ঢাকাবুধবার , ২৩ নভেম্বর ২০২২
আজকের সর্বশেষ সবখবর

বানিয়াচংয়ে প্রকাশ্যে বন্দুক দিয়ে পাখি হত্যার মিশনে নেমেছেন চেয়ারম্যান ধন মিয়া

তারেক হাবিব
নভেম্বর ২৩, ২০২২ ৯:৪৫ পূর্বাহ্ণ
Link Copied!

শীতের ভরা মৌসুমে বানিয়াচং উপজেলার বিভিন্ন হাওরাঞ্চলে অবাদে চলছে অতিথি পাখি শিকার। বানিয়াচং উপজেলা সদরের ২নং উত্তর-পশ্চিম ইউনিয়নে চেয়ারম্যান হায়দারুজ্জামান ধন মিয়া এই পাখি হত্যার মিশনে লিপ্ত হয়েছেন। প্রশাসনকে বৃদ্ধাঙ্গুল দেখিয়ে আইন অমান্য করে বন্দুক দিয়ে স্থানীয় হাওরে নিয়মিত শিকার করেছেন পাখি।

প্রত্যক্ষদর্শীরা জানান, হায়দারুজ্জামান ধন মিয়া ও তার কয়েকজন সহযোগীরা প্রকাশ্যে নদীতে এবং হাওরে জলচর ও হাঁস প্রজাতির অতিথি পাখি বন্ধুক দিয়ে গুলি করে শিকার করে নিয়ে যান।

এদিকে, বিষয়টি পাখি প্রেমিদের নজরে আসলে পাখি শিকারের ভিডিওটি মহুর্তের মধ্যেই ভাইরাল হয়ে যায় সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যম ফেসবুকে।

দৈনিক আমার হবিগঞ্জের হাতে আসা ভিডিওটি পর্যালোচনা করে দেখা যায়, কয়েকজন সহযোগীর মাধ্যমে নৌকাযোগে স্থানীয় কুশিয়ারা নদী পার হয়ে একটি বন্দুক দিয়ে জলচর ও হাঁস প্রজাতির অতিথি পাখির দলকে লক্ষ্য করে বন্ধুক দিয়ে গুলি ছুড়ছেন ইউপি চেয়ারম্যান ধন মিয়া। গুলিতে ৪/৫টি পাখি মারা গেলে কয়েকজন সহযোগী আবার সেগুলো তুলে রাখছেন নৌকায়।

বন্যপ্রাণী সংরক্ষণ ও নিরাপত্তা আইন ২০১২’তে বলা হয়েছে, পাখি নিধনের সর্বোচ্চ শাস্তি এক লাখ টাকা জরিমানা, এক বছরের কারাদণ্ড বা উভয় দণ্ড। একই অপরাধ পুনরায় করলে দুই লাখ টাকা জরিমানা, দুই বছরের
কারাদণ্ড বা উভয় দণ্ডের বিধান রয়েছে।

ব্যবহার নীতিমালা ২০১৬ অনুযায়ী ব্যক্তিগত আত্মরক্ষা ও অনুশীলন ছাড়া ভিন্ন ক্ষেত্রে আগ্নেয়াস্ত্র ব্যবহার শাস্তিযোগ্য অপরাধ এবং তাৎক্ষনিক ভাবে লাইসেন্স বাতিল করার বিধানও রয়েছে এই আইনে।

এছাড়াও ব্যক্তিগত আগ্নেয়াস্ত্র দিয়ে সাধারণ মানুষদের হত্যার উদ্দেশ্যে গুরুতর আহত করার অভিযোগও রয়েছে ইউপি চেয়ারম্যান ধন মিয়ার বিরুদ্ধে।

এর আগে, বানিয়াচং উপজেলা সদরের ২নং উত্তর-পশ্চিম ইউনিয়নে ছান্দ সর্দার নিয়ে বিরোধের জেরে প্রকাশ্যে বন্দুক দিয়ে গুলি চালান ধন মিয়া। তার এই গুলি চালানোর ফলে প্রায় ৩০/৪০ জন সাধারণ মানুষ আহত হয়েছেন বলে সুত্র নিশ্চিত করেছে।

নিয়ম বহিভূর্তভাবে বন্দুক চালানোতে অতিষ্ঠ হয়ে প্রতিকার চেয়ে একাধিক ভুক্তভোগী সংশ্লিষ্ট কর্তৃপক্ষের কাছে অভিযোগ দায়ের করেছেন বলে জানা গেছে।

বানিয়াচং উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা পদ্মাসন সিংহ জানান, বিষয়টি শাস্তিযোগ্য অপরাধ। সত্য হলে তদন্ত করে প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা গ্রহন করা হবে।

বানিয়াচং থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা অজয় দেব জানান, বিষয়টির কোন অভিযোগ পাওয়া গেলে তদন্ত করে প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা গ্রহন করা হবে।

Developed By The IT-Zone