ঢাকাFriday , 7 April 2023
আজকের সর্বশেষ সবখবর

বানিয়াচঙ্গে স্বাস্থ্যসম্মত পায়খানার অস্বাস্থ্যকর ব্যবহার : জনস্বাস্থ্য হুমকিতে

Link Copied!

একসময় বানিয়াচঙ্গে কলেরাসহ বিভিন্ন রোগের প্রাদুর্ভাব দেখা দেয়া এবং ঘরে ঘরে মানুষ মারা যেতো। একজনের লাশ দাফন শেষ করতে না করতেই খবর আসতো আরেকজনের মৃত্যুর। এসব কথা বয়োঃবৃদ্ধ লোকজনের স্মৃতিচারণে এখনও শোনা যায়।

অতীতে যুগে যুগে এধরণের মহামারীর ঘটনা ঘটতো স্বাস্থ্যবিধি সম্পর্কে মানুষের মধ্যে সচেতনতার অভাবের কারণে। সরকার এবং এনজিওগুলোর দীর্ঘদিনের কার্যক্রমের ফলে খোলা জায়গায় মানুষের মলত্যাগ, মলত্যাগের পর সাবান দিয়ে হাত না ধৌত করাসহ এসব অভ্যাসের পরিবর্তন ঘটাতে সক্ষম হয়।

খোলা বা ঝুলন্ত লেট্রিন ব্যবহার বন্ধেও সরকার এবং ব্র্যাকসহ বিভিন্ন এনজিও মানুষের মাঝে কাজ করতে থাকে। জনস্বাস্থ্য প্রকৌশল অধিদপ্তরের মাধ্যমে উপজেলা পর্যায়ে স্যানিটারি লেট্রিন তৈরির কারখানা খুলে বিনামূল্যে স্যানিটারি লেট্রিন বিতরণ করা হয়।

এনজিওগুলোও ব্যাপকভাবে স্যানিটারি লেট্রিন বিতরণ করে। কিন্তু অনেকেই এসব স্যানিটারি লেট্রিন ব্যবহার না করে অন্যকাজে ব্যবহার করেন। কেউ গরুসহ গবাদিপশুর খাবার দেয়ার উপকরণ হিসেবে, কেউবা হাঁসমুরগি ঝাঁপ দিয়ে আটকে রাখার কাজে, এভাবে একেক পরিবার একেক কাজে স্যানিটারি লেট্রিনের রিংগুলো ব্যবহার এবং স্লাব খাল-বিল-পুকুরে ঘাটলা হিসেবে ব্যবহার করতে থাকেন।

ফলে সরকার এবং এনজিওগুলোর উদ্দেশ্য সফল হয়নি। এমন পরিস্থিতিতে ব্র্যাক, গ্রামীণ ব্যাংকসহ বিভিন্ন এনজিও মানুষের বাড়ী বাড়ী গিয়ে নিজেরা স্যানিটারি লেট্রিন স্থাপন করে দেয়া শুরু করে।

এভাবে লোকজনের মধ্যে স্যানিটারি লেট্রিন ব্যবহারের বিপ্লব ঘটানো হয়। খোলা জায়গায় মলত্যাগ বন্ধ, মলত্যাগের পর সাবান দিয়ে হাত ধৌত করা, স্যানিটারি লেট্রিন ব্যবহারের বিপ্লব ঘটানোর ফলে অতীতের মতো কলেরাসহ বিভিন্ন রোগের প্রাদুর্ভাব দেখা দেয়া এবং ঘরে ঘরে মানুষ মারা যাওয়ার ঘটনা আর ঘটছে না।

এদিকে মধ্যপ্রাচ্য, ইউরোপসহ বিশ্বের বিভিন্ন দেশে অনেক লোকজন গিয়ে এলাকার আর্থিক অবস্থার পরিবর্তন ঘটায় কাঁচা ও টিনের ঘরের পরিবর্তে আধাপাকা এবং পাকা ঘর নির্মাণের হিড়িক পড়ে গোটা বানিয়াচঙ্গে।

এর সাথে তাল মিলিয়ে অভ্যন্তরীণ টয়লেট (এটাচ বাথরুম) নির্মাণ বৃদ্ধি পায়। কিন্তু সম্প্রতি এসব স্বাস্থ্যসম্মত এটাচ বাথরুমের ট্যাংকি এবং স্যানিটারি লেট্রিনের স্লাবে পাইপ ফিটিংস দিয়ে বাড়ীর পাশ্ববর্তী খাল, ড্রেন ইত্যাদিতে ময়লা পড়ার ব্যবস্থা গ্রহণের প্রবনতা লোকজনের মধ্যে দেখা যাচ্ছে।

স্বাস্থ্যসম্মত পায়খানার এহেন অস্বাস্থ্যকর ব্যবহারের প্রবনতায় জনস্বাস্থ্য হুমকিতে পড়ছে বলে মনে করছেন সচেতন মহল। কয়েকদিন পূর্বে যাত্রাপাশা গ্রামের একবাড়ির স্যানিটারি ল্যাটিনের ময়লা রাস্তার কিনারে পড়ার দৃশ্যের ছবি ধারণ করে ফেসবুকে পোস্ট করে এব্যাপারে সবাইকে সচেতন হওয়ার আহবান জানান উদীচী বানিয়াচং শাখার সাধারণ সম্পাদক এবং বানিয়াচং প্রেসক্লাবের ক্রীড়া ও সাংস্কৃতিক সম্পাদক রিতেষ কুমার বৈষ্ণব।

তার সাথে আলাপকালে জানা গেছে, প্রতিটি এলাকায় স্বাস্থ্যসম্মত পায়খানার এমন অস্বাস্থ্যকর ব্যবহার হচ্ছে। স্বাস্থ্যসম্মত পায়খানার অস্বাস্থ্যকর ব্যবহার বন্ধে এবং জনস্বাস্থ্য রক্ষায় প্রত্যেক এলাকায় মোবাইল কোর্ট পরিচালনা করে জেল-জরিমানা করার জন্য তিনিসহ সচেতন অনেকেই প্রশাসনের সুদৃষ্টি কামনা করছেন।