ঢাকাবুধবার , ১৬ ডিসেম্বর ২০২০
আজকের সর্বশেষ সবখবর

বিজয়ের মাসেও অরক্ষিত চুনারুঘাট পৌরসভার বধ্যভূমি !

দৈনিক আমার হবিগঞ্জ
ডিসেম্বর ১৬, ২০২০ ৩:৩০ অপরাহ্ণ
Link Copied!

এফ এম খন্দকার মায়া, চুনারুঘাট :   ১৯৭১ সালে বাংলাদেশ সৃষ্টির ইতিহাসে লেখা আছে বধ্যভ‚মি আর গণহত্যার কথা। সারাদেশের ন্যায় চুনারুঘাট উপজেলার গাজীপুর ইউনিয়নের সাগর দিঘীরপাড়, আহম্মাদাবাদ ইউনিয়নের গোছাপাড়া ও নালুয়া চা বাগান, শানখলা ইউনিয়নের লালচান বাগানের পাশাপাশি চুনারুঘাট পৌরসভার উত্তর বাজারস্থ মুক্তিযোদ্ধা কমপ্লেক্স সংলগ্ন বধ্যভূমি, একাত্তরের মুক্তিযুদ্ধে হানাদার বাহিনীর গণহত্যার দলিল। এ বধ্যভূমির যথোপযুক্ত রক্ষণাবেক্ষণ ও মর্যাদা রক্ষা হচ্ছে না।

 

যদিও নামমাত্র স্বাধীনতার ৪৭ বছর পরে সাবেক উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা কাইজার মোহাম্মদ ফারাবীর পৃষ্ঠপোষকতায় সংস্কারের উদ্যোগে ভিত্তি স্থাপন করা হয়। পরবর্তীতে ওই জায়গায় গড়ে উঠে সিএনজি স্টেশন। জানা যায়, ১৯৭১ সালে পাক হানাদার বাহিনীর গণহত্যার এক শোকাবহ স্মৃতিচিহ্ন অঙ্কিত হয়ে আছে এই বধ্যভ‚মিগুলোতে। উক্ত স্থানসহ পাকবাহিনীরা পৌরসভায় ১১ জন ও চা বাগান থেকে মুক্তিযোদ্ধাসহ ৫০ জনেরও বেশি নারী পুরুষকে হত্যা করে গণকবর দেয়।

 

ছবি : বিজয়ের এই দিনেও অরক্ষিত চুনারুঘাট পৌরসভার বধ্যভূমি

 

অসংখ্য শহীদের মধ্যে বেশ কযেকজন ছিলেন মুসলমান। তাদেরকে যথাযোগ্য সম্মান দেয়া বাঙালি জাতির দায়িত্ব ও কর্তব্যের অন্তর্ভুক্ত। সেই বিবেচনায় চুনারুঘাট পৌরসভাসহ এই সকল বধ্যভূমি উপযুক্ত মর্যাদা ও সম্মান পাওয়া থেকে অনেকাংশেই বঞ্চিত হচ্ছে। সরেজমিনে দেখা যায়, চুনারুঘাট পৌরসভার উত্তর বাজারস্থ মুক্তিযোদ্ধা কমপ্লেক্স ভবন সংলগ্ন পুরাতন খোয়াই নদী ও ঢাকা-সিলেট পুরাতন মহাসড়ক ও স্থানীয় হাট বাজারের নর্দমা ফেলা ও সিএনজি স্টেশন পাশে হওয়ায় ও উন্মুক্ত শৌচাগার হিসাবেই নিয়ন্ত্রিত।

 

ফলে সেখানে যাওয়ার অবস্থা দুরূহ। স্বাধীনতার ৪৮ বছরও পার হলেও এখনো অযতœ আর অবহেলায় পড়ে আছে বধ্যভুমিটি। এ ব্যাপারে আলাপকালে বধ্যভ‚মি রক্ষণাবেক্ষণের দায়িত্বপ্রাপ্ত মুক্তিযোদ্ধা সন্তান জানান এই কথা।

এ ব্যাপারে সাবেক উপজেলা কমান্ডার আব্দুস সামাদ বলেন, মুক্তিযোদ্ধা মন্ত্রণালয়ে এই বধ্যভূমিগুলো সংস্কারের আবেদন করায় অন্তর্ভুক্ত হয়েছে। মুক্তিযোদ্ধা সংসদ কর্তৃক এই বধ্যভূমি রক্ষণাবেক্ষণ করা হচ্ছে।

অন্যদিকে এই বধ্যভ‚মির পবিত্রতা রক্ষার বিষয়ে বিভিন্ন পত্রিকায় সংবাদ প্রকাশ হলে কর্তৃপক্ষ বাঁশ কাঠ দিয়ে বধ্যভূমির সীমানা চিহ্নিত করে ঘিরে দিয়েছেন। এতে বধ্যভূমির সীমানা চিহ্নিত হলেও এর পবিত্রতা ও মর্যাদা রক্ষা নিশ্চিত হয়নি এখনো। বর্তমানে এর বেষ্টনীর কোন অস্তিত্বই নেই। এ বিষয়ে চুনারুঘাট পৌরসভার মেয়র নাজিম উদ্দীন সামছু বললে, আমি সর্বোচ্চ চেষ্টা করে যাচ্ছি।

Developed By The IT-Zone