ঢাকাTuesday , 12 December 2023
আজকের সর্বশেষ সবখবর

বানিয়াচংয়ে শীতকালীন পিঠা বিক্রির ধুম

Link Copied!

ডিসেম্বর মাস থেকে ফেব্রুয়ারী মাস পর্যন্ত চলে শীতকাল।তবে এবার ডিসেম্বর মাস শুরু হলেও এখন ও মিলছেনা শীতের দেখা। শীত শুরু না হলেও থেমে নেই শীতকালীন পিঠা বিক্রি।

বানিয়াচংয়ে রীতিমত শীতকালীন পিঠা বিক্রির ধুম পড়েছে। প্রতিদিন বিকাল থেকে পিঠা বিক্রি শুরু হলেও সন্ধ্যা নামার সাথে সাথে বাড়ে পিঠা বিক্রি যা চলে রাত ১০টা পর্যন্ত।

সরেজমিনে বানিয়াচংয়ের বড় বাজার ঘুরে দেখা যায়, বাজারের বিভিন্ন অলিগলিতে রাস্তার মোড়ে চলছে শীতকালীন পিঠা বিক্রি। এর মধ্যে রয়েছে চিতই পিঠা, ভাপা পিঠা, ভর্তা পিঠা,মাছের পিঠাসহ হরেক রকম পিঠা সাথে থাকছে লাল মরিচ,কাচা মরিচ বাটা,সর্ষে ভর্তা সহ মুখরোচক বিভিন্ন রকম ভর্তা।

ভাপা পিঠা ও চিতই পিঠার চাহিদা খুবই বেশি। প্রতি পিস ভাপা পিঠা ১০ টাকা, চিতই পিঠা ১০ টাকা, ভর্তা পিঠা ৫ টাকা, মাছের পিঠা ২০ টাকা দরে বিক্রি হচ্ছে।

এসময় পিঠা খেতে আসা বড়-বাজারের ব্যবসায়ী মুশাহিদ মিয়ার সাথে কথা হলে তিনি বলেন, আমি প্রায় প্রতিদিন রাতে দোকান-পাট বন্ধ করে বাড়িতে যাওয়ার সময় পিঠা খেতে আসি। ভালো লাগে তাই নিয়মিত খাই।

পিঠা খেতে আসা আরেকজন আবিদ মিয়ার সাথে কথা হলে তিনি বলেন, বিভিন্ন ব্যস্ততা থাকার কারণে বাড়িতে পিঠা খাওয়ার সময় হয়ে উঠেনা। তাই এখানে পিঠা খেতে আসি। রাস্তার পাশে পিঠা বিক্রি হওয়ার কারণে পিঠা খাওয়ার একটু সুযোগ পাওয়া যায়। পিঠা খাওয়ার পর আবার অনেককে পরিবারের জন্য ও পিঠা নিতে দেখা যায়।

এসময় শহীদ মিনার চত্ত্বরের পিঠা বিক্রেতা মখলিছ মিয়ার সাথে কথা হলে তিনি বলেন, গত বছরের তুলনায় এবার প্রতিটি উপকরণের দাম বৃদ্ধি পেলও আমরা গত বছরের দামেই পিঠা বিক্রি করছি।

প্রতিদিন পাচ-সাত ধরনের পিঠা তৈরি করি। পিঠা বিক্রির উপকরণের দাম বৃদ্ধি পাওয়ায় লাভ কম হয়। খরচ বাদ দিয়ে প্রায় ৭-৮ শত টাকা টাকা লাভ হয়। এই টাকা দিয়েই কোনো সংসার চালাচ্ছি।