ঢাকাবুধবার , ২১ সেপ্টেম্বর ২০২২
আজকের সর্বশেষ সবখবর

বানিয়াচংয়ে শিক্ষকদের গলার কাঁটা গ্রামীণফোনের ৩শ কর্পোরেট সিম

রায়হান উদ্দিন সুমন
সেপ্টেম্বর ২১, ২০২২ ৬:৩৮ অপরাহ্ণ
Link Copied!

বানিয়াচংয়ে অফিসিয়ালি কোন নির্দেশনা ছাড়া উপজেলার সাবেক প্রাথমিক শিক্ষা অফিসার শফিকুল ইসলাম সরকার সম্পুর্ণ নিজের উদ্যোগে বানিয়াচং উপজেলার প্রাথমিক বিদ্যালয়ের ৩শ জন শিক্ষকদের মধ্যে অফিসিয়াল কাজের ব্যবহার করার জন্য বানিয়াচং তোপখানা সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষক আবু ইউসুফের ফিঙ্গার প্রিন্ট ও ভোটার আইডি নাম্বার দিয়ে গ্রামীণ ফোন থেকে ৩শ পোস্টপেইড সিম উত্তোলন করান শফিকুল ইসলাম সরকার।

পরবর্তীতে এই সিমগুলো নিজ নিজ বিদ্যালয়ের শিক্ষকদের মধ্যে বিতরণ করেন তিনি। কিন্তু সিম গুলো কোন টাইপের বা কিভাবে বিল পরিশোধ করতে হবে সেগুলো শফিকুল ইসলাম সরকার কাউকে কোন কিছু জানান নি।

গ্রামীণ ফোন থেকে মোটা অংকের আর্থিক সুবিধা নিয়ে এই সিমগুলো এক কথায় শিক্ষকদের মধ্যে জোর করে চাপিয়ে দিয়েছেন বলে নাম প্রকাশে অনিচ্ছুক একাধিক শিক্ষক এই প্রতিনিধিকে জানিয়েছেন।

খোঁজ নিয়ে জানা যায়,এই সিমগুলো দেশের অন্য কোনো বিদ্যালয়ে এইভাবে কোনো শিক্ষা অফিসার বিতরণ করেন নি। এমনকি সরকারি ভাবে কোন পরিপত্রও জারি করা হয়নি যে এভাবে সিম ব্যবহার করতে হবে।

শিক্ষকদের ব্যাক্তিগত নাম্বার থাকার পরেও গ্রামীণফোনের এই পোস্টপেইড সিমগুলো প্রদান করায় এখন তাদের গলার কাঁটা হয়ে দাঁড়িয়েছে। এসব সিম সাধারণ কর্পোরেট বা ব্যবসায়ীক কাজে ব্যবহৃত হয়ে থাকে।

গত জুন মাসে শফিকুল ইসলাম সরকার বানিয়াচং উপজেলা থেকে শাস্তিমুলক বদলী হওয়ার পরপরই শুরু হয় সিম নিয়ে নানা জটিলতা। দায়িত্বপ্রাপ্ত উপজেলা শিক্ষা অফিসার উত্তম কুমার দাস জুলাই মাসের মাসিক সমন্বয় সভায় এই সিম ফেরত দেয়া হবে বলে উপস্থিত শিক্ষকদের জানিয়ে দেন।

পরবর্তীতে সিমগুলো গ্রামীণফোন ফেরত দেয়ার মর্মে চিঠি লিখেন তৎকালীন ভারপ্রাপ্ত শিক্ষা অফিসার উত্তম কুমার দাস। গ্রামীণফোন তাদের চিঠির প্রতি উত্তরে জানিয়েছে ৩শ সিম ব্যবহারকারীদের কাছে গ্রামীণফোনের বিল বাবদ পাওনা রয়েছে ১ লাখ ৪৭ হাজার টাকা। এই বিলের টাকা পরিশোধ করতে ও চিঠিতে বলা হয়।

নোয়াবাদ সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষক মনোয়ারা খাতুন জানান,অফিস থেকে যে সিমটা আমাকে চাপিয়ে দেয়া হয়েছিল সেটা আমি কয়েকদিন ব্যবহার করেছি। এখন যেন বিল আসছে এ বিষয়ে আমি কোন কিছু জানিনা।

শরীফখানী সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষক নাদির বখত সোহেলী এই বিষয়ে জানান,আমার ব্যক্তিগত সিম থাকার পরও এই সিমটা অফিস থেকে জোর করেই দেয়া হয়েছে। ব্যবহার করার পর যখন জানতে পারলাম এই সিমটা পোস্টপেইড তখন আর ব্যবহার করিনি।

এটা তৎকালীন শিক্ষা অফিসার শফিকুল ইসলাম সরকার তার ব্যক্তি স্বার্থ চরিতার্থ করার জন্য এই সিমগুলো তিনি শিক্ষকদের কাছে প্রদান করেছেন।

আর যতটুকু জানি এই সিমগুলো নাকি একটি বিদ্যালয়ের শিক্ষককে ফাঁদে ফেলে তার ফিঙ্গার ও আইডি নাম্বার দিয়ে এগুলো উত্তোলন করেছেন শফিকুল ইসলাম সরকার।

এখন যে বিল আসছে সেটা আমরা পেইড করবো কেন। এক কথায় এটার দ্বায়ভার যাবে যে ফিঙ্গার প্রিন্ট ও আইডি নাম্বার নিয়ে এসব উঠিয়েছে তার এবং তৎকালীন শিক্ষা কর্মকর্তার। আর এসব সিম দিতে অফিসিয়ালি কোন পরিপত্র তো ছিলই না নির্দেশনা ও ছিলনা।

কথা হয় যার ফিঙ্গার প্রিন্টের মাধ্যমে এতগুলো সিম তোলা হয়েছে সেই তোপখান সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ের শিক্ষক আবু ইউসুফের সাথে। তিনি জানিয়েছেন,আমি মাত্র কয়েকটা ফিঙ্গার প্রিন্ট দিয়েছি। এতো সিম যে তোলা হবে সেটা আমি জানতাম না।

শিক্ষা অফিসের সাথে গ্রামীণফোনের কন্টাক্ট হয়েছিল। এই কন্টাক্ট পেপারে সাইন করেছেন তৎকালীন শিক্ষা অফিসার শফিকুল ইসলাম সরকার। তিনি আমার সাথে ব্ল্যাকমেইল করেছেন। তবে সরকারি কোন নির্দেশনা ছিল কিনা সেটা আমার জানা নেই।

এই বিষয়ে জানতে তৎকালীন প্রাথমিক শিক্ষা অফিসার শফিকুল ইসলাম সরকারের সাথে যোগাযোগ করা হলে তার ব্যবহৃত নাম্বারে একাধিকবার ফোন দিলেও তিনি ফোন ধরেন নি।

এ ব্যাপারে কথা হয় সহকারী শিক্ষা কর্মকর্তা উত্তম কুমার দাসের সাথে। তিনি জানান,এগুলো সিম যখন দেয়া হয়েছে তখন কিন্তু আমি দায়িত্বে ছিলাম না। তৎকালীন শিক্ষা অফিসার এ বিষয়ে ভালো বলতে পারবেন। তবে অফিসিয়ালি এসব সিম বিতরণ করতে হবে সরকারি কোন পরিপত্র নাই। এমনকি যখন আমি অন্য জায়গায় ছিলাম সেখানেও এসব সিম দেয়া হয়নি।

বিস্তারিত জানতে কথা হয় উপজেলা প্রাথমিক শিক্ষা অফিসার কবিরুল ইসলামের সাথে। তিনি এই প্রতিনিধিকে জানান,এসব সিম ব্যবহার করতে হবে এটা কোন সরকারি নির্দেশনা নাই। আগের শিক্ষা অফিসার কিভাবে কোনখাতে এগুলো বিতরণ করেছেন সেটা আমার বোধগম্য নয়। তবে এসব সিমের বিপরীতে যদি কোন বিল এসে থাকে তাহলে সেটা তো অফিস বহন করবেনা। সিমগুলো যে উত্তোলন করেছেন আর তখন যে দায়িত্বে ছিলেন সেটা তার উপর পরবে ।

Developed By The IT-Zone