ঢাকাবৃহস্পতিবার , ১৬ জুন ২০২২
আজকের সর্বশেষ সবখবর

বানিয়াচং ৪নং ইউনিয়ন পরিষদ নির্বাচনে আওয়ামীলীগ প্রার্থীর পরাজয়

ইমদাদুল হোসেন খান
জুন ১৬, ২০২২ ৩:১৫ পূর্বাহ্ণ
Link Copied!

হবিগঞ্জ জেলা ছাত্রলীগের সভাপতি মোশাররফ হোসেন আরিফ বাপ্পি’র নিজ ইউনিয়ন ৪নং বানিয়াচং দক্ষিণ-পশ্চিম ইউপি’র সাধারণ নির্বাচন অনুষ্ঠিত হয়েছে গত বুধবার (১৫ জুন)।

নির্বাচনে পরাজিত হয়েছেন আওয়ামীলীগ মনোনীত প্রার্থী বর্তমান চেয়ারম্যান ও উপজেলা যুবলীগের সভাপতি রেখাছ মিয়া।

স্বতন্ত্র প্রার্থী হিসেবে প্রতিদ্বন্দ্বিতা করে চেয়ারম্যান নির্বাচিত হয়েছেন জেলা ছাত্রলীগের সভাপতি বাপ্পি ও বানিয়াচং উপজেলা স্বেচ্ছাসেবকলীগের সভাপতি আশরাফ সোহেলের মামাতো ভাই বানিয়াচং উপজেলা ছাত্রলীগের সাবেক সভাপতি আনোয়ার হোসেন।

এই নির্বাচনে চেয়ারম্যান পদে চারজন প্রার্থী ছিলেন।

তাদের মধ্যে নবনির্বাচিত চেয়ারম্যান আনোয়ার হোসেন মোটর সাইকেল প্রতীকে ৫৪১৬ ভোট পেয়ে নির্বাচিত হন। তার নিকটতম প্রতিদ্বন্দ্বি রেখাছ মিয়া নৌকা প্রতীকে ভোট পেয়েছেন ৪৭৭০টি। জাতীয় পার্টির অঙ্গসংগঠন জাতীয় যুব সংহতির বানিয়াচং উপজেলা শাখার সাবেক আহবায়ক শেখ মোয়াজ্জেম হোসেন স্বতন্ত্র প্রার্থী হিসেবে আনারস প্রতীক নিয়ে প্রতিদ্বন্দ্বিতা করে ভোট পেয়েছেন ২২৯৩টি।

অপর স্বতন্ত্র প্রার্থী বানিয়াচং উপজেলা ছাত্রলীগের সাবেক সহ-সম্পাদক ইত্তেহাদ হোসেন মুবিন ঘোড়া প্রতীক নিয়ে প্রতিদ্বন্দ্বিতা করে পেয়েছেন ৫৫২ ভোট। এই ইউনিয়নের মোট ভোটার সংখ্যা ১৯৫১১ জন।

তন্মধ্যে ভোটাধিকার প্রয়োগ করেছেন ১৩০৭৩ জন এবং ভোটদানে বিরত থেকেছেন ৬৪৩৮ জন।

নির্বাচনে ৪২টি ভোট বাতিল বলে গণ্য হওয়ায় বৈধ ভোটের সংখ্যা ১৩০৩১টি। ভোট প্রদানের হার শতকরা ৬৫ দশমিক ৫৪ ভাগ।

নির্বাচনে বিভিন্ন ওয়ার্ড থেকে মেম্বার পদে নির্বাচত হলেন ১নং ওয়ার্ডে মামুন মিয়া, ২নং ওয়ার্ডে শাহজাহান মিয়া, ৩নং ওয়ার্ডে বাবলু মিয়া, ৪নং ওয়ার্ডে ছদর আলী, ৫নং ওয়ার্ডে কবির মিয়া, ৬নং ওয়ার্ডে শেখ রেজওয়ান পারভেজ, ৭নং ওয়ার্ডে জাহাঙ্গীর আলম, ৮নং ওয়ার্ডে মাহফুজুর রহমান মামুন ও ৯নং ওয়ার্ডে মুতিউর রহমান।

সংরক্ষিত ওয়ার্ডের মহিলা মেম্বার পদে নির্বাচিতরা হলেন ১, ২ ও ৩নং ওয়ার্ডে সাজেরা বেগম, ৪, ৫ ও ৬নং ওয়ার্ডে দোলেনা বেগম এবং ৭, ৮ ও ৯নং ওয়ার্ডে সাবেরা খাতুন।

সকাল ৮টা থেকে বিকাল ৪টা পর্যন্ত সকল ভোটকেন্দ্রে ইভিএম-এ একটানা ভোটগ্রহণ অনুষ্ঠিত হয়। ভোট শেষে প্রিসাইডিং অফিসাররা স্ব-স্ব কেন্দ্রে ফলাফল জানিয়ে দেন।

পরে উপজেলা নির্বাচন অফিস থেকে উপজেলা নির্বাচন অফিসার ও রিটার্নিং অফিসার আরমান ভূঁইয়া আনুষ্ঠানিকভাবে ফলাফল ঘোষণাসহ লিখিত রেজাল্ট সিট প্রদান করেন।

নির্বাচন চলাকালে প্রতিদ্বন্দ্বি প্রার্থী, তাদের এজেন্টসহ ভোটাররা নির্বাচন সুষ্ঠু হওয়ার কথা গণমাধ্যমকে জানান।

অবাধ, সুষ্ঠু ও শান্তিপূর্ণ নির্বাচন অনুষ্ঠানে প্রশাসন ছিল অত্যন্ত কঠোর অবস্থানে। পুলিশ সুপার এসএম মুরাদ আলী, ইউএনও পদ্মাসন সিংহ, উপজেলা পরিষদের চেয়ারম্যান আবুল কাশেম চৌধুরীসহ গণমাধ্যমকর্মীরা দিনভর বিভিন্ন কেন্দ্র পরিদর্শন করেন।

ভোটগ্রহণ চলাকালে কোথাও কোনো ধরনের অপ্রীতিকর ঘটনা না ঘটলেও ফলাফল ঘোষণার পর রাত ৮ টার দিকে ৩নং ওয়ার্ডে নির্বাচিত মেম্বার ও এক পরাজিত প্রার্থীর সমর্থকদের মধ্যে সংঘর্ষের খবর পাওয়া যায়।

নির্বাচনে জেলা, উপজেলা ও ইউনিয়ন আওয়ামীলীগ এবং সহযোগি সংগঠন সমূহের বিপুল সংখ্যক নেতা-কর্মীরা প্রতিদিন কাজ করলেও কেনো আওয়ামীলীগের প্রার্থীকে পরাজিত হতে হলো এনিয়ে আলোচনা-সমালোচনা শুরু হয়েছে।

অনেককে দলীয় লোকজন বেঈমানী করেছে বলে মন্তব্য করতে শোনা যায়।

Developed By The IT-Zone