ঢাকাFriday , 27 October 2023
আজকের সর্বশেষ সবখবর

বানিয়াচংয়ে এমপিসহ ৪ জনের নামে সড়কের নামকরণের সিদ্ধান্ত দেড় বছরেও বাস্তবায়ন হয়নি

Link Copied!

বানিয়াচং উপজেলা পরিষদের মাসিক সমন্বয় সভায় এমপিসহ ৪ জনের নামে সড়কের নামকরণ করার সিদ্ধান্ত হলেও দেড় বছর পরও বাস্তবায়ন হয়নি।

জানা গেছে, ২০২১ খ্রিস্টাব্দের ৩১ অক্টোবর বানিয়াচং উপজেলা মুক্তিযোদ্ধা সংসদের সাবেক কমান্ডার বীর মুক্তিযোদ্ধা আব্দুল খালেক গ্যানিংগঞ্জ বাজার টু বড়বাজার রাস্তার বালিকা উচ্চ বিদ্যালয়ের নিকট হতে বীর মুক্তিযোদ্ধা দোলন পান্ডের বাড়ি হয়ে বড়বাজার মুক্তিযোদ্ধা চত্বর সংলগ্ন রাস্তাটি প্রয়াত বীর মুক্তিযোদ্ধা রমেশ চন্দ্র পান্ডে ওরফে দোলন পান্ডের নামে নামকরণ করার জন্য ইউএনও বরাবরে লিখিত আবেদন করেন।

এই আবেদনের প্রেক্ষিতে ২০২২ খ্রিস্টাব্দের ৩১ মার্চ অনুষ্ঠিত বানিয়াচং উপজেলা পরিষদের ৩৬তম মাসিক সমন্বয় সভায় ওই সড়কের নাম বীর মুক্তিযোদ্ধা দোলন পান্ডের নামে নামকরণের সিদ্ধান্ত সর্বসম্মতিক্রমে গৃহীত হয়।

এছাড়া ওই সভায় সভার সভাপতি উপজেলা পরিষদের চেয়ারম্যান আবুল কাশেম চৌধুরী মৌখিকভাবে বানিয়াচং টু হবিগঞ্জ রোডের সুবিদপুর যাত্রী ছাউনি হতে কবিরপুর সড়কটি হবিগঞ্জ-২ আসনের সংসদ সদস্য অ্যাডভোকেট আব্দুল মজিদ খানের নামে নামকরণ করার ও বানিয়াচং টু হবিগঞ্জ ডিসি রোড হতে প্রতাপপুর রাস্তাটি ১০নং সুবিদপুর ইউনিয়ন পরিষদের সাবেক চেয়ারম্যান প্রয়াত আমীর আলী চৌধুরীর নামে নামকরণ করার জন্য আবেদন জানান।

একই সভায় ১নং বানিয়াচং উত্তর-পূর্ব ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান মিজানুর রহমান খান শহীদ মিনার টু নন্দীপাড়া রাস্তাটি মুক্তিযুদ্ধের সংগঠক প্রয়াত মাজুম উল্লার নামে নামকরণ করার জন্য মৌখিকভাবে আবেদন করেন।

সভায় উল্লেখিত সড়কগুলোর নামকরণের সিদ্ধান্তও সর্বসম্মতিক্রমে গৃহীত হয়। এসব সড়কের নামকরণের সিদ্ধান্ত বাস্তবায়নের জন্য সভা থেকে উপজেলা নির্বাহী অফিসার ও উপজেলা প্রকৌশলীকে দায়িত্ব দেয়া হয়। কিন্তু আজ অবধি এই ৪টি সড়কের নামকরণের সিদ্ধান্ত বাস্তবায়ন হয়নি।

এব্যাপারে জানতে উপজেলা প্রকৌশলী মিনারুল ইসলামের সাথে মোবাইল ফোনে যোগাযোগ করা হলে তিনি বলেন, এধরণের কোনো প্রস্তাব পাশ হওয়ার বিষয় আমার জানা নেই।

তাঁর এমন বক্তব্যের পর ২০২২ সালের বানিয়াচং উপজেলা পরিষদের মার্চ মাসের ৩৬তম সভার রেজুলেশন ঘাটাঘাটি করে দেখা গেছে ওই সভার বিবিধ আলোচনার কলামে নামকরণের সিদ্ধান্তের বিষয়টি উল্লেখ রয়েছে।

পরে উপজেলা প্রকৌশলী মিনারুল ইসলামকে দ্বিতীয় বার ফোন করে অবগত করলে তিনি বলেন, আমি অনেক মিটিংয়ে থাকিনা। হয়তো এই মিটিংয়ে ছিলাম না। তাই আমার জানা নাই। পরে রেজুলেশনে উপস্থিতির তালিকা খোঁজ করে দেখা যায় উপজেলা প্রকৌশলী মিনারুল ইসলামের নাম রয়েছে।

এ ব্যাপারে প্রয়াত বীর মুক্তিযোদ্ধা রমেশ চন্দ্র পান্ডে ওরফে দোলন পান্ডের পুত্র বড়বাজারের বিশিষ্ট হোমিওপ্যাথিক চিকিৎসক গৌতম পান্ডের সাথে যোগাযোগ করা হলে তিনি বলেন, নামকরণের সিদ্ধান্ত হওয়ার বিষয়টি ইউএনও সাহেব; ইঞ্জিনিয়ার সাহেবসহ সবাই জানেন।

সিদ্ধান্ত পাশ হওয়ার পর সড়কে নামফলক লাগানোর জন্য তিনি সাবেক ইউএনও পদ্মাসন সিংহ এবং উপজেলা প্রকৌশলী মিনারুল ইসলামকে অনুরোধ করেছেন বলেও গৌতম পান্ডে জানান।

উল্লেখ্য, সুবিদপুর ইউনিয়ন পরিষদের সাবেক চেয়ারম্যান প্রয়াত আমীর আলী চৌধুরী বানিয়াচং উপজেলা পরিষদের চেয়ারম্যান আবুল কাশেম চৌধুরীর পিতা এবং মুক্তিযুদ্ধের সংগঠক ও বানিয়াচং উপজেলা আওয়ামী লীগের প্রতিষ্ঠাতাদের একজন প্রয়াত মাজুম উল্লা বানিয়াচং উপজেলা পরিষদের মহিলা ভাইস চেয়ারম্যান হাসিনা আক্তারের নানা।