ঢাকাTuesday , 25 June 2024
আজকের সর্বশেষ সবখবর

বানিয়াচংয়ে স্কুলের জমিতে জোরপূর্বক ঘর নির্মাণ : জানেন না প্রধান শিক্ষক

এম এ রাজা
June 25, 2024 10:08 am
Link Copied!

আওয়ামী লীগ নেতা পরিচয় দিয়ে স্কুলের জমিতে রফিকুল ইসলাম রবি নামের এক ব্যক্তি জোরপূর্বক দোকান ঘর নির্মাণ করেছেন। ঘটনাটি ঘটেছে বানিয়াচং উপজেলার কাগাপাশা ইউনিয়নের বাগাতা গ্রামের একতা উচ্চ বিদ্যালয়ে। রবি ওই এলাকার বাসিন্দা আব্দুর নুর মোল্লার ছেলে।

একতা উচ্চ বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষক আব্দুল মন্নান চুকদার জানান, স্কুলের পুকুরের পূর্ব পাশে রবি নামের ওই ব্যক্তি মাটি ভরাট করে দোকান ঘর তৈরি করেছেন। এ বিষয়ে আপনার সাথে আলোচনা বা কোন চুক্তিপত্র হয়েছে কিনা এই প্রশ্নের জবাবে তিনি বলেন, না আমাকে কেউ কিছু বলেনি। আপনাকে না জানিয়ে জোরপূর্বক স্কুলের জমিতে ঘর নির্মাণ করল আপনি বাধা দিলেন না কেন? এই প্রশ্নের জবাবে তিনি বলেন, আমি বাহিরের লোক তারা স্থানীয় প্রভাবশালী আমি বাধা দিতে গেলে তারা আমার উপরে আক্রমণ করতে পারে।

স্কুল কমিটির সভাপতি.ওসমান গণি জানান, রবি আমাদের সাথে আলোচনা করেই ঘর তৈরি করেছে। বিষয়টি প্রধান শিক্ষক জানেন না কেন এই প্রশ্নের জবাবে তিনি কোন সৎ উত্তর দিতে পারেননি। কোন সরকারি প্রতিষ্ঠানে বিধি মোতাবেক রেজুলেশন তৈরি করে আয় ব্যয় এর হিসাব দেখিয়ে তারপর দোকান বা মার্কেট তৈরি করতে হয়। আপনারা কি সেই বিধি মোতাবেক কোন রেজুলেশন তৈরি করেছেন এই প্রশ্নের জবাবেও তিনি কোন সদ উত্তর দিতে পারেননি। তিনি বলেন মৌখিকভাবে আমার সাথে আলোচনা হয়েছে।

জেলা মাধ্যমিক শিক্ষা অফিসার মোহাম্মদ রুহুল্লাহ বলেন, স্কুলের জমিতে কোন স্থাপনা তৈরী করতে হলে বিধি মোতাবেক রেজুলেন তৈরী করতে হবে। কেউ যদি এর বাহিরে গিয়ে পেশি শক্তি দেখিয়ে কিছু করে তাহলে তাদের বিরুদ্ধে আইন অনুযায়ী ব্যবস্থা গ্রহণ করা হবে। নাম প্রকাশে অনিচ্ছুক ওই গ্রামের স্থানীয় বাসিন্দা এক ব্যক্তি বলে, মূলত স্কুলের সভাপতি ওসমানের যোগ সাজেসে রবি ওইখানে দোকান ঘর তৈরি করেছে। এই ঘর থেকে আয় হওয়া টাকা দুইজনে ভাগবাটোয়ারা করে খাবে।

জানা যায়, উপজেলার একতা উচ্চ বিদ্যালয়ের সামনের পুকুরের প্রায় ৩ শতাংশ জায়গায় মাটি ভরাট করে দোকান ঘর নির্মাণ করেন ওই ব্যক্তি। রবিবার (২৩ জুন) দুপুরে সরজমিনে গিয়ে দেখা যায়, স্কুলের পুকুরের পূর্ব দিকে (আনন্দবাজার সংলগ্ন) বাজার ঘেঁষে মাটি ভরাট করে প্রায় দুই থেকে আড়াই শতাংশ জমিতে একটি দোকান নির্মাণ করেছেন রবি।

নিয়ম-নীতির তোয়াক্কা না করে স্কুলের ভূমিতে রাতারাতি স্থায়ী ভাবে পাকা দোকান ঘর নির্মাণ করায় ওই এলাকার মানুষের মধ্যে আলোচনা সমালোচনার ঝড় বইছে। নাম প্রকাশে অনিচ্ছুক একাধিক ব্যক্তি জানান, রবি নিজেকে কখনো স্থানীয় এমপির লোক, আবার কখনো উপজেলা চেয়ারম্যানের লোক হিসেবেও পরিচয় দেয়। এছাড়াও সে নিজেকে একজন আওয়ামী লীগের একজন বড় নেতা হিসেবেও পরিচয় দেয়। এলাকায় সে ত্রাসের রাজত্ব কায়েম করেছে।

এ বিষয়ে রফিকুল ইসলাম রবির সাথে মোবাইল ফোনে যোগাযোগ করলে তিনি দোকান ঘর তৈরীর কথা স্বীকার করে বলেন, আমি গত প্রায় এক বছর আগে স্কুলের জমিতে মাটি ভরাট করেছি এখন ঘর তৈরি করতেছি। তবে স্কুল কমিটির সাথে আলোচনা সাপেক্ষেই সবকিছু হয়েছে। দোকান তৈরীর কথা স্কুলের প্রধান শিক্ষক কেন জানেন না এই প্রশ্নের জবাবে তিনি কোন সদ উত্তর দিতে পারেননি। তিনি বলেন যদি আমার ঘর তৈরিতে তাদের যদি কোন ধরনের অভিযোগ থাকে তাহলে স্কুল কর্তৃপক্ষকে দোকান ঘর ফেরত দিয়ে দিব।