ঢাকামঙ্গলবার , ২ ফেব্রুয়ারি ২০২১
আজকের সর্বশেষ সবখবর

বানিয়াচংয়ে ৮ মাস ধরে পলাতক ইউপি চেয়ারম্যান হাবিব ! ব্যাহত হচ্ছে নাগরিক সেবা

দৈনিক আমার হবিগঞ্জ
ফেব্রুয়ারি ২, ২০২১ ৭:২১ অপরাহ্ণ
Link Copied!

মোফাজ্জল ইসলাম সজীব।। হবিগঞ্জ জেলা বানিয়াচুং উপজেলার ৭ নং বড়ইউড়ি ইউনিয়ন পরিষদ। বর্তমান সরকার দলীয় চেয়ারম্যান হাবিবুর রহমান হাবিব। কালাম হত্যা মামলায় ৮ মাস যাবৎ পলাতক রয়েছন।
নবীগঞ্জ উপজেলার কালিয়ার ভাঙ্গা ইউপির শিবগঞ্জ বাজারের পাশে উমরপুরের এম এ খালেক স্বাস্থ্য কমল্পেক্সের সামনে বানিয়াচং উপজেলার ৭ নং বড়ইউড়ি ইউনিয়নের হলদারপুর গ্রামের বাসিন্দা ও ইউপি আওয়ামী লীগের শ্রম বিষয়ক সম্পাদক কামাল মিয়া (৩৫) বিগত ২০২০ সালের ২২ জুলাই হত্যার মামলায় হাবিবুর রহমান হাবিবকে  প্রধান আসামি করে তিনদিন পরে  নবীগঞ্জ থানায় নিহত কামালের স্ত্রী রাজনা আক্তার বাদি হয়ে এই মামলা দায়ের করেন।

ছবি : বানিয়াচং উপজেলার ৭নং বড়ইউড়ি ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান ডাবল মার্ডার পলাতক আসামি হাবিবুর রহমান হাবিব এর ফাইল ছবি

সারাদেশে  প্রতিবাদ বিরোধী অভিযান শুরুর পরপরই আত্মগোপনে চলে যান ডাবল মাডার মামলার আসামি  হিসেবে অভিযুক্ত  ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান হাবিবুর রহমান হাবিব । তার দীর্ঘ অনুপস্থিতিতে ভেঙে পড়েছে ইউনিয়ন পরিষদের নাগরিক সেবাসহ উন্নয়ন কার্যক্রম।  একইসঙ্গে বেড়েছে অনিয়ম-দুর্নীতি। জেলা প্রশাসন ও আইনশৃঙ্খলা বাহিনীর চোখ ফাঁকি দিয়ে গোপনে কাগজপত্র ও রেজুলেশনে স্বাক্ষর করছেন বলে অভিযোগ পাওয়া গেছে। বর্তমান ৭ নং ইউপির সচিব শাহজাহান আহমেদ দৈনিক আমার হবিগঞ্জের কাছে বিষয়টি নিশ্চিত করেছেন।
অভিযোগ রয়েছে, সারা বছরই বড়ইউড়ি  ইউনিয়নের  আসছে না। মামলার আইনশৃঙ্খলা বাহিনীর চোখকে ফাঁকি দিয়ে খুব সহজেই দেশের বিভিন্ন প্রান্তে চলে বসবাস করছেন পলাতক ইউপি চেয়ারম্যান হাবিবুর রহমান হাবিব। স্থানীয়রা জানান হত্যা মামলার অভিযান শুরুর পরপরই গা ঢাকা দিয়েছেন তিনি।
এদিকে চেয়ারম্যানের অনুপস্থিতিতে ইউনিয়ন পরিষদে অরাজক পরিস্থিতি তৈরি হয়েছে বলেও অভিযোগ এলাকাবাসীর।
সেবা নিতে আসা  ইউনিয়নের নাগরিকরা বলেন, ‘চেয়ারম্যানের অনুপস্থিতির থাকার কারণে তথ্য উদ্যোক্তা জন্মনিবন্ধনের শীল স্বাক্ষর নিতে খুব  হয়রানি ও কষ্ট  হচ্ছে। সেবা নিতে আসা আরও অনেকেই চেয়ারম্যান কোথায় জানতে চাইলে আমরা জানি বলে জানান ইনিয়ন সচিব শাহজাহান।
এসব অভিযোগের বিষয়ে ইউনিয়ন এক সদস্য জানান  ‘পলাতক চেয়ারম্যান  আত্ম গোপন থেকে কাগজপত্রে স্বাক্ষর দেন  ঠিকই কিন্তুু সসম্মুখে পরিষদের  উপস্থিত না থাকায় খুব  সমস্যা হচ্ছে । তবে পরিষদে দ্বন্দ্ব থাকায় এবং চেয়ারম্যান প্রভাবশালী হওয়ায় তার ওপর অনাস্থা যেমন  আনা যাচ্ছে না, তেমনি এলাকাবাসীও তার  ভয়ে মুখ খোলার সাহস দেখাতে পারছেন না।’
প্যানেল চেয়ারমানের দ্বায়িত্ব কাউকে দেওয়া হচ্ছে না। প্যানেল চেয়ারম্যান ফারুক আহমেদ বলেন, আমি নামেমাত্র প্যানেল চেয়ারম্যান। আমাকে কোনও নির্বাহী ক্ষমতা দেননি চেয়ারম্যান। উল্টো চেয়ারম্যান প্রতাপশালী হওয়ায় স্বশরীরে পরিষদে উপস্থিত না থেকেও আইন লঙ্ঘন করে গোপনস্থান থেকে গুরুত্বপূর্ণ কাগজপত্র ও রেজুলেশনে স্বাক্ষর করে যাচ্ছেন।
প্যানেল চেয়ারম্যানরা জনগণের উন্নয়নে কাজ করতে পারবে না বলেই তাদের হাতে ক্ষমতা দেওয়া হয়নি।’ জনগনের নানান প্রশ্ন দীর্ঘদিন অনুপস্থিত থাকলে ও পলাতক চেয়াম্যান প্যানেল চেয়ারম্যানের কাছে কেন দায়িত্ব হস্তা্ন্তর করা হচ্ছেনা সোট আমার বোধগম্য নয়।এসব কর্মকান্ড প্রশাসনের ঊর্ধ্বতন কর্মকর্তাদের ম্যানেজ করেই কাজ করছেন বলেও তিনি জানান ।
এ ব্যাপারে পলাতক চেয়ারম্যান হাবিবুর রহমান হাবিব এর সঙ্গে ফোনে যোগাযোগ করা হলে তার মোবাইল ফোনটি বন্ধ পাওয়া যায়।
নাম প্রকাশে অনিচ্ছুক একজন  বলেন, ‘গোপনস্থান থেকে মোবাইল ব্যবহার করে এবং বড়ইউড়ি  ইউনিয়ন পরিষদের অধীনস্থদের মাধ্যমে কাগজপত্র সই করছেন চেয়ারম্যান হাবিবুর রহমান হাবিব । থানায় একাধিক মামলা রয়েছে তার বিরুদ্ধে। তবে সে দ্রুত মোবাইল সিম পরিবর্তন করার কারণে  তার অবস্থান চিহ্নিত করা যাচ্ছে না। কিন্তু দ্রুত তাকে ধরা পড়তেই হবে।’
নাম প্রকাশে অনিচ্ছুক জেলা প্রশাসকের স্থানীয় সরকার বিভাগের এক কর্মকর্তা জানান, স্থানীয় সরকার অধ্যাদেশ-২০০৯ এর ৪০ ধারায় উল্লেখ আছে, বছরে চেয়ারম্যানরা তিন মাস ছুটি নিতে পারবেন। তবে যথাযথ কারণ জানিয়ে জেলা প্রশাসকের কাছ থেকে এর অনুমোদন নিতে হবে। অথচ ডাবল মাডার মামলার আসামি বড়ইউড়ি  ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান  তা অনুসরণ না করেই দীর্ঘ আট মাস ধরে পলাতক রয়েছেন।’
এ ব্যাপারে উপজেলা চেয়ারম্যান মোঃ আবুল কাসেম চৌধুরীর সাথে যোগাযোগ করা হলে তার ফোনে বার বার কল দিলেও ফোন রিসিভ করেননি। এলাকাবাসী জানিয়েছেন, কিছু দিনের ভিতরে আমরা এলাকাবাসী মিলে বানিয়াচং উপজেলার ইউএনও ও উপজেলা  চেয়ারম্যান পরিষদে লিখিত অভিযোগ দায়ের করব। কামাল হত্যা একটা চাঞ্চল্যকর ঘটনা । আমাদের এমপি মহোদায়সহ বিষয়টি জানেন। বিস্তারিত জানতে বানিয়াচং উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা মাসুদ রানার সাথে যোগাযোগ করা হলে তার ব্যবহৃত ফোনটি ব্যস্ত থাকায় জানা সম্ভব হয়নি।

Developed By The IT-Zone