ঢাকাসোমবার , ১০ জানুয়ারি ২০২২
আজকের সর্বশেষ সবখবর

বীরমুক্তিযোদ্ধা কমান্ড্যান্ট মানিক চৌধুরীর ৩১ তম মৃত্যুবার্ষিকী আজ

স্টাফ রিপোর্টার
জানুয়ারি ১০, ২০২২ ১১:৪৫ পূর্বাহ্ণ
Link Copied!

কমান্ড্যান্ট মানিক চৌধুরী নামে সমধিক পরিচিত এ.কে লতিফুর রহমান চৌধুরী ১৯৩৩ সালে ২০ ডিসেম্বর হবিগঞ্জ জেলায় জন্মগ্রহণ করেন। তিনি স্থানীয় বৃন্দাবন কলেজ থেকে উচ্চ মাধ্যমিক ও বি. এ পরীক্ষায় উত্তীর্ণ হন। লতিফুর রহমান চৌধুরী ১৯৫২ সালে স্নাতক শ্রেণিতে অধ্যায়রত অবস্থায় তদানীন্তন হবিগঞ্জ মহকুমায় ভাষা আন্দোলন সংঘটিত করার ক্ষেত্রে গুরুত্বপুর্ণ ভুমিকা পালন করেন।

তিনি ঐতিহাসিক ৬ দফা আন্দোলনসহ বিভিন্ন আন্দোলন সংগ্রামে সক্রিয় অগ্রগামী নেতা ছিলেন। ভাষা আন্দোলন এবং ৬৯এর গণঅভ্যুত্থানে সক্রিয় অংশগ্রহন করার জন্য তিনি বহুবার কারাভোগ করেন। ১৯৭০ সালের সাধারণ নির্বাচনে আওয়ামীলীগের প্রার্থী হিসেবে তদানীন্তন জাতীয় পরিষদের সদস্য নির্বাচিত হন।

১৯৭১ সালে ২৫শে মার্চ রাতে জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান কর্তৃক ওয়ারলেসে প্রেরিত স্বাধীনতার ঘোষণাপত্রটি পাওয়ার সঙ্গে সঙ্গে মানিক চৌধুরী সশস্ত্র মুক্তিযুদ্ধ শুরু করেন। তাঁর নির্বাচনী এলাকায় চা-শ্রমিকদের নিয়ে তিনি গঠন করেন ‘তীরন্দাজ বাহিনী।’ যা ছিলো সিলেটর প্রথম প্রতিরোধ যুদ্ধ। হবিগঞ্জ সরকারি অস্ত্রগার থেকে অস্ত্র সংগ্রহ করে তিনি সিলেট শেরপুর সাদিপুর যুদ্ধে নেতৃত্ব দেন।

সিলেট কারাগার থেকে মুক্ত করেন, আওয়ামী লীগের অসংখ্য নেতাকর্মী। মুক্তিযুদ্ধের চার নম্বর সেক্টরে অসামান্য সাহসিকতার সঙ্গে যুদ্ধ পরিচালনার জন্য তিনি নিজে গেরিলা ট্রেনিং গ্রহন করেন।

পরবর্তীতে হবিগঞ্জÑমৌলবীবাজার ও সিলেটের মুক্তিযোদ্ধাদের প্রশিক্ষণ প্রদান, খাদ্য সংগ্রহ এবং ভারত থেকে অস্ত্র সংগ্রহের ক্ষেত্রে মানিক চৌধুরী গুুরুত্ব ভুমিকা পালন করেন। মুক্তিযুদ্ধকালিন চিফ অব স্টাফ মেজর জেনারেল এম.এ.রব (বীর উত্তম) গেরিলা যোদ্ধা হিসেবে মানিক চৌধুরীর সাহসী ভুমিকার জন্য মুক্তিযুদ্ধকালিন সময়ে তাঁকে “কমান্ডেন্ট” উপাধিতে ভুষিত করেন।

উল্লেখ্য মহান মুক্তিযুদ্ধের ইতিহাসে মানিক চৌধুরী একমাত্র “সিভিলিয়ান” যিনি সাহস ও বীরত্বের জন্য “কমান্ডেন্ট” উপাধিতে সম্মানিত হন। তিনি ছিলেন কালের এক সাহসী সন্তান।

স্বাধীনতার পর কমান্ড্যান্ট মানিক চৌধুরী জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মজিবুর রহমানের নেতৃত্বে দেশ গঠনে আত্মনিয়োগ করেন। তিনি আওয়ামী লীগের মনোনয়নে ১৯৭৩ সালে জাতীয় সংসদ সদস্য নির্বাচিত হন। বঙ্গবন্ধুর আমলে তিনি বাংলাদেশ চাবোর্ড এবং বাংলাদেশ ব্যাংকের চেয়ারম্যানের দায়িত্বে নিয়োজিত ছিলেন।

তিনি বাংলাদেশ আওয়ামী লীগের কেন্দ্রীয় কমিটির কৃষি বিষয়ক সম্পাদক ও বাংলাদেশ কৃষক লীগের কেন্দ্রীয় কমিটির আহবায়ক হিসেবে দায়িত্ব পালন করেন। তিনি মাধপুরে “শ্যামল মাধবপুর” নামে একাট উদ্ভাবনী উদ্যোগ গ্রহণ করেন।

কৃষিক্ষেত্রে উল্লেখযোগ্য অবদানে স্বীকৃতিস্বরূপ তাঁকে ১৯৭৪ সালে “বঙ্গবন্ধু কৃষি পদক” প্রদান করা হয়। “আমরা বাঙালি” আন্দোলনের প্রবক্তা হিসেবে তিনি অসাম্প্রদায়িক বাংলাদেশ গড়ার আন্দোলনে ব্রত হন।

১৯৭৫ সালে বঙ্গবন্ধু তাঁকে হবিগঞ্জের জেলা গভর্নর হিসেবে নিয়োগ প্রদান করেন। ৭৫ এর ১৫ ই আগস্ট জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেক মুজিবুর রহমানকে সপরিবারে হত্যার প্রতিবাদে তিনি রাজপথে প্রতিবাদ মিছিল বের করেন। এ কারণে ১৯৭৬ সালের ডিসেম্বরে তাঁকে গ্রেফতার করে দীর্ঘ চার বছর নির্জন কারাবাসে কারারুদ্ধ করে রাখা হয়।

রাজবন্দি থাকা কালিন সময়ে শারীরিক এবং মানসিক ভাবে তাঁকে নির্যাতন করা হয়। ৭৫ পরবর্তী, খন্দকার মোস্তাকের মন্ত্রিসভায় মন্ত্রিত্বের প্রস্তাবকে মানিক চৌধুরী প্রত্যাখান করায় তাঁর কারাবাস দীর্ঘতর করা হয়।

এ মহান মুক্তিযোদ্ধা ও নিবেদিত প্রাণ ত্যাগী রাজনীতিবীদ জীবনের শেষ সময়ে আর্থিক অনটনে সুÑচিকিৎসার অভাবে ১৯৯১ সালে ১০ জানুয়ারি ইন্তেকাল করেন।

তাঁর বিদেহী আত্মার মাগফিরাতের জন্য আজ (সোমবার) মানিক চৌধুরী পাঠাগার কতৃক মরহুমের কবর জিয়ারত, দরিদ্র মানুষের মাঝে শীতবস্ত্র ও খাদ্য সামগ্রী বিতরণের ব্যবস্থা করা হয়েছে। এছাড়া ও হবিগঞ্জ মাস্টার কোয়াটার আমাতুল কিবরিয়া কেয়া চৌধুরীরর বাস ভবনে বাদ আসর হতে বাদ এশা পর্যন্ত কোরআন খতম ও মিলাদ মাহফিলের আয়োজন করা হয়েছে।

Developed By The IT-Zone