ঢাকাWednesday , 10 January 2024
আজকের সর্বশেষ সবখবর

বানিয়াচংয়ে শীতকালীন সবজি চাষে স্বাবলম্বী অনেক কৃষক

Link Copied!

বানিয়াচংয়ে দিগন্ত জুড়ে আগাম শীতের সবজির সমারোহ। সবজি চাষ করে স্বাবলম্বী হয়েছেন অনেক কৃষক। তাই এখানকার কৃষকরা ধান চাষের পাশাপাশি সবজি চাষে বেশি আগ্রহী হয়ে উঠছেন। বানিয়াচং-আজমিরীগঞ্জ ও নবীগঞ্জ-বানিয়াচং রাস্তার দুই পাশে নানা জাতের সবজি চাষ করে যাচ্ছেন চাষীরা।

তাদের ফলানো সবজি জেলার বিভিন্ন উপজেলা থেকে শুরু করে আশেপাশের উপজেলাগুলোতে ও বিক্রির জন্য নিয়ে যাচ্ছেন ব্যবসায়ীরা। লালশাক, পুঁইশাক, পালংশাক, লাউশাক, বুত্তাশাক, দারাশাক, মুলাশাক ও কলমিশাক আর করলা, টমেটো,ফুলকপি,বাঁধাকপি, বেগুন, বরবটি ও সিম চাষ তুলনামূলক বেশিই হয়ে থাকে।

এসব চাষ করেই দরিদ্রতা থেকে মুক্তি পেয়েছে অনেক পরিবার হয়েছে স্বাবলম্বীও। তাই নিজের জমি না থাকলেও অন্যের জমি বর্গা নিয়ে হলেও শাক-সবজি চাষে সফল ও স্বাবলম্বী হতে ব্যস্ত সময় পার করেছেন সবজি চাষীরা।

বানিয়াচংয়ের বিভিন্ন ইউনিয়ন ঘুরে দেখা গেছে, রাস্তার উভয় পাশ জুড়ে শুধু সবজির আবাদ। খামার-ক্ষেতে ব্যস্ত কৃষাণ-কৃষাণীরা। এখানকার সবজি চাষীরা জানান, তারা বরাবরই শাক-সবজি চাষ করে আসছেন। এতে তারা সফলও।

তাদের মতামত, সরকারি সংস্থাগুলো যদি তাদের চাষকৃত শাক-সবজির উৎপাদন বাড়াতে আর একটু সতর্ক নজর রাখে তাহলে আরও সফল ও লাভবান হওয়া সম্ভব। সবজির চাহিদা বাড়তে শুরু করেছে। ফুলকপি, বাঁধাকপি, মিষ্টি ও চালকুমড়া, ঢেঁড়স, শসা, করলা, বেগুনসহ নানান জাতের সবজি চাষে ব্যস্ততার মধ্য দিয়ে দিন পার করছে চাষীরা।

উপজেলা সদরের শেখের মহল্লার সবজি চাষি সুমন মিয়া জানান, এ বছর ৪০ শতক জমিতে বাঁধাকপি, ৩০ শতক জমিতে ফুলকপি, ৩০ শতক জমিতে বেগুন, ৪০ শতক জমিতে মূলা ও ২০ শতক জমিতে লাউসহ টমেটা চাষ করছি। ইতিমধ্যে ফুলকপি, টমেটো বিক্রি করাও শুরু হয়েছে।

৩নং ইউনিয়নের দেশমুখ্যপাড়ার সাবির হোসাইন জানান,৩৩ শতক জমিতে বাঁধাকপি ও ২০ শতক জমিতে ফুলকপি লাগিয়েছি। ফলনও ভালো হয়েছে।

চাষীরা জানান, গত বছর তারা দাম ভাল পেয়েছেন। এবারও ভালো বিক্রির আশা করছেন। তবে শ্রমিক ও কৃষি উপকরণের দাম বেশি হওয়ার কারণে খুব বেশি লাভ হচ্ছে না। এই তো কদিন আগেও যে সব পতিত জমি পড়েছিল অনাবাদি হিসেবে সে সব জমিতে সবজি চাষ করে যাচ্ছেন তারা।

এ ব্যাপারে উপজেলা কৃষিকর্মকর্তা কৃষিবিদ এনামুল হক জানান, কৃষি বিভাগ থেকে আগাম সবজি চাষের জন্য কৃষকদের সব ধরনের সহযোগিতা দেয়া হচ্ছে। এ ছাড়া কৃষকরা যেন সহজেই কীটনাশক, বীজ, সার ও উৎপাদন সহায়ক যন্ত্রপাতি পান সেজন্য সহকারি কৃষি কর্মকর্তা ও ব্লক সুপারভাইজাররা নিয়মিত তদারকি করে থাকেন।