ঢাকামঙ্গলবার , ২১ জুন ২০২২
আজকের সর্বশেষ সবখবর

বানিয়াচঙ্গে বন্যায় ভেসে যাচ্ছে মৎস্য খামারিদের মাছ : পোনা ধরায় জরিমানা

ইমদাদুল হোসেন খান
জুন ২১, ২০২২ ৩:৩০ অপরাহ্ণ
Link Copied!

বানিয়াচঙ্গে বন্যার পানিতে একের পর এক পুকুর ও মৎস্য খামার ডুবে ভেসে যাচ্ছে খামারিদের মাছ। একদিকে ক্ষতিগ্রস্ত মানুষের আর্তনাদ অন্যদিকে চলছে বিভিন্ন রকমের জাল দিয়ে মার ধরার উৎসব।

মৎস্যজীবী, অমৎস্যজীবী সব ধরনের মানুষ মেতে উঠেছেন এ উৎসবে। কারেন্ট জাল, কোনাজাল থেকে শুরু করে সব ধরণের নিষিদ্ধ জাল ব্যবহার করা হচ্ছে মাছ ধরা উৎসবে।

বড়মাছ ছোটমাছ, একেবারে ক্ষুদ্র আকৃতির পোনামাছ কিছুই আহরণ করা থেকে বাদ দিচ্ছেননা উৎসবে মেতে ওঠা মাছ শিকারীরা। পোনামাছ শিকারীদের বিরুদ্ধে ভ্রাম্যমাণ আদালতের অভিযান শুরু করেছে উপজেলা প্রশাসন।

মঙ্গলবার (২১ জুন) পোনামাছ ধরার খবর পেয়ে বানিয়াচং থানার সামনে ভ্রাম্যমাণ আদালত পরিচালনা করেন নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেট ও এসিল্যান্ড ইফফাত আরা জামান উর্মি। এসময় পোনামাছ পাওয়ায় দু’জনকে অর্থদন্ড দন্ডিত করা হয়। দন্ডিতরা হলেন উপজেলা সদরের দত্তপাড়া গ্রামের বুছা মিয়ার ছেলে রাজন মিয়া ও নন্দীপাড়া গ্রামের আশিক মিয়ার ছেলে হামিম মিয়া। তাদের প্রত্যেককে দুইশত টাকা করে জরিমানা করা হয়।

ভ্রাম্যমাণ আদালতের অভিযান চলাকালে আশপাশের অনেককে তড়িঘড়ি করে বিভিন্ন ধরনের নিষিদ্ধ জাল তুলে পালিয়ে যেতে যেতে দেখা যায়। এসিল্যান্ডের সাথে ভ্রাম্যমাণ আদালতের কার্যক্রমে সম্পৃক্ত ছিলেন তাঁর অফিসের অফিস সহকারী ইব্রাহিম খলিল, বানিয়াচং থানার এসআই দুলালসহ একদল পুলিশ।

অভিযান পরিচালনাকালে এসিল্যান্ড উর্মি বলেন, মোবাইল কোর্টের কার্যক্রম অব্যাহত থাকবে। যেখানেই যার কাছে পোমাছ পাওয়া যাবে তাদের বিরুদ্ধে আইনানুগ ব্যবস্থা গ্রহণ করা হবে। সবাইকে সতর্ক করতে প্রথম প্রথম অল্প টাকা জরিমানা করা হয়েছে, পরবর্তীতে কারও কাছে পোনামাছ পাওয়া গেলে কঠোর ব্যবস্থা গ্রহণ করা হবে।

অবৈধ জাল ব্যবহারকারীদের বিরুদ্ধে পরবর্তীতে নৌকা নিয়ে অভিযান চালানো হবে বলে অফিস সহকারী ইব্রাহিম খলিল জানিয়েছেন। এদিকে মৎস্য খামারের পুকুরের পাড় ডুবে বানের পানিতে ভেসে যাওয়া ক্ষতিগ্রস্ত খামারীদের মধ্যে নেমে এসেছে বিষাদের ছায়া।

অনেকেই লাখ লাখ, কোটি কোটি টাকা ক্ষতিগ্রস্ত হওয়ার কথা জানিয়েছেন এবং স্থানীয় মৎস্য অফিস কর্তৃপক্ষ তাদের খোঁজখবর না নেয়ার অভিযোগ করেছেন।

বানিয়াচং প্রেসক্লাবের সাবেক সভাপতি মোশাররফ হোসাইন এমন অভিযোগ করে জানান, তার খামার প্লাবিত হওয়ায় পূর্বে বড় মাছগুলো বিক্রি করতে পারায় কিছুটা রেহাই পেয়েছেন। এরপরও তার প্রায় পাঁচ লক্ষাধিক টাকার পোনামাছ ভেসে গেছে বলে তিনি জানিয়েছেন। তিনি বলেন, বানিয়াচং উপজেলার ১৫ টি ইউনিয়নের মৎস্য খামারিদের অন্তত ৫০ কোটি টাকার ক্ষয়ক্ষতি হয়েছে।

বানিয়াচং উপজেলা সদরের মীর মহল্লার (মাতাপুর) গ্রামের এমবিএ পাশ করা উদ্যোক্তা কবি সৈয়দ মিজান উদ্দিন পলাশ জানিয়েছেন, মৎস্য খামারের চতুর্দিকে জাল পুঁতে তিনি মাছ আটকানোর চেষ্টা করেছেন। কিন্তু বড় মাছগুলো আটকানো সম্ভব হয়নি। এতে তার প্রায় ১০ থেকে ১২ লক্ষাধিক টাকার ক্ষতি হয়েছে বলে জানান ।

মৎস্য অফিস থেকে তারও কোনো খোঁজখবর না নেয়ার অভিযোগ করেন । তিনি বলেন, মৎস্য অফিস সবসময় এটা সিন্ডিকেটের সাথে আঁতাতের সম্পর্ক বজায় রাখে যাদের অনেকেই মৎস্য খামারি নয়। অথচ যেকোনো সহযোগিতা বা পুরস্কার আসলে সবসময় তাদেরকেই দেয়া হয় বলে তার অভিযোগ।

অন্যদিকে বানিয়াচং বাসিয়াপাড়ার বাসিন্দা ও নতুন বাজারের ব্যবসায়ী মোতালিব হোসেন জানান,তাদের ফিসারি থেকে ১৫ থেকে ১৬ লাখ টাকার মাছ এই পানিতে ভেসে গেছে। তিনি আরো জানান,নির্বাচনের পরপরই সেই মাছ বাজারে বিক্রি করার কথা ছিল।

এ ব্যাপারে সিনিয়র উপজেলা মৎস্য অফিসার নূরুল ইকরাম’র সাথে যোগাযোগ করা হলে তিনি এসব অভিযোগ অস্বীকার করে এ প্রতিবেদককে বলেন, যারা বড় খামারী তারা আমাদের অফিসের সাথে কোনো রকমের যোগাযোগ রাখেননা। যোগাযোগ না রাখলে কিভাবে আমরা জানবো তারা যে মৎস্য খামারী এমন প্রশ্নও করেন তিনি।

সহযোগিতা ও পুরস্কৃত করার বিষয়ে তিনি বলেন, এগুলো সবসময় ক্ষুদ্র মৎস্যচাষীদের দেয়া হয়। বন্যায় বানিয়াচং উপজেলার ১৫ টি ইউনিয়নে কতজন মৎস্য খামারি ক্ষতিগ্রস্ত হয়েছেন এবং ক্ষয়ক্ষতির পরিমান কি জিজ্ঞেস করলে তিনি বলেন, এখনও আমরা এই তালিকাটি করতে পারিনি। তবে যারা ক্ষতিগ্রস্ত হয়েছেন তাদেরকে ক্ষয়ক্ষতির পরিমানসহ আবেদন করার আহবান জানাচ্ছেন বলে তিনি জানান।

Developed By The IT-Zone