ঢাকারবিবার , ২০ নভেম্বর ২০২২
আজকের সর্বশেষ সবখবর

বানিয়াচংয়ে অবৈধ বালুসহ দুটি ট্রাক আটকের পর ছাড়িয়ে নিল পুলিশ

মোফাজ্জল ইসলাম সজীব
নভেম্বর ২০, ২০২২ ৪:৫৩ অপরাহ্ণ
Link Copied!

বানিয়াচং উপজেলার কাগাপাশা ইউনিয়নের চান্দপুর গ্রামের হারের গজ বিল থেকে দুটি ড্রেজার মেশিন দিয়ে কয়েক মাস ধরে বালু উত্তোলন করে অহরহ চলছে বালু বিক্রি। প্রকৃতিক সম্পদ ধ্বংসের পাশাপাশি ব্যাপক ক্ষতিগ্রস্ত হয়েছে ফসলী জমি এবং রাস্তাঘাট।

প্রতিকার চেয়ে উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তার কাছে লিখিতভাবে অভিযোগও করেছেন স্থানীয় এলাকাবাসী। এতে করে কাজের কাজ কিছু না হওয়াতে প্রতিবাদে নেমে পড়েছেন এই এলাকার কৃষক ও গ্রামের লোকজন।

রবিবার (২০ নভেম্বর) সকালে হারের গজ থেকে অবৈধভাবে বালু নিয়ে যাওয়া দুটি ট্রাক আটক করেন স্থানীয় ইউপি সদস্যসহ গ্রামবাসী।  জানানো হয় উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তাকে। ৩ ঘন্টা অতিবাহিত হলেও আসেননি ইউএনও।

খবর পেয়ে ঘটনাস্থলে আসেন বানিয়াচং থানা পুলিশের একটি ফোর্স। গ্রামবাসীর সাথে দীর্ঘ আলোচনা শেষে বালুভর্তি ট্রাক দুটি ছাড়িয়ে নেন বানিয়াচং থানার এসআই ফারুক।

এ ব্যাপারে এসআই ফারুক বলেন, ট্রাক দুটি আমরা আটক দেখাচ্ছি না। থানায় বসে বিষয়টি সমাধান করার চেষ্টা করবো। এ ঘটনায় এলাকায় ব্যাপক উত্তেজনা বিরাজ করছে।

ছবি : হারের গজ বিল থেকে উত্তোলন করা হচ্ছে বালু

বালুখেকুদের খুটির জোর নিয়েও দেখা দিয়েছে নানা প্রশ্নের। সরকারকে রাজস্ব ফাঁকি দিয়ে অবৈধভাবে বালু বিক্রি করলেও কোনো ব্যবস্থা নিচ্ছে না প্রশাসন।

সাবজুল আহমেদ নামে এক ব্যক্তি বলেন, বিল খননের কারণে আমরা কৃষি নিয়ে ব্যাপক হুমকির মুখে রয়েছি। আগামীতে ধান রোপন করা নিয়েও সংশয়ে আছি। সাইকুল মিয়া বলেন, অবৈধভাবে বালু বিক্রি করা হচ্ছে। বিল খনন করা হচ্ছে। কেউ যেন দেখছে না।

জিতু চৌধুরী বলেন, গ্রামের মানুষ চলাচল করা জন্য আমাদের এমপি মহোদয় আব্দুল মজিদ খান রাস্তা করেছেন। এখনো উদ্বোধনই হলো না। ট্রাকভর্তি বালুর ট্রাক রাস্তাঘাট ভেঙে ব্যাপক ক্ষতিগ্রস্ত করেছে।

স্থানীয় ইউপি সদস্য জুতি বিকাশ তালুকদার ছোটন বলেন, অবৈধভাবে বালু বিক্রি ও রাস্তাঘাট ধ্বংসের প্রতিবাদে বানিয়াচং উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তার কাছে লিখিত অভিযোগ দিয়েছি। তবে ইউএনও সাহেবের কোনো সাড়া পাচ্ছি না। তিনি চুপ হয়ে আছেন।

জনগন এবং সরকারের ব্যাপক ক্ষতি হচ্ছে কোনো ব্যবস্থা নেওয়া হচ্ছে না। এতে গ্রামবাসীর মধ্যে হতাশা বিরাজ করছে। আমরা দুটি ট্রাক আটক করলাম। তারপরও কাজের কাজ কিছু হলো না।

এব্যাপারে বানিয়াচং উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা পদ্মাসন সিংহ বরাবরেই মতোই বলছেন ব্যবস্থা নেওয়া হবে। তবে দৃশ্যমান কোনো ব্যবস্থা নিতে দেখা যায়নি।

 

Developed By The IT-Zone