ঢাকাশনিবার , ৭ মে ২০২২
আজকের সর্বশেষ সবখবর

বানিয়াচংয়ে সংঘর্ষের ঘটনায় ই্উপি চেয়ারম্যান ধন মিয়া ও ইকবাল বাহারসহ ৯৫ জনের নাম উল্লেখ করে পুলিশের মামলা

স্টাফ রিপোর্টার
মে ৭, ২০২২ ১১:০১ পূর্বাহ্ণ
Link Copied!

বানিয়াচং উপজেলা সদরের ২নং উত্তর-পশ্চিম ইউনিয়নে ছান্দ সর্দার নিয়ে বিরোধের জেরে ইউপি চেয়ারম্যান হায়দারুজ্জামান ধন মিয়া ও সাবেক উপজেলা পরিষদের ভাইস চেয়ারম্যান ইকবাল বাহার খানের লোকজনের মধ্যে সংঘর্ষের ঘটনার ১ দিন পর ৯৫ জনের নাম উল্লেখ এবং অজ্ঞাত ৪ থেকে ৫শ জনের বিরুদ্ধে পুলিশ এসল্ট মামলা দায়ের করা হয়েছে।

শুক্রবার(৬মে) রাত সাড়ে ৯টা পর্যন্ত পাওয়া তথ্য মতে, এ ঘটনায় ৩৯ জনকে গ্রেফতার করেছে পুলিশ। রাতেই মামলা দায়েরের বিষয়টি নিশ্চিত করেছেন বানিয়াচং থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) মোহাম্মদ এমরান হোসেন।

এর আগে থানার উপ-পরিদর্শক (এসআই) সন্তোষ চৌধুরী বাদী হয়ে এই পুলিশী এসল্ট মামলাটি দায়ের করেন। ওসি মোহাম্মদ এমরান হোসেন দৈনিক আমার হবিগঞ্জ’কে জানান, ঘটনার পর পৃথক-পৃথক সময়ে পুলিশ ৩৯ জনকে গ্রেফতার করেছে। বাকি আসামিদের গ্রেফতারে অভিযান অব্যাহত রয়েছে।

তাৎক্ষণিকভাবে গ্রেফতারকৃতদের পরিচয় জানায়নি পুলিশ। ওসি মোহাম্মদ এমরান হোসেন আরও জানান, এ মামলায় ৯৫ জনের নাম উল্লেখ এবং বাকীদের অজ্ঞাত রেখে ঘটনার মূল পরিকল্পনাকারী সাবেক উপজেলা পরিষদের ভাইস চেয়ারম্যান ইকবাল বাহার খান এবং ইউপি চেয়ারম্যান হায়দারুজ্জামান ধন মিয়াকে আসামী করা হয়েছে।

এদিকে, দুপক্ষের সংঘর্ষে আহত ও বাড়ীঘর ভাংচুরের পর গতকাল (শুক্রবার) ঘটনাস্থল পরিদর্শন করেছেন হবিগঞ্জের পুলিশ সুপার এসএম মুরাদ আলি,অতিরিক্তি পুলিশ সুপার (বানিয়াচং সার্কেল) পলাশ রঞ্জন দে। এর আগে গত বৃহস্পতিবার সারাদিন দুই পক্ষের সংঘর্ষে অন্তত আহত হয়েছেন শতাধিক লোকজন।

সংঘর্ষ চলাকালে প্রকাশ্যে বন্দুক দিয়ে গুলি চালান ইউপি চেয়ারম্যান হায়দারুজ্জামান ধন মিয়া। তার এই গুলি চালানোর ফলে অপর পক্ষের প্রায় ৩০/৪০ জন ব্যক্তি আহত হয়।

বৃহস্পতিবার বেলা ১১টার দিকে ইউনিয়নের সৈদ্যরটুলা পুকুর পাড়ে এই সংঘর্ষের ঘটনা ঘটে। সংঘর্ষের পর থেকে আজ পর্যন্ত এলাকায় থমথমে অবস্থা বিরাজ করছে। তবে অনাকাঙ্থিত পরিস্থিতি এড়াতে এলাকায় অতিরিক্ত মোতায়েন রয়েছে ।

জানা যায়, সৈদ্যরটুলা গ্রাম্য সর্দার নিয়োগ নিয়ে দীর্ঘদিন ধরে বর্তমান চেয়ারম্যান হায়দারুজ্জামান খান ধন মিয়া ও সাবেক উপজেলা পরিষদের ভাইস চেয়ারম্যান ইকবাল বাহার খানের লোকদের মধ্যে দ্বন্দ্ব চলে আসছিল। কিছুদিন পূর্বে সৈদ্যরটুলা মহল্লায় এড. নজরুল ইসলাম খানকে সর্দার নির্বাচিত করে এলাকাবাসী। অন্যদিকে চেয়ারম্যান ধন মিয়াকে এই মহল্লা কমিটির উপদেষ্টা করা হয়।

এছাড়াও লক্ষ্মীবাওর জলাবন নিয়ে ধন মিয়া চেয়ারম্যান ও নির্বাচিত সর্দার এবং এলাকাবাসীর মধ্যেও দ্বন্দ্ব বিরাজ করছে। এদিকে গত বুধবার চেয়ারম্যান ধন মিয়াকে ছান্দের উপদেষ্টা পদ থেকে বহিষ্কার করে বর্তমান সৈদ্যরটুলা ছান্দের লোকরা।

বিষয়টি নিয়ে উভয় পক্ষের লোকজনদের মধ্যে বিগত কয়েকদিন যাবত উত্তেজনা দেখা দেয়। এরই জের ধরে বৃহস্পতিবার দুই পক্ষের মধ্যে সংঘর্ষের ঘটনা ঘটে।

সংঘর্ষের একপর্যায়ে ইউপি চেয়ারম্যান ধন মিয়া তার নিজস্ব বন্দুক দিয়ে নিরীহ লোকদের উপর প্রকাশ্যে মুহুর্মুহু গুলি চালান। এই গুলির ফলে সাবেক ভাইস চেয়ারম্যান ইকবাল বাহার খানসহ আহত হয় প্রায় ৩০/৪০ জন। বন্দুক নিয়ে ধন মিয়া তার বসতবাড়ি থেকে প্রায় ১ কিলোমিটার পার হয়ে এসে নিরীহ এলাকাবাসীর উপর গুলিবর্ষণ করেন।

তার এই অস্ত্র চালানোর ভিডিও সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে মুহুর্তের মধ্যে ভাইরাল হয়ে পড়ে। এদিকে খবর পেয়ে বানিয়াচং থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা এমরান হোসেন এর নেতৃত্বে একদল পুলিশ ঘটনাস্থলে পৌছে ২৪ রাউন্ড টিয়ারশেল ও শতাধিক রাবার বুলেট নিক্ষেপ করে সংঘর্ষ নিয়ন্ত্রণে আনে। এসময় সংঘর্ষ থামাতে গিয়ে থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা এমরান হোসেনসহ ৮/১০জন পুলিশ সদস্য আহত হন।

Developed By The IT-Zone