ঢাকাশুক্রবার , ৬ মে ২০২২
আজকের সর্বশেষ সবখবর

বানিয়াচংয়ে ছান্দ সর্দার নিয়ে বিরোধ : প্রকাশ্যে গুলি চালালেন ইউপি চেয়ারম্যান ধন মিয়া

স্টাফ রিপোর্টার
মে ৬, ২০২২ ৯:৪৮ পূর্বাহ্ণ
Link Copied!

বানিয়াচং উপজেলা সদরের ২নং উত্তর-পশ্চিম ইউনিয়নে ছান্দ সর্দার নিয়ে বিরোধের জেরে দুই পক্ষের সংঘর্ষে অন্তত আহত হয়েছে উভয় পক্ষের শতাধিক নারী-পুরুষ। সংঘর্ষ চলাকালে প্রকাশ্যে বন্দুক দিয়ে গুলি চালিয়েছেন উক্ত ইউনিয়নের চেয়ারম্যান হায়দারুজ্জামান ধন মিয়া। তার এই গুলি চালানোর ফলে অপর পক্ষের প্রায় ৩০/৪০ জন ব্যক্তি আহত হয়েছে বলে সুত্র নিশ্চিত করেছে।

গুরুতর আহত অবস্থায় কয়েকজনকে সিলেট ওসমানী মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে পাঠানো হয়। অপর আহতদের বানিয়াচং স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সসহ সদর হাসপাতালে প্রেরণ করা হয়েছে। গত বৃহস্পতিবার (৫মে) বেলা এগারটার দিকে ইউনিয়নের সৈদ্যরটুলা পুকুর পাড়ে এই সংঘর্ষের ঘটনা ঘটে। সংঘর্ষের পর এলাকায় থমথমে অবস্থা বিরাজ করছে।

খবর পেয়ে বানিয়াচং থানা পুলিশ পৌছে সংঘর্ষে নিয়ন্ত্রনে আনে। জানা যায়,সৈদ্যরটুলা গ্রাম্য সর্দার গঠন নিয়ে দীর্ঘদিন ধরে বর্তমান চেয়ারম্যান হায়দারুজ্জামান খান ধন মিয়া ও সাবেক উপজেলা পরিষদের ভাইস চেয়ারম্যান ইকবাল বাহার খানের লোকদের মধ্যে দ্বন্ধ চলে আসছিল। কিছুদিন পূর্বে সৈদ্যরটুলা মহল্লায় এ্যাডভোকেট নজরুল ইসলাম খানকে সর্দার নির্বাচিত করে এলাকাবাসী।

অন্যদিকে চেয়ারম্যান ধন মিয়াকে এই মহল্লা কমিটির উপদেষ্টা করা হয়। এছাড়াও লক্ষিবাওর জলাবন নিয়ে ধন মিয়া চেয়ারম্যান ও নির্বাচিত সর্দার এবং এলাকাবাসীর মধ্যেও দ্বন্দ্ব বিরাজ করছে।

এদিকে গত বুধবার চেয়ারম্যান ধন মিয়াকে ছান্দের উপদেষ্টা পদ থেকে বহিষ্কার করে বর্তমান সৈদ্যরটুলা ছান্দের লোকরা। বিষয়টি নিয়ে উভয় পক্ষের লোকজনদের মধ্যে বিগত কয়েকদিন যাবত উত্তেজনা দেখা দেয়। এরই জের ধরে বৃহস্পতিবার দুই পক্ষের মধ্যে সংঘর্ষের ঘটনা ঘটে।

সংঘর্ষের একপর্যায়ে ইউপি চেয়ারম্যান ধন মিয়া তার নিজস্ব বন্দুক দিয়ে নিরীহ লোকদের উপর প্রকাশ্যে মুহুর্মুহ গুলি চালান। এই গুলির ফলে সাবেক ভাইস চেয়ারম্যান ইকবাল বাহার খানসহ আহত হয় প্রায় ৩০/৪০ জন। বন্দুক নিয়ে ধন মিয়া তার বসত বাড়ি থেকে প্রায় ১ কিলোমিটার পার হয়ে এসে নিরীহ এলাকাবাসীর উপর গুলিবর্ষণ চালান তিনি।

তার এই গুলির চালানোর ভিডিও সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে মুহুতর্রে মধ্যে ছড়িয়ে পড়ে । এদিকে খবর পেয়ে বানিয়াচং থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা এমরান হোসেন এর নেতৃত্বে একদল পুলিশ ঘটনাস্থলে পৌছে ২৪ রাউন্ড টিয়ারশেল ও শতাধিক রাবার বুলেট নিক্ষেক করে সংঘর্ষ নিয়ন্ত্রণে আনে। এসম সংঘর্ষ থামাতে থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা এমরান হোসেনসহ ৮/১০জন পুলিশ সদস্য আহত হন।

সৈদ্যরটুলার ছান্দ সর্দার অ্যাডভোকেট নজরুল ইসলাম খান জানান,ঘটনার সময় আমি হবিগঞ্জে ছিলাম। এই বিরোধ নিয়ে স্থানীয় সংসদ সদস্য,উপজেলা পরিষদের চেয়ারম্যানসহ গণ্যমান্য ব্যক্তিরা মিমাংসা করে দেয়ার জন্য ইউপি চেয়ারম্যান ধন মিয়ার সাথে কথা বলেন। একপর্যায়ে তিনি রাজি হলেও পরের দিন আবার সেটা মানেন না বলে জানান। এলাকায় আতঙ্ক ছড়াতে কোনো কিছু হলেই ধন মিয়া তার বন্দুক নিয়ে এলাকাবাসীকে ভয়-ভীতি দেখান। তার এসব কর্মকান্ডে আমরা ভীত হয়ে থানায় জিডি করতে গিয়েছিলাম কয়েকদিন আগে। কিন্তু থানায় সেই জিডি নেয়নি। যদি আমাদের জিডিটা থানায় গ্রহন করতো তাহলে আজকে এই ঘটনাটি ঘটতো না।

একটি সুত্র জানায়,গত ৬ বছর আগেও একই কায়দায় ইউপি চেয়ারম্যান ধন মিয়া তার বন্দুক ব্যবহার করে শতাধিক ব্যক্তিতে আহত করেছিলেন তিনি। এ ঘটনায় কয়েকজেনর চোখও নষ্ট এমনকি চিরদিনের জন্য তাদের চোখ অন্ধ হয়ে গিয়েছিল।

বিষয়টি নিয়ে ২নং উত্তর-পশ্চিম ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান হায়দরুজ্জামান খান ধন মিয়ার সাথে কথা বলার চেষ্টা করা হয়ে তার ব্যবহৃত নাম্বারে একাধিকবার রিং দিলেও তিনি তা ধরেন নি।

বিস্তারিত জানতে অতিরিক্ত পুলিশ সুপার (বানিয়াচং সার্কেল) পলাশ রঞ্জন দে দৈনিক আমার হবিগঞ্জকে জানান,কার গুলিতে কে আহত হয়েছে আসলে এখন বলা যাচ্ছেনা। সেটা চিহ্নিত করতে ফরেনসিক রিপোর্ট লাগবে। তবে শুনেছি এবং সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে দেখেছি মারামারির সময় একটা ভিডিও ভাইরাল হয়েছে। সেখানে দেখলাম বন্দুক দিয়ে গুলি ছুটছেন ইউপি চেয়ারম্যান ধন মিয়া। অনাকাঙ্খিত পরিস্থিতি এড়াতে এলাকায় অতিরিক্ত পুলিশ মোতায়েন করা হয়েছে ।

Developed By The IT-Zone