ঢাকাবৃহস্পতিবার , ১৩ জানুয়ারি ২০২২
আজকের সর্বশেষ সবখবর

ভাঙ্গারি শিল্প ও পরিবেশ

আতাউর রহমান ইমরান
জানুয়ারি ১৩, ২০২২ ৫:৪৫ অপরাহ্ণ
Link Copied!

এই কাগজ…কাগজ…আছে নি ভাঙ্গা লোহা লক্কর বোতল প্লাস্টিক এই রকম হাক-ডাক শহরের অলিতে-গলিতে প্রায়ই শোনা যায়। এই ডাক যাদের কণ্ঠে থাকে তাদেরকে আমরা কেউ বলি, ভাঙ্গারি ফেরিওয়ালা কেউ বা কাগজের ফেরিওয়ালা। তবে এরা ভাঙ্গারি ফেরিওয়ালা নামেই বেশি পরিচিত।

সারা দেশের বিভিন্ন অঞ্চলের মানুষেরাই এ কাজটি করে থাকেন। যে নামেই এদেরকে ডাকা হোক না কেন, জীবন-জীবিকার সংগ্রামে এসব ক্ষুদ্র ব্যবসায়ী মানুষেরা কিন্তু পিছিয়ে নেই এতটুকু।

বাংলাদেশের নানা অঞ্চলের অনেক প্রতিষ্ঠিত পরিবার অথবা ব্যক্তির সাফল্যেও পেছনে কিন্থু এই ভাঙ্গারি শিল্প জড়িত। এই ধরুন না ঝকঝকে অফিসের চকচকে ম্যানেজার রবিন সাহেবের কথা কিংবা ঝানু আইনজীবী সানি সাহেবের কথা অথবা ইউপি চেয়ারম্যান মতিন সাহেবের কথা।

এদের প্রত্যেকের সফলতার পেছনে রয়েছে ভাঙ্গারি ব্যবসায়ের গল্প। এদরে প্রত্যেকেই উঠে এসেছেন বাংলাদেশের প্রত্যন্ত অঞ্চলের এমন সব দরিদ্র পরিবার থেকে। যাদের কাছে একসময় এরকম সাফল্য অর্জন কেবল মাত্র বাংলা চলচ্চিত্রের কাহিনীতেই সম্ভব বলে মনে হতো।

এসব প্রান্তিক মানুষেরা জানতেন না, আধুনিক জীবন-যাপন কাকে বলে। জানতেন না কীভাবে সন্তানকে সুশিক্ষিত করতে হয়। এক সময় জীবীকার প্রয়োজনে ঢাকাসহ দেশের জেলা শহরে এসে যখন এরা এ শিল্পে জড়িত হন, তখন ধীরে ধীরে এদের পরিবারেও আর্থিক সচ্ছলতা আসে, আর তাদের অনেকেই এসব শহরে স্থায়ীভাবে বসবাস শুরু করেন।

আধুনিক সমাজের অনুসঙ্গ হিসেবেই এদেও সন্তানেরা শিক্ষিত হতে শুরু করে। একসময় এরা ব্যাক্তি জীবনে সফলতার স্বাক্ষর রাখেন। ভাঙ্গারি শিল্পের গুরুত্তপূর্ণ দিক হল পরিবেশকে দূষণমুক্ত রাখতে এর ভূমিকা। ভাঙ্গারি শিল্পে জড়িতরা সচেতন হোক ভাবেই আর অসচেতন ভাবেই হোক পরিবেশ রক্ষায় তারা নিরবে কার্যকর ভুমিকা রেখে চলেছেন যা এ পেশাকে আলাদা গুরুত্ব এনে দিতে পারে।

ফেরিওয়ালারা সাধারণত পুরানো লোহা-লক্ষর, তামা, পিতল, সিসা, প্লাষ্টিক রাবার, পলিথিন বোতল কাচ ইত্যাদি বিভিন্ন জায়গা থেকে সংগ্রহ করেন। সেগুলোকে পরে ফ্যাক্টরীতে রিসাইকেল করা হয়।

এতে একদিকে যেমন এসব পুরোনো জিনিসকে কাজে লাগিয়ে বৈদেশিক মুদ্রা সাশ্রয় হচ্ছে অন্যদিকে পরিবেশ ও রক্ষা পাচ্ছে দূষণের হাত থেকে। সরকারের উচিত এ বিষয়টিতে গুরুত্ব দেয়া।

কোপেনহেগেনে ২০০৯ সালে হয়ে যাওয়া বিশ্ব জলবায়ু সম্মেলন ছিল একটি আলোচিত বিষয়। সম্মেলনে অন্য অনেক কিছুর সাথে কার্বন ক্রেডিটের বিষয়টিও উঠে এসেছিল। পৃথিবীর সব দেশই কম বেশি কার্বন নিঃসরণ কওে থাকে।

এই সম্মেলনের মাধ্যমে দেশগুলোকে কার্বণ নিঃসরণের পরিমান অনুযায়ী নিঃসরণ কমাতে বলা হয়। সরকার ভাঙ্গরি ফেরিওয়ালাগণকে কার্বণ নিঃসরণ কমানোর জন্য কাজে লাগাতে পারে।

এদেরকে সরকার উপযুক্ত প্রশিক্ষণের ব্যবস্থা করতে পারে, আরও কার্যকর পদ্ধতিতে কিভাবে পরিবেশ ও জলবায়ূও প্রতি ক্ষতিকর জিনিস চিহ্নিত করে সংগ্রহ করা যায় তা শেখানোর জন্য।

পরিবেশ রক্ষার জন্য বাংলাদেশ সরকার এদের জন্য অর্থ বরাদ্দ করে, এদের কাছ থেকে সংগৃহীত ক্ষতিকারক উপাদান ধ্বংস ও পুনঃউৎপাদনযোগ্য উপাদান শিল্প কারখানায় সরবরাহ করা যেতে পারে।

সরকার ও জাতিসংঘের উচিত বিশ্ব জলবায়ূ পরিবর্তন রোধের এটি কার্যকর পন্থা হিসেবে ভাঙ্গারি শিল্পকে চিহিৃত কওে এসব ক্ষুদ্র ব্যবসায়ীকে পরিবেশ রক্ষাকারী হিসেবে মুল্যায়ন করা।

ভাঙ্গারি শিল্পের প্রাণ হলো ফেরিওয়ালাগণ। গ্রামের উঠতি বয়সের তরুণেরাই মুলত শহওে আসেন ভাঙ্গারি ফেরির জন্য। সাধারণত, নিজেদের এলাকার ভাঙ্গারি দোকানেই এর যোগ দেয়। দোকানদাররা অভিভাবকের মতো করে দায়িত্ব পালন করেন।

ফেরিওয়ালাগণ সাধারণত একজন নির্দিষ্ট মহাজনের দোকানে তাদের কিনে আনা পুরোনা জিনিসপত্র বিক্রি করেন। মহাজন তাদেরকে ব্যবসায় শুরুর জন্য পুঁজি দেন, থাকা এবং খাওয়ার ব্যবস্থা করেন। এমনকি এদের মধ্যে ছোট-খাটো বিবাদ হলে সেটা মিমাংসাও করেন।

ফেরিওয়ালাদেও জন্য সবচেয়ে গুরুত্বপূর্ণ জিনিস হলো তাদের দাঁড়িপাল্লা এবং মালামাল বহনের জন্য টুকরি। যত রকমের পুরানো জিনিস আছে তার সবই তারা কিনেন। তবে সবচেয়ে চাহিদা সম্পন্ন জিনিস হলো তামা, পিতল, কাস্টিং, লোহা, এলুমনিয়াম, কাগজ, সিসা, প্লাস্টিক, রাবার ইত্যাদি।

ফেরিওয়ালারা মহাজনের কাছ থেকে পুঁজি নিয়ে বাসা-বাড়ি থেকে পুরানো জিনিসপত্র কিনে লাভজনক দামে তা আবার মহাজনের কাছেই বিক্রি করেন। মহাজন সেগুলো জমিয়ে বড় ব্যবসায়ীদেও কাছে বিক্রি করেন। আর তারা বিক্রি করেন, রিসাইকেল ফ্যাক্টরিতে। সেখান থেকে এগুলো রিসাইকেল হয়ে আবার চলে আসে আমাদেও দৈনন্দিন জীবন-যাপনের অনুসঙ্গ হিসেবে।

এর মাধ্যমে এ ব্যবসায়ের জড়িতরা মুনাফা করছেন, আর সেই সাথে দুষণের হাত থেকে রক্ষা পাচ্ছে আমাদের পরিবেশ। আর সম্পদের সুষ্ঠু ব্যবহারও নিশ্চিত হচ্ছে। এসব প্রান্তিক মানুষ এ ব্যবসায়ে না এলে, এ দেশের বেকার সমস্যা আরও বাড়ত। আর সেই সাথে পাল্লা দিয়ে বাড়ত দারিদ্র ও অন্যান্য অপরাধ।

এদের সন্তানেরাও হতে পারত না সুশিক্ষিত হতে। আমাদের পরিবেশ দুষিত হতে পারতো আরো মারাত্নকভাবে। সুতরাং এখন সময় এসেছে, চরম অবহেলিত এ পেশার মানুষদের সঠিক মুল্যায়নের, আর তাদেরকে তাদেও প্রাপ্য সম্মান দেয়ার।

Developed By The IT-Zone