ঢাকামঙ্গলবার , ২০ সেপ্টেম্বর ২০২২
আজকের সর্বশেষ সবখবর

বিশ্ব নদী দিবস উপলক্ষে বাপা ও খোয়াই রিভার ওয়াটারকিপার এর উদ্যোগে মানববন্ধন অনুষ্ঠিত

স্টাফ রিপোর্টার
সেপ্টেম্বর ২০, ২০২২ ৫:৫২ অপরাহ্ণ
Link Copied!

আমাদের নদীগুলো সুস্থ নেই। দিনের পর দিন নদীগুলো চরম সংকটজনক অবস্থায় পতিত হচ্ছে। খোয়াই, পুরাতন খোয়াই, সুতাং, সোনাইসহ জেলায় যে কয়টি নদী টিকে আছে সেগুলোর উপর চলছে ক্রমাগত অত্যাচার।

একদিকে নদী দখল, নদীর বুক থেকে অনিয়ন্ত্রিত ভাবে বালু -মাটি উত্তোলন অন্যদিকে কলকারখানার বর্জ্য নিক্ষেপের মাধ্যমে দূষিত করা হচ্ছে নদীকে।

২৫ সেপ্টেম্বর রবিবার বিশ্ব নদী দিবস উপলক্ষে মঙ্গলবারর ( ২০ সেপ্টেম্বর) বাংলাদেশ পরিবেশ আন্দোলন বাপা ও খোয়াই রিভার ওয়াটারকিপার আয়োজিত মানববন্ধন ও পথসভা থেকে বক্তারা একথা বলেন। দুপুর ১ টায় হবিগঞ্জ টাউন হলের সামনে এই মানববন্ধন অনুষ্ঠিত হয়।

“আমাদের গণমানুষের নৌপথ” প্রতিপাদ্যে হবিগঞ্জের খোয়াই নদীসহ সকল নদী রক্ষায় উদ্যোগী হবার আহ্বান জানিয়ে বক্তব্য রাখেন, বাপা হবিগঞ্জের সভাপতি অধ্যাপক মো: ইকরামুল ওয়াদুদ, সহ-সভাপতি তাহমিনা বেগম গিনি, সাবেক জনপ্রতিনিধি বিশিষ্ট মুক্তিযোদ্ধা মোহাম্মদ আলী মমিন, তাসনিমুন হাসান, তৃষিতা কনা, নিসপা আক্তার,অরিত্র সাহা প্রমুখ। সূচনা বক্তব্য রাখেন, খোয়াই রিভার ওয়াটারকিপার ও বাপা হবিগঞ্জের সাধারণ সম্পাদক তোফাজ্জল সোহেল।

হবিগঞ্জের নদীগুলোর বর্তমান চিত্র তুলে ধরে তোফাজ্জল সোহেল বলেন, আমাদের নদীগুলো আজ নানামুখী অত্যাচারে চরম বিপর্যয়ের মুখে পড়েছে। নদী নিয়ে ব্যবসা করা, নদী দখল- ভরাট করা, নদীর উপর স্থাপনা নির্মাণ, নদী দূষণ ইত্যাদি সকল অন্যায় ও অবৈধ কাজ চলছে।

তিনি বলেন, ৫ কিলোমিটার দৈর্ঘ্য পুরাতন খোয়াই নদীর অধিকাংশ দখল ভরাটের আওতায় চলে গেছে। ২০১৯ সালে এই নদী থেকে অবৈধ দখলদারদের উচ্ছেদ প্রক্রিয়ায় শুরু করে প্রশাসন।

কিন্তু অজ্ঞাত কারণে সেটা থেমে আছে। নদীর যে অংশটিকে দখলমুক্ত করা হয়েছিল বর্তমানে সেটিও পুনরায় দখলের আওতায় চলে গেছে।

খোয়াই নদী থেকে যথেচ্ছা ভাবে বালু ও মাটি উত্তোলনের ফলে নদীর স্বাভাবিক আকৃতি হারাচ্ছে।

কয়েকবছর আগে নদীর গতিপথ পরিবর্তন হয়ে শত বছরের পুরনো ‘গরুর বাজার নৌকা ঘাট’ হারিয়ে গেছে। এটি মোটেও স্বাভাবিক ঘটনার নয়!

সুতাং নদী প্রসঙ্গে তিনি বলেন,পরিবেশ আইনসহ দেশের সকল আইন অমান্য করে হবিগঞ্জে গড়ে ওঠা কলকারখানার বর্জ্য নিক্ষেপ করা হচ্ছে সুতাং নদীসহ আশপাশের জলাশয় ও কৃষি জমিতে।

মাত্রাতিরিক্ত দূষণের কারণে নদীকেন্দ্রিক জীবন ব্যবস্থা এবং আশপাশের মানুষের জীবন জীবিকা দুর্বিষহ হয়ে পড়েছে।

বাপা হবিগঞ্জের সভাপতি অধ্যাপক মোঃ ইকরামুল ওয়াদুদ বলেন, হবিগঞ্জের পরিবেশ, জীববৈচিত্র্য রক্ষার ক্ষেত্রে অপরিহার্য খোয়াই নদী, পুরাতন খোয়াই সুতাংসহ অন্যান্য নদী রক্ষার ক্ষেত্রে কার্যকর ভূমিকা দেখছি না।

আমরা সচেতনতার চেষ্টা করছি। নদ-নদী পরিবেশ, জীববৈচিত্র্য রক্ষায় যথাযথ ভূমিকা পালন না করলে হবিগঞ্জের পরিবেশ- প্রতিবেশ যে অবস্থায় রয়েছে ভবিষ্যতে তা আরো নষ্ট হওয়া যাওয়ার সমূহ আশঙ্কা রয়েছে।

Developed By The IT-Zone