিক্ষকরা সরকারি তেমন কোনো সুযোগ-সুবিধা পান না। অন্যদিকে অফিসের বিভিন্ন নিদের্শনা অনুযায়ী ভারপ্রাপ্তদের অতিরিক্ত সময় ব্যয় করতে হয়। এতে বিদ্যালয়ে পাঠদানের ব্যাপক ক্ষতি হয়। এসব সমস্যা সমাধানের জন্য দ্রুত জ্যেষ্ঠতার ভিত্তিতে সহকারী শিক্ষকদের প্রধান শিক্ষক পদে পদোন্নতি দেওয়া প্রয়োজন বলে মনে করছেন তারা।

হবিগঞ্জ জেলা প্রাথমিক শিক্ষা কর্মকর্তা গোলাম মাওলা বলেন, সরকারিভাবে প্রধান শিক্ষক নিয়োগ ও পদোন্নতি বন্ধ থাকায় বাধ্য হয়ে ভারপ্রাপ্ত প্রধান শিক্ষক দিয়েই চালানো হচ্ছে বিদ্যালয়গুলো। কিছু দিনের মধ্যে সমাধান হবে। তবে তিনি দাবি করেন, জেলা উপজেলা শিক্ষা অফিসের নজরদারি থাকায় প্রধান শিক্ষকবিহীন ওইসব বিদ্যালয়ে পাঠদানের কোনো সমস্যা হচ্ছে না।

জেলায় প্রাথমিক পর্যায়ে মানসম্মত শিক্ষাদান ও সুষ্ঠু পাঠদানের পরিবেশ ফিবিয়ে আনতে হলে প্রধান শিক্ষকবিহীন এসব বিদ্যালয়ে দ্রুত প্রধান শিক্ষক নিয়োগ দেওয়া প্রয়োজন। আর তা না হলে দিন দিন প্রাথমিক পর্যায়ের পাঠদান চরমভাবে ব্যাহত হবে।