ঢাকাWednesday , 11 January 2023
আজকের সর্বশেষ সবখবর

বানিয়াচঙ্গে বিলীন হতে চলেছে পর্যটক আকৃষ্ট করার মতো অনেক স্থাপনা

Link Copied!

পৃথিবীর বৃহত্তম গ্রাম বানিয়াচং একসময় ছিলো স্বাধীন রাজ্যের রাজধানী। এজন্য এখানে রয়েছে পর্যটক আকৃষ্ট করার মতো অনেক প্রাচীন স্থাপনা। কিন্তু রক্ষণাবেক্ষণের অভাবে অনেক স্থাপনাই বিলীন হয়ে গেছে। অবশিষ্ট যা আছে এগুলোও দিনে দিনে বিলীন হতে চলেছে।

বর্তমানেও বিভিন্ন পাড়া/মহল্লায় যেসব প্রাচীন মসজিদ, মন্দির, শান বাধানো ঘাট ও ঘরবাড়ি রয়েছে সেগুলো দেখে মুগ্ধ হন দূর দূরান্ত থেকে বানিয়াচং ভ্রমণে আসা পর্যটকরা। বিভিন্ন ধরনের মন্তব্য এবং প্রস্তাবনাও দিয়ে যান।

একসময় জাতীয় জাদুঘরের সাবেক মহাপরিচালক ড. রাজীব হুমায়ুন, বাংলা একাডেমীর সাবেক মহাপরিচালক ড. শামসুজ্জামান খান, ইতিহাসবিদ ড. মুনতাসীর মামুনসহ দেশের বরেণ্য বুদ্ধিজীবীরা বানিয়াচং পরিদর্শন করে এখানে একটি আঞ্চলিক জাদুঘর করার প্রস্তাবনা উপস্থাপন করেছিলেন।

তাঁদের এ প্রস্তাবনার পরিপ্রেক্ষিতে ওইসময় তৎকালীন স্থানীয় প্রশাসনসহ বানিয়াচঙ্গের রাজনৈতিক নেতৃবৃন্দ, জনপ্রতিনিধি, কবি, সাহিত্যিক, শিল্পী, সাংবাদিকরা বেশ সরব হয়েছিলেন।

বানিয়াচঙ্গের সন্তান না হয়েও তৎকালীন বানিয়াচং উপজেলা নির্বাহী অফিসারের কার্যালয়ের গোপনীয় সহকারী কবি ও সাহিত্যিক কুষ্টিয়ার সন্তান খোন্দকার শাহিদুল হক দেশবরেণ্য বুদ্ধিজীবীদের প্রস্তাবনা অনুযায়ী ‘বানিয়াচং আঞ্চলিক জাদুঘর’ বাস্তবায়নে অক্লান্ত পরিশ্রম করেছেন। সরকারি ফাইলপত্র ঘাটাঘাটি করলে সেসব প্রমাণ খুঁজে পাওয়ার সম্ভাবনা রয়েছে।

গত ১২ সেপ্টেম্বর বিডিনিউজ টোয়েন্টিফোর ডটকম’র স্পেশাল এসাইনমেন্ট এডিটর রাজীব নূর স্থানীয় ৩ গণমাধ্যম কর্মীকে নিয়ে বাইসাইকেলে বিশ্ব ভ্রমণকারী রামনাথ বিশ্বাসের বাড়ীর প্রাচীন একটি জরাজীর্ণ পাকা ঘরের ছবি তুলতে গিয়ে দখলদারদের হামলার শিকার হন।

এ ঘটনার প্রতিবাদে গড়ে ওঠা আন্দোলনের সময় অনেকের কাছ থেকে শুনা যায় রামনাথ বিশ্বাসের আদি ঘরটি ভেঙে ফেলা হয়েছে। এভাবে বিভিন্ন পাড়া/মহল্লায় অনেক পুরাকীর্তি ভেঙে ফেলা অথবা অযত্নে বিলীন হওয়ার কথা বয়োবৃদ্ধ লোকজনের কাছ থেকে শুনা যায়।

রামনাথ বিশ্বাসের অদূরে রয়েছে ব্রিটিশ বিরোধী সশস্ত্র আন্দোলনের বীর যোদ্ধা বিপ্লবী হেমসেন-সুশীল সেন-আশালতা সেন’র প্রাচীন বসতঘর।

এই পুরাকীর্তিটিও ওই এলাকার জনৈক মধু মিয়ার নিয়ন্ত্রণে রয়েছে। এসব পুরাকীর্তিসহ বানিয়াচঙ্গের বিভিন্ন পাড়া/মহল্লায় এখনও টিকে থাকা প্রাচীন মসজিদ, মন্দির, শান বাধানো ঘাট এবং দালানগৃহ সরকারীভাবে রক্ষণাবেক্ষণের উদ্যোগ নিলে দূরদূরান্তের পর্যটকরা আকৃষ্ট হবে বলে মনে করছেন সচেতন মহল।

এব্যাপারে বানিয়াচঙ্গের বিশিষ্টজন অবসরপ্রাপ্ত উপ-সচিব ও গবেষক ড. শেখ ফজলে এলাহী বাচ্চু, বাংলা একাডেমীর তালিকাভুক্ত গবেষক কবি ও সাহিত্যিক আবু সালেহ আহমদসহ অনেকেই সামাজিক উদ্যোগ গ্রহণের জন্য স্থানীয় সংসদ সদস্যসহ সকল পর্যায়ের জনপ্রতিনিধি, পঞ্চায়েত নেতৃবৃন্দ, রাজনৈতিক নেতৃবৃন্দ, শিক্ষক, সাংবাদিকদের সুদৃষ্টি কামনা করছেন।