ঢাকাবুধবার , ২০ জুলাই ২০২২
আজকের সর্বশেষ সবখবর

বাহুবলে শ্মশানের জায়গা নিয়ে দীর্ঘদিনের বিরোধ নিষ্পত্তি

স্টাফ রিপোর্টার
জুলাই ২০, ২০২২ ১০:৪৬ পূর্বাহ্ণ
Link Copied!

বাহুবল উপজেলার সুন্দ্রাটেকি গ্রামে সরকারি খাস খতিয়ানে শ্মশানের জায়গা ও মালিকানা জায়গা নিয়ে কয়েকটি হিন্দু ও মুসলিম পরিবারের মধ্যে দীর্ঘদিন যাবৎ বিরোধ চলে আসছিলো। গত সোমবার (১৮ জুলাই) দুপুরে সহকারী কমিশনার (ভূমি) মোঃ রুহুল আমিনের নেতৃত্বে সার্ভেয়ার ও থানা পুলিশকে সাথে নিয়ে সেখানে উপস্থিত হন তিনি।

স্থানীয় ওয়ার্ড মেম্বার নজরুল ইসলাম রানু ও এলাকার বিশিষ্ট মুরুব্বিদের উপস্থিতিতে সরকারি খাস খতিয়ানের ৩৬ শত ভূমি উদ্ধার ও সীমানা নির্ধারণ করা হয়।

এ সময় সকলের উপস্থিতিতে সরকারি খাস ভূমি নিয়ে দীর্ঘদিনের বিরোধ নিষ্পত্তি ও সীমানাপ্রচীর নির্ধারণ করে পিলার স্থাপন করা হয়। জানা যায়, বাহুবল উপজেলার ৭নং ভাদেশ্বর ইউনিয়নের সুন্দ্রাটেকি গ্রামের প্রবাসী এখলাছ মিয়ার স্ত্রী মোছাঃ হনুফা বেগম ও প্রতিবেশী মৃত সুনীল পালের ছেলে অজয় পালের মধ্যে শ্মশান ও মালিকানা জায়গা নিয়ে দীর্ঘদিন যাবৎ ধরে বিরোধ চলে আসছিলো।

এ বিরোধের জের ধরে গত ২২শে মার্চ হনুফা বেগম ও অজয় পালের পক্ষ নিয়ে কয়েকটি হিন্দু ও মুসলিম পরিবারের মধ্যে সংঘর্ষের ঘটনা ঘটে। এ ঘটনায় উভয় পক্ষের প্রায় ১০ জন আহত হয়। গত সোমবার দুপুরে সহকারী কমিশনার (ভূমি) মোঃ রুহুল আমিন, সার্ভেয়ার মোঃ শাহীন মিয়া, বাহুবল মডেল থানার এসআই ইসমাঈল হোসেনকে সাথে নিয়ে ওই বিরোধীয় জায়গায় উপস্থিত হন।

এ সময় উপস্থিত ছিলেন স্থানীয় ওয়ার্ড মেম্বার নজরুল ইসলাম রানু ও হিন্দু-বৌদ্ধ-খৃষ্টান ঐক্য পরিষদের সভাপতি নিহার রঞ্জন দেবসহ এলাকার বিশিষ্ট মুরুব্বিয়ান।

এ ব্যাপারে সহকারী কমিশনার (ভূমি) মোঃ রুহুল আমিন বলেন, উপজেলার সুন্দ্রাটেকি গ্রামে কয়েকটি হিন্দু ও মুসলিম পরিবারের মধ্যে সরকারি খাস খতিয়ানের জায়গা নিয়ে দীর্ঘদিন যাবৎ ধরে বিরোধ চলে আসছিলো।

সেখানে গিয়ে স্থানীয় ওয়ার্ড মেম্বার ও এলাকার বিশিষ্ট মুরুব্বিদের উপস্থিতিতে সরকারি খাস খতিয়ানের ৩৬ শত ভূমি উদ্ধার ও সীমানা নির্ধারণ করা হয়। এ বিষয়ে হনুফা বেগমের কাছে জানতে চাইলে তিনি কোন কথা বলতে রাজি হননি।

Developed By The IT-Zone