ঢাকামঙ্গলবার , ২২ নভেম্বর ২০২২
আজকের সর্বশেষ সবখবর

বানিয়াচংয়ে গ্রেফতার আতঙ্কে বিএনপির নেতাকর্মীরা

রায়হান উদ্দিন সুমন
নভেম্বর ২২, ২০২২ ৬:৫৪ অপরাহ্ণ
Link Copied!

পুলিশের সঙ্গে সংঘর্ষের ঘটনায় গত বুধবার (১৬নভেম্বর) রাতে বানিয়াচং উপজেলা বিএনপির দেড় শতাধিক নেতাকর্মীর বিরুদ্ধে পুলিশ অ্যাসল্ট মামলা দায়ের করেন বানিয়াচং থানার উপপরিদর্শক শামসুল আরেফিন।

এই মামলা থেকে গ্রেফতার এড়াতে আতঙ্কে গা ঢাকা দিয়েছেন উপজেলা বিএনপির নেতাকর্মীসহ অংগ সংগঠনের নেতারা। এই মামলায় আসামি ধরতে বিএনপি নেতাদের বাসায় এবং সম্ভাব্য সব জায়গায় তল্লাশি চালাচ্ছে পুলিশ।

গ্রেফতার এড়াতে অনেকেই আত্মগোপনে চলে গেছেন। আটকের ভয়ে বিএনপির কয়েকশত নেতাকর্মী উপজেলার বাজারে ঘাটেও আসছেন না বলে স্থানীয়রা জানান।

পুলিশের দাবি, বুধবার (১৬নভেম্বর) রাত সাড়ে ১২টার দিকে উপজেলা সদরের এলআর সরকারি উচ্চ বিদ্যালয় মাঠে বিএনপি নেতাকর্মীদের সাথে পুলিশের সংঘর্ষ হয়। এ সসময় বিএনপি নেতাকর্মীদের হামলায় বানিয়াচং থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) অজয় চন্দ্র দেব, উপপরিদর্শক (এসআই) আতিক, কনস্টেবল বাবুল, বাদশা ও দেলোয়ার আহত হন।

পরবর্তীতে ৩২ জনের নাম উল্লেখ এবং অজ্ঞাত শতাধিক ব্যক্তিকে আসামি মামলা করেন বানিয়াচং থানার উপপরিদর্শক শামসুল আরেফিন।

এ বিষয়ে বানিয়াচং উপজেলা বিএনপি’র সভাপতি মুজিবুল হোসেন মারুফ বলেন, পুলিশ এই মিথ্যা সাজানো মামলা দায়ের করেছে। জনগণ সরকারের প্রতি আস্থা হারিয়েছে। সরকার বুঝতে পেরেছে তাদের পায়ের নীচে মাটি নেই। রাত ১২টার দিকে আমরা কেন অস্ত্রসস্ত্র নিয়ে খোলা মাঠে অবস্থান করবো।

তিনি আরো বলেন পুলিশ সেখানে গিয়ে কয়েকটা ফাঁকা গুলি ছুড়ে সেটা আমাদের উপর চাপিয়ে দিয়েছে। মিথ্যা মামলার অপরাজনীতির জন্য আওয়ামী লীগকে চরম মূল্য দিতে হবে।

তবে বিএনপির যে নেতাকে আটক করা হয়েছিল সে গত সোমবার (২১নভেম্বর) জামিনে মুক্ত হয়েছে। এই মামলায় আমরা যারা আসামি হিসেবে আছি হাইকোর্ট থেকে জামিন নেয়ার বিষয়টা প্রক্রিয়াধীন আছে।

বানিয়াচং থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) অজয় চন্দ্র দেব জানান,পুলিশের উপর হামলরা ঘটনায় মামলার আসামিদের ধরতে সম্ভাব্য সব স্থানে অভিযান অব্যাহত রেখেছে পুলিশ।

 

Developed By The IT-Zone