ঢাকাবৃহস্পতিবার , ২৯ জুলাই ২০২১
আজকের সর্বশেষ সবখবর

বিরল রোগে ভুগছে চা-কন্যা কেয়া : অর্থের অভাবে হচ্ছেনা চিকিৎসা

দৈনিক আমার হবিগঞ্জ
জুলাই ২৯, ২০২১ ৭:১৮ অপরাহ্ণ
Link Copied!

মুহিন শিপনঃ  চুনারুঘাট উপজেলার লালচাঁন্দ চা বাগানের বাসিন্দা কেয়া শুদ্ধ সবর (৯) বিরল রোগে আক্রান্ত হয়ে দুর্বিষহ জীবন-যাপন করছে। সে স্থানীয় মনোবল পাঠশালার ৪র্থ শ্রেণীর শিক্ষার্থী। অর্থাভাবে সুচিকিৎসা থেকে বঞ্চিত হচ্ছে সে। কেয়ার বাবা সুখদেব শুদ্ধ সবর ও মা জ্যোৎস্না শুদ্ধ সবর দুইজনই লালচান্দ চা-বাগানে চা-শ্রমিক হিসেবে কাজ করেন। তাদের সীমিত আয়ে পরিবার পরিজন নিয়ে নিদারুণ কষ্টে জীবন কাটাচ্ছিলেন তারা। এরই মাঝে মরার উপর খরার গা হিসেবে দেখা দিয়েছে তাদের মেয়ে কেয়া শুদ্ধ সবরের শরীরে বাসা বাধা বিরল রোগ।
কেয়ার পরিবার সূত্রে জানা যায়, জন্মের কিছুদিন পরেই তার শরীরে আছিলের মতো পরতে শুরু করে। দিন দিন তা বাড়তে থাকলে স্থানীয় ডাক্তার দেখায় তার পরিবার। এতে কোন প্রতিকার না হলে পরবর্তীতে হবিগঞ্জ এবং শ্রীমঙ্গলেও ডাক্তার দেখানো হয়। ডাক্তারের ব্যবস্থা পত্র অনুযায়ী চিকিৎসায়ও সুস্থতা ফেরেনি তার।
ধীরে ধীরে তার সমস্ত শরীরে আছিল পরতে শুরু করে, সাথে চুলকানি ও ব্যাথাও বাড়তে থাকে। বর্তমানে পা থেকে মাথা পর্যন্ত সমস্ত শরীর জুড়েই বাসা বেধেছে এই বিরল রোগ। তীব্র জ্বালাপোড়া ও ব্যাথায় কেয়ার সাথে ভূগতে হচ্ছে তার পরিবারকেও। অর্থাভাবে বর্তমানে বন্ধ রয়েছে তার চিকিৎসা। এদিকে দিন দিন বাড়ছে রোগের প্রকোপ। এমতাবস্থায় দিশেহারা হয়ে পড়ছে তার পরিবার।

ছবি : বিরল রোগে ভুগছে চুনারুঘাটের লালচাঁন্দ চা বাগানের বাসিন্দা কেয়া শুদ্ধ সবর 

এ বিষয়ে কেয়ার মা জ্যোৎস্না শুদ্ধ সবর বঅলেন, প্রথম দিকে আমরা চিকিৎসা করালেও টাকার অভাবে দীর্ঘদিন ধরে চিকিৎসা বন্ধ করাতে পারতেছিনা । দিন দিন ক্রমশ রোগের প্রকোপ বাড়ছে। সমাজের বিত্তবানরা সহযোগিতা করলে হয়তো আমার মেয়ে সুস্থ হয়ে উঠবে।
একই বিষয়ে স্থানীয় ইউপি সদস্য শিপন ভৌমিক জানান, কেয়ার বড়বোনকে ইতোমধ্যে আমরা প্রতিবন্ধী ভাতার ব্যবস্থা করে দিয়েছি। তার রোগাক্রান্ত হওয়ার বিষয়ে আমি খোঁজ নিয়ে সহযোগিতা করার চেষ্টা করবো।
মনোবল পাঠশালার প্রতিষ্ঠাতা পরিচালক রনি গোয়ালা জানান, আমরা কেয়ার পড়াশোনার জন্য ফ্রিতে বই-খাতা দিচ্ছি। এছাড়াও স্কুলের সমস্ত ফি মওকুফ করে দিয়েছি। তিনি আরও বলেন, আমরা কেয়ার চিকিৎসার জন্য একবার উদ্যোগ নিয়েছিলাম কিন্তু টাকার যোগান দিতে না পারায় তা সম্ভব হয়নি। তার চিকিৎসার জন্য সমাজের বিত্তবানদের এগিয়ে আসার আহবান জানান তিনি।
একই বিষয়ে চুনারুঘাট উপজেলা স্বাস্থ্য ও পরিবার পরিকল্পনা কর্মকর্তা মোজাম্মেল হক জানান, না দেখে কিছু বলা যাচ্ছে না। তাকে নিয়ে আসলে আমাদের সাধ্যমতো চিকিৎসার ব্যবস্থা গ্রহন করবো।

Developed By The IT-Zone