ঢাকাSaturday , 28 October 2023
আজকের সর্বশেষ সবখবর

বানিয়াচংসহ বিভিন্ন স্থানে কমরেডসুমন-সুইটের মৃত্যুবার্ষিকী পালন

Link Copied!

বানিয়াচংসহ বিভিন্ন স্থানে জাতীয় সম্পদ রক্ষা আন্দোলনের সৈনিক কমরেড সুমন-সুইটের ২১তম মৃত্যুবার্ষিকী পালন করা হয়েছে। শুক্রবার (২৭ অক্টোবর) সকালে বানিয়াচঙ্গের বড়ইউড়ি গ্রামে কমরেড শফিকুর রহমান চৌধুরী সুমনের সমাধিতে পুষ্পস্তবক অর্পণ করা হয়।

একইদিন সকালে মৌলভীবাজারে কমরেড আব্দুল গাফফার চৌধুরী সুইটের সমাধিতে পুষ্পস্তবক অর্পণ করা হয়। পুষ্পস্তবক অর্পণ শেষে বড়ইউড়ি গ্রামের বড়বাড়ির ডাকবাংলোতে অনুষ্ঠিত হয় স্মরণ সভা।

কমরেড সুমনের ভাতিজা বাসদ বানিয়াচং উপজেলা শাখার আহবায়ক কমরেড এআরসি কাউসারের সভাপতিত্বে অনুষ্ঠিত স্মরণ সভায় বক্তব্য রাখেন স্থানীয় বাসদ সংগঠক নূর আলম, এবাদুল ইসলাম, আলমগীর হোসেন, মাসুম আহমেদ, সেলু মিয়া, রাকিব মিয়া, ফাহিম আহমেদ প্রমূখ।

বিকাল ৫টায় হবিগঞ্জ জেলা বাসদ কার্যালয়ে জেলা কমিটির সমন্বয়ক কমরেড অ্যাডভোকেট জুনায়েদ আহমেদের সভাপতিত্বে আরেকটি স্মরণ সভা অনুষ্ঠিত হয়। এতে তেল-গ্যাস খনিজসম্পদ ও বিদ্যুৎ-বন্দর রক্ষা জাতীয় কমিটির হবিগঞ্জ জেলার সদস্য সচিব কমরেড নুরুল হুদা চৌধুরী শিবলী, জেলা বাসদ নেতা কমরেড হুমায়ূন খানসহ বিভিন্ন সংগঠনের নেতৃবৃন্দ প্রয়াত সুমন-সুইটের প্রতি শ্রদ্ধা নিবেদন করে বক্তব্য রাখেন।

মৌলভীবাজারে পুষ্পস্তবক অর্পণ শেষে জেলা বাসদ কার্যালয়ে জেলা শাখার আহবায়ক কমরেড অ্যাডভোকেট মইনুর রহমান মগনুর সভাপতিত্বে স্মরণ সভা অনুষ্ঠিত হয়।

সিলেটে জেলা বাসদ কার্যালয়ে সুমন-সুইটের প্রতিকৃতিতে পুষ্পস্তবক অর্পণ শেষে স্মরণ সভা অনুষ্ঠিত হয়। জেলা বাসদের আহবায়ক কমরেড আবু জাফরের সভাপতিত্বে ও সদস্য সচিব কমরেড প্রনব জ্যোতি পালের সঞ্চালনায় সভায় বিভিন্ন সংগঠনের নেতৃবৃন্দ বক্তব্য রেখে সুমন-সুইটের দেশপ্রেম এবং সংগ্রামী চেতনা সমুন্নত রেখে সমাজতান্ত্রিক বাংলাদেশ বিনির্মানের অঙ্গীকার ব্যক্ত করেন।

উল্লেখ্য, ২০০২ সালে বিএনপির নেতৃত্বাধীন ৪ দলীয় ঐক্যজোট সরকার বাংলাদেশের অন্যতম জাতীয় সম্পদ চট্টগ্রাম বন্দর ১৯৮ বছরের জন্য এসএসএ নামে মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রের একটি বহুজাতিক কোম্পানিকে লীজ দেয়ার সিদ্ধান্ত নিয়েছিল।

এর প্রতিবাদে ৫দিনব্যাপী ঢাকা টু চট্টগ্রাম বন্দর লংমার্চ কর্মসূচী ঘোষণা করেছিল তেল-গ্যাস খনিজসম্পদ ও বিদ্যুৎ-বন্দর রক্ষা জাতীয় কমিটি। ওই লংমার্চ কর্মসূচীতে অংশগ্রহন করেছিল তৎকালীন বিরোধী রাজনৈতিক দলগুলো।

বানিয়াচং উপজেলার বড়ইউড়ি গ্রামের সন্তান তৎকালীন সিলেট জেলা সমাজতান্ত্রিক ছাত্র ফ্রন্টের ভারপ্রাপ্ত সাধারণ সম্পাদক কমরেড শফিকুর রহমান চৌধুরী সুমন এবং মৌলভীবাজার জেলা বাসদের নেতা কমরেড আব্দুল গাফফার চৌধুরী সুইট লংমার্চে অংশগ্রহণ করে কর্মসূচীকে সফল করতে অক্লান্ত পরিশ্রম করেন। দিনরাত পথে পথে কঠোর পরিশ্রম করতে গিয়ে অসুস্থ হয়ে পড়েন সুইট।

চিকিৎসার জন্য নেতৃবৃন্দ তাঁকে বাড়ীতে চলে যাবার পরামর্শ দেন। এদিকে ছাত্রনেতা সুমনের পরীক্ষা থাকায় তাঁকেও সিলেট চলে যেতে বলা হয়। একারণে কর্মসূচী সমাপ্ত হওয়ার আগেই মাঝপথে তারা দু’জন ট্রেনে উঠে চট্টগ্রামের কাছ থেকে একজন সিলেট এবং আরেকজন মৌলভীবাজারের ফেরার উদ্দেশ্যে একসঙ্গে রওয়ানা দেন।

ফেরার পথে ২০০২ সালের ২৭ অক্টোবর আখাউড়ার আজমপুর নামক স্থানে ট্রেন দুর্ঘটনা ঘটে। ওই ঘটনায় বহু ট্রেন যাত্রী হতাহত হন। নিহতের মধ্যে ছিলেন জাতীয় সম্পদ রক্ষা আন্দোলনের দুই সৈনিক কমরেড সুমন এবং কমরেড সুইটও।

ট্রেন দুর্ঘটনায় মর্মান্তিক মৃত্যু হলেও সুমন-সুইটকে ভুলে যায়নি জাতি। তাঁদের মৃত্যুর পর থেকে প্রতিবছর মৃত্যু দিবস পালনের মাধ্যমে তাঁদেরকে স্মরণ করে আসছে তেল-গ্যাস খনিজসম্পদ ও বিদ্যুৎ-বন্দর রক্ষা জাতীয় কমিটি, বাসদ, সমাজতান্ত্রিক ছাত্র ফ্রন্টসহ বিভিন্ন সংগঠন।