ঢাকাবৃহস্পতিবার , ১২ মে ২০২২
আজকের সর্বশেষ সবখবর

বানিয়াচংয়ে ধানের উৎপাদন খরচের থেকে বাজার দর কম : কৃষকরা হতাশ

ইমদাদুল হোসেন খান
মে ১২, ২০২২ ৯:৫৩ অপরাহ্ণ
Link Copied!

বানিয়াচংয়ে বোরো ধানের উৎপাদন খরচের থেকে বাজার দর কম হওয়ায় কৃষকদের মধ্যে হতাশা দেখা দিয়েছে। কৃষকরা জানিয়েছেন প্রতিমণ ধানের উৎপাদন খরচ পড়েছে সাড়ে আটশত টাকার উপরে, কিন্তু আড়তদাররা মণপ্রতি সাড়ে ছয়শত টাকা থেকে ছয়শত সত্তর টাকায় ধান ক্রয় করছেন।

এদিকে গত ৮ মে থেকে এক হাজার আশি টাকা দরে সরকারের ধান সংগ্রহ অভিযান শুরু হলেও ইউনিয়ন পর্যায়ে ক্রয়কেন্দ্র না খোলায় এবং কৃষকদের কাছ থেকে গণহারে ধান ক্রয়ের পদক্ষেপ না নেয়ায় উপজেলার হাজার হাজার কৃষক সরকারের এ সুবিধা থেকে বরাবরের মতোই বঞ্চিত হচ্ছেন। ফলে কৃষকদের মধ্যে দুঃখ ও হতাশা বিরাজ করছে।

নন্দীপাড়া গ্রামের ক্ষুদ্র কৃষক গিয়াস উদ্দিন জানান, ঈদের পূর্বে তিনি হিরা ধান বিক্রির জন্য আড়তদারদের শরনাপন্ন হয়েছিলেন। ওইসময় প্রতিমণ ধানের বাজার দর ছিল সাড়ে ছয়শত টাকা। এত কম দর হওয়ায় ধান বিক্রি করেননি এবং পরিবারের কারও জন্য ঈদের পোশাক ক্রয় করতে পারেননি। ঈদের এক সপ্তাহ পর আড়তদারদের সাথে পুনরায় যোগাযোগ করলে বর্তমান বাজার দর ছয়শত সত্তর টাকা জানালেও উৎপাদন খরচের কম হওয়ায় বিক্রি করতে পারছেননা বলে এ প্রতিবেদককে বলেন।

দরগা মহল্লা গ্রামের আরেক ক্ষুদ্র কৃষক আবু তাহের বলেন, আমরা কৃষকরা যদি ধানের ন্যায্য দাম না পাই তাহলে কি করে সংসার চালাইবো?
ভাদাউড়ি গ্রামের কৃষক ও বোরো হাওরে পানি সেচদান প্রজেক্টের অংশীদার আব্দুল খালিক বলেন, প্রতি বছর ধান বিক্রির সিজন আসলে সারাদেশের আড়তদাররা সিন্ডিকেট করে ধানের বাজার দর কমায়।

বহু কৃষকরা ঋন করে জমিজমা করে ধান তুলে। ধান তোলার পর পাওনাদারদের চাপে ঋন পরিশোধের জন্য কম দামে ধান বিক্রি করতে বাধ্য হয়। সরকার এসব বিষয় চিন্তা করে যদি আড়তদাররা যাতে সিন্ডিকেট করে দর কমাতে না পারে সেই পদক্ষেপ নিতো, অথবা ধান বিক্রির সিজন আসলে স্কুল-কলেজ-মাদ্রাসা সাময়িক সময়ের জন্য বন্ধ রেখে এসব শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানে ক্রয়কেন্দ্র খুলে ওয়ার্ড বা ইউনিয়ন লেভেলে সরকারীভাবে কৃষকদের কাছ থেকে সরকারী দরে গণহারে ধান কেনা হতো তাহলে কৃষকরা উপকৃত হতো।

বাজার দর যাচাই করতে এ প্রতিবেদক বড়বাজারের বিশিষ্ট ধান ব্যবসায়ী আলহাজ্ব লুৎফুর রহমানের সাথে আলাপকালে তিনি জানান, বর্তমানে মোটা ধানের বাজার দর ছয়শত আশি টাকা এবং চিকন (সরু) ধানের বাজার দর সাতশত বিশ টাকা।

সরকারী ধান সংগ্রহের ব্যাপারে জানতে উপজেলা খাদ্য নিয়ন্ত্রক খবির আহমেদের সাথে যোগাযোগ করা হলে তিনি দৈনিক আমার হবিগঞ্জকে জানান, এবছর ২৭ টাকা কেজি দরে প্রতিমণ দানের মূল্য ১০৮০ টাকা দরে বানিয়াচং উপজেলায় ৪৫৯০ মেট্রিক টন বোরো ধান সংগ্রহের লক্ষ্যমাত্রা নিয়ে কৃষকদেরকে অনলাইনে নিবন্ধন প্রক্রিয়ায় অংশগ্রহণ করার আহবান জানানো হয়েছিল।

৬ হাজার জন কৃষক নিবন্ধন করেন। তাদের মধ্যে লটারী করে ১৫৩০ জন কৃষককে চুড়ান্ত করে তালিকা করা হয়। তারা জনপ্রতি ৩ মেট্রিক টন করে শুকনো ধান উপজেলা খাদ্য গোদামে বিক্রি করতে পারবেন। ৮ মে থেকে ক্রয় শুরু হয়েছে এবং ১১ মে পর্যন্ত ১২ মেট্রিক টন ধান সংগ্রহ হয়েছে বলে তিনি জানিয়েছেন।

আাগামী ৩১ আগস্ট পর্যন্ত ধান সংগ্রহের সময়সীমা থাকায় উপজেলা নির্বাহী অফিসার পদ্মাসন সিংহ নির্ধারিত সময়ের মধ্যে লক্ষ্যমাত্রা পুরণ হয়ে যাবে বলে আশাবাদ ব্যক্ত করেন।

Developed By The IT-Zone