ঢাকাশুক্রবার , ১৮ ডিসেম্বর ২০২০
আজকের সর্বশেষ সবখবর

বাংলাদেশ-ভারত ভার্চুয়াল শীর্ষ সম্মেলন’২০২০

অনলাইন এডিটর
ডিসেম্বর ১৮, ২০২০ ১১:৫৫ পূর্বাহ্ণ
Link Copied!

ছবিঃ বাংলাদেশ-ভারত ভার্চুয়াল শীর্ষ সম্মেলন।

 

সুমন্ত্র দাস গুপ্তঃ প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা এবং প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদী  বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের জন্মশতবর্ষ এবং বাংলাদেশের স্বাধীনতা ও ভারত-বাংলাদেশ দ্বিপাক্ষিক সম্পর্ক প্রতিষ্ঠার পঞ্চাশতম বার্ষিকীতে তাঁদের প্রথম ভার্চুয়াল শীর্ষ সম্মেলন অনুষ্ঠিত হয়েছে। এই অংশীদারিত্বের বিশেষ প্রকৃতির প্রতিফলন হিসেবে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদীকে পরের বছর এই উদযাপনে অংশ নিতে বাংলাদেশ সফরের আমন্ত্রণ জানিয়েছেন। প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদী এই আমন্ত্রণ সাদরে গ্রহণ করেন।

জাতির জনক বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের স্মৃতির প্রতি শ্রদ্ধা জানাতে ভারত মুজিববর্ষের লোগোসহ একটি স্মারক ডাকটিকিট প্রকাশ করে। দুই দেশের জাতির পিতাদের প্রতি অনন্য শ্রদ্ধা নিবেদনের জন্য, বাংলাদেশ ও ভারত যৌথভাবে একটি বঙ্গবন্ধু-বাপু ডিজিটাল প্রদর্শনী পরিচালনা করছে যা তাঁদের জীবন, একই সংগ্রাম এবং দেশের স্বাধীনতা সংগ্রামে তাঁদের অগ্রণী ভূমিকা প্রদর্শন করছে। এই ভ্রাম্যমান প্রদর্শনীটি ভারত এবং বাংলাদেশের বিভিন্ন শহর, বিভিন্ন দেশ ও জাতিসংঘে যৌথভাবে প্রদর্শিত হবে।

উভয় দেশই মুক্তিযুদ্ধের ৫০ বছর এবং পরের বছর দ্বিপক্ষীয় সম্পর্কের ৫০ বছর উদযাপনের জন্য সম্মিলিতভাবে স্মারক কার্যক্রম পরিচালনা করবে এবং পাশাপাশি আগামী বছরের শুরুতে বাংলাদেশ ও ভারতে বঙ্গবন্ধু জীবনীভিত্তিক চলচ্চিত্রের শ্যুটিং হবে।

 

ভবিষ্যতমুখী অংশীদারিত্বঃ

ভারতের ”প্রতিবেশী প্রথমে” নীতি অনুসারে প্রধানমন্ত্রী মোদী বাংলাদেশের জন্য নিরাপদ ও যথাসময়ে ভারতে উদ্ভাবিত ও উৎপাদিত কোভিড-১৯ ভ্যাকসিন বিতরণে সহযোগিতা জোরদার করার আশ্বাস দিয়েছেন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনাকে। উভয় দেশের ওষুধ উৎপাদনকারী সংস্থাগুলি ইতোমধ্যে ভ্যাকসিন সরবরাহের পরিকল্পনা নিয়েছে। এছাড়াও, উৎপাদনে সহযোগিতার সম্ভাবনাও অনুসন্ধান করা হবে।

গত দু’বছর ধরে দ্বিপক্ষীয় বাণিজ্য ধারাবাহিকভাবে এক বিলিয়ন মার্কিন ডলার অতিক্রম করেছে, যা ভারতকে বাংলাদেশী রপ্তানিতে এক বিলিয়ন মার্কিন ডলার ছাড়িয়ে যাওয়া দ্বিতীয় এশীয় দেশে পরিণত করেছে। বাংলাদেশের পক্ষে বাণিজ্য ঘাটতি ২৬ শতাংশেরও বেশি কমে এসেছে। রেলপথ এবং নৌপথের মতো নতুন বিকল্পগুলি কোভিড -১৯ শুরুর পর বাণিজ্যে কোনও প্রভাব পড়তে দেয়নি।

জ্বালানিঃ

দ্রুত বর্ধনশীল অর্থনীতিতে জ্বালানি চাহিদা মেটাতে উভয় দেশ হাইড্রোকার্বন সহযোগিতার ক্ষেত্রে দ্বিমুখী বিনিয়োগ, প্রযুক্তি হস্তান্তর, যৌথ গবেষণা এবং সক্ষমতা বৃদ্ধিতে সম্মত হয়েছে। বর্তমানে ভারতের শিলিগুড়ি থেকে বাংলাদেশের পার্বতীপুরে হাই-স্পিড ডিজেল সরবরাহের জন্য নির্মাণাধীন ভারত-বাংলাদেশ মৈত্রী পাইপলাইন একে সমৃদ্ধ করবে। হাইড্রোকার্বন খাতে সহযোগিতা বিষয়ক সমঝোতার একটি কাঠামো আজ স্বাক্ষরিত হয়েছে। বৈদ্যুতিক শক্তি রূপান্তর, উৎপাদন, গ্যাস এবং পরিশোধিত পেট্রোলিয়াম পণ্য সরবরাহ এবং হাইড্রোকার্বন অনুসন্ধানে সহযোগিতার সম্ভাব্য অন্যান্য উপায়গুলিও অনুসন্ধান করা হচ্ছে।

দুই দেশের অর্থনীতি ও সমাজ উভয় ক্ষেত্রই কৃষিকেন্দ্রিক হওয়ায় বাংলাদেশ ও ভারতের মধ্যে কৃষিক্ষেত্রে সহযোগিতা এবং প্রযুক্তিগত জ্ঞানের বিনিময় গুরুত্বপূর্ণ। কৃষিক্ষেত্রে সহযোগিতা সংক্রান্ত একটি সমঝোতা স্মারক নবায়ন করা হয়েছে।

স্বল্পোন্নত দেশের তালিকা থেকে বাংলাদেশের উত্তরণের কথা মাথায় রেখে, ভারতে বাংলাদেশী রপ্তানি এবং সামগ্রিক বাণিজ্য বৃদ্ধিতে ব্যাপক অর্থনৈতিক অংশীদারিত্ব চুক্তি (সিইপিএ) সম্পর্কিত একটি গবেষণা চালু করা হয়েছে।  বিনিয়োগের ক্ষেত্রে পারস্পরিক সুবিধার পাশাপাশি পণ্য ও পরিষেবাদিতে একটি মুক্ত বাণিজ্য চুক্তির সূচনা করবে। এটি ভারতের বাজারে বাংলাদেশের অংশীদারিত্ব বাড়াতে সহায়তা করবে এবং সামগ্রিকভাবে বাণিজ্য সম্প্রসারণ করবে।

উভয় নেতা যৌথভাবে দু’টি উচ্চ প্রভাবসম্পন্ন কমিউনিটি উন্নয়ন প্রকল্প উদ্বোধন করেন- একটি রাজশাহী সিটি কর্পোরেশনের সামাজিক, সাংস্কৃতিক, পরিবেশ ও ঐতিহ্য অবকাঠামোগত উন্নয়ন ও সংরক্ষণের জন্য এবং অন্যটি খুলনা  সিটি কর্পোরেশনের সাথে খালিশপুর কলেজিয়েট বালিকা বিদ্যালয়ের ভৌত ও সহায়ক অবকাঠামো উন্নয়নের জন্য। বরিশাল শহরে ভারতের অর্থায়নে আবর্জনা/কঠিন বর্জ্য নিষ্কাশনের সরঞ্জাম সরবরাহ ও উন্নয়নের বিষয়ে একটি সমঝোতা স্মারক স্বাক্ষরিত হয়েছে।

আন্তঃসীমান্ত সহযোগিতা বৃদ্ধিঃ

দুই নেতা যৌথভাবে পুন:স্থাপিত চিলাহাটি-হলদিবাড়ি রেলপথ উদ্বোধন করেন যা ভারতের উত্তরবঙ্গের সাথে বাংলাদেশকে যুক্ত করেছে। ১৯৬৫ সালে তৎকালীন পাকিস্তান সরকার কর্তৃক বিচ্ছিন্ন হওয়া বাংলাদেশ ও ভারতের মধ্যকার ছয়টি আন্তঃসীমান্ত রেল সংযোগের মধ্যে এটি পুন:স্থাপিত পঞ্চম রুট। উভয় নেতা দুই দেশের মানুষের জীবন সহজ করার জন্য এবং ভ্রমণ, পর্যটন এবং ব্যবসায়িক অংশীদারিত্বের প্রচারের জন্য সংযোগকে অগ্রাধিকার  প্রদান অব্যাহত রেখেছেন।

বাণিজ্যের জন্য রেল রুটঃ

কোভিড-১৯ মহামারীতে লকডাউন চলাকালে রেলসংযোগসমূহ কার্যকর, পরিবেশবান্ধব এবং নির্ভরযোগ্য বলে প্রমাণিত হয়েছে। বাংলাদেশ এবং ভারতীয় রেলওয়ের সহায়তায় খাদ্য সরবরাহ শৃঙ্খল অব্যাহত ছিল, বিশেষত এই বছর পবিত্র রমজান মাসে। পার্সেল ট্রেন পরিষেবা, অটোমোবাইল কার্গো এবং কনটেইনার ট্রেনসহ বিভিন্ন পরিষেবা  চালু করা হয়েছে।

বাংলাদেশ ও ভারতের মধ্যে রেল, সড়ক, বিমান ও নৌপথে ক্রমবর্ধমান যোগাযোগের ফলে চিলাহাটি, সিরাজগঞ্জ, আশুগঞ্জ, দর্শনা, রামগড়, কুমিল্লার মতো অঞ্চলগুলি নতুন বাণিজ্য কেন্দ্র হিসেবে আত্মপ্রকাশ করবে। এই সংযোগগুলি বিশেষ করে নেপাল এবং ভুটানের সাথে বাংলাদেশের বাণিজ্য বৃদ্ধি করবে। বাংলাদেশের বন্দর ব্যবহার করে  ভারত ও বাংলাদেশ থেকে ভারতের উত্তর-পূর্বাঞ্চলে পণ্য পরিবহনের জন্য বাংলাদেশী ট্রাকের বাণিজ্যিক ব্যবহারের সম্ভাবনাটিও বিশেষভাবে স্বীকৃত হয়েছে।

যৌথ উন্নয়নে অংশীদারঃ

বাংলাদেশ ভারতের বৃহত্তম বিকাশের অংশীদার, যাদের রয়েছে ৮ বিলিয়ন মার্কিন ডলারের চারটি ঋণচুক্তি, যা কেবল বাংলাদেশকে বিশেষভাবে অগ্রাধিকার মূল্যে দেওয়া হয়েছে। বর্ধিত সংযোগ, বিদ্যুৎ ও জ্বালানি খাতে সক্ষমতা বৃদ্ধিসহ বিভিন্ন থাতে সহযোগিতা এতে অন্তর্ভুক্ত রয়েছে।

ভারত বাংলাদেশকে নতুন উন্নয়ন ব্যাংক বা ব্রিকস ব্যাংকে যুক্ত হওয়ার আমন্ত্রণ জানিয়েছে এবং প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা এতে আগ্রহ প্রকাশ করেছেন। ৫০০ মিলিয়ন মার্কিন ডলারের ঋণচুক্তির ব্যবহারসহ প্রতিরক্ষা সহযোগিতা; জাহাজ নির্মাণ, প্রতিরক্ষা সামগ্রীর জন্য যৌথ গবেষণা ও উন্নয়ন।

আঞ্চলিক সহযোগিতাঃ

বিপুল সংখ্যক বাস্তুচ্যুত মানুষকে আশ্রয়দানের ক্ষেত্রে বাংলাদেশের উদারতার প্রশংসা করে এবং এর সাথে জড়িত অসংখ্যেআর্থ-সামাজিক চ্যালেঞ্জকে স্বীকৃতি দিয়ে প্রধানমন্ত্রী মোদী মিয়ানমারের রাখাইন রাজ্য থেকে বাস্তুচ্যুতদের  নিরাপদ, দ্রুত এবং টেকসই প্রত্যাবাসনের গুরুত্বের কথা পুনর্ব্যক্ত করেন। বাস্তুচ্যুত মানুষদের আগমনে সৃষ্ট চ্যালেঞ্জ মোকাবেলায় ভারত পাঁচ ধাপে মানবিক সহায়তা দিয়েছে। প্রত্যাবাসন শুরু করতে একটি উপযুক্ত পরিবেশ সৃষ্টির লক্ষ্যে ভারত রাখাইন রাজ্য উন্নয়ন কর্মসূচির (আরএসডিপি) আওতায় রাখাইন অঞ্চলে আর্থ-সামাজিক উন্নয়নমূলক পদক্ষেপ গ্রহণ করছে।

বিবিআইএন অঞ্চলে পরিবহণ সমাধান সম্প্রসারণে সহযোগিতা; এছাড়াও নতুন ভারতীয় ক্রস বর্ডার এনার্জি গাইডলাইন দ্বারা সহজতর হওয়া আন্তঃসীমান্ত জ্বালানি বাণিজ্যে সহযোগিতা।

সকল ইস্যুতে গঠনমূলক পন্থাঃ

প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদী তিস্তা চুক্তি বাস্তবায়নে ভারতের আন্তরিক প্রতিশ্রুতি এবং সরকারের অব্যাহত প্রচেষ্টার কথা পুনর্ব্যক্ত করেন। দুই নেতা মনু, মুহুরী, খোয়াই, গোমতি, ধরলা ও দুধকুমার- এই ছয়টি নদীর পানিবণ্টনের বিষয়ে অন্তর্বর্তীকালীন চুক্তির কাঠামো দ্রুত শেষ করার প্রয়োজনীয়তার উপর জোর দিয়েছেন। এক্ষেত্রে দুই নেতা শিগগিরই যৌথ নদী কমিশনের পরবর্তী বৈঠক আয়োজনে সম্মত হন।

সীমান্ত ব্যবস্থাপনার বিষয়টিকে ভারত ও বাংলাদেশের উভয়েরই একটি অভিন্ন দায়িত্ব বলে জোর দিয়ে উভয় নেতা আন্তঃসীমান্ত অপরাধ দমনের জন্য সমন্বিত ও যৌথ টহলের উপর গুরুত্ব আরোপ করেছেন। ভারত আশ্বাস দিয়েছে যে, বিএসএফ সর্বোচ্চ সংযম প্রদর্শন করবে এবং সম্ভাব্য প্রাণঘাতী অস্ত্রকে আত্মরক্ষার্থে শেষ সম্বল হিসেবে ব্যবহার করার মাধ্যমে কঠোর প্রটোকল অনুসরণ করবে।

স্বাক্ষরিত দ্বিপক্ষীয় দলিলঃ

হাইড্রোকার্বন খাতে সহযোগিতা সম্পর্কিত সমঝোতার কাঠামো উচ্চ প্রভাব সম্পন্ন কমিউনিটি উন্নয়ন প্রকল্পগুলির জন্য কাঠামোগত চুক্তি – দশ বছরের  এই চুক্তিতে স্থানীয় জনগোষ্ঠীর আর্থ-সামাজিক উন্নয়নের লক্ষ্যে বহুমুখী প্রকল্প গ্রহণের উদ্দেশ্যে ভারত সরকার শিক্ষা, স্বাস্থ্য ও পয়:নিষ্কাশন, পানি পরিশোধন, নগর উন্নয়ন, পরিবেশ, ক্রীড়া ও সাংস্কৃতিক ঐতিহ্য সংরক্ষণ, নারী ক্ষমতায়ন, শিশু কল্যাণ, কমিউনিটি উন্নয়ন ও জীবিকাসহ বিভিন্ন ক্ষেত্রে ৫০০ মিলিয়ন টাকার প্রকল্পের অনুমতি দেয় যা পূর্বে স্বীকৃত পরিমাণের চেয়ে দ্বিগুণ।

সীমান্তে হাতি সংরক্ষণের জন্য প্রটোকলঃ

বরিশাল সিটি কর্পোরেশনে আবর্জনা/কঠিন বর্জ্য নিষ্কাশন স্থল উন্নয়নের জন্য এবং সরঞ্জাম সরবরাহের বিষয়ে সমঝোতা স্মারক – বরিশাল শহরে নাগরিক পরিষেবা প্রদানে সহযোগিতার জন্য ২৪.৭ কোটি টাকা প্রকল্প যার মধ্যে থাকবে আবর্জনা/ কঠিন বর্জ্য নিষ্কাশন স্থল সম্পর্কিত সুবিধাদি, কঠিন বর্জ্য ব্যবস্থাপনাসহ আবর্জনা সংগ্রহ, পরিশোধন ও  নিষ্কাশনের জন্য সরঞ্জাম সরবরাহ।

কৃষিক্ষেত্রে সহযোগিতা সংক্রান্ত সমঝোতা স্মারকঃ

জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান স্মৃতি জাদুঘর, ঢাকা এবং জাতীয় জাদুঘর, নয়াদিল্লীর মধ্যে সমঝোতা স্মারক।

ভারত-বাংলাদেশ সিইও ফোরামের রেফারেন্সের শর্তাবলী- তৃতীয় দেশগুলিতে বিনিয়োগের পাশাপাশি দ্বিপক্ষীয় বাণিজ্য এবং রপ্তানি বাড়াতে নীতিগত পর্যায়ের সহায়তা প্রদানের জন্য ভারত ও বাংলাদেশের শীর্ষস্থানীয় প্রধান নির্বাহী কর্মকর্তাদের মধ্যে একটি উচ্চস্তরের সিইও ফোরাম গঠন করা হয়েছে। এক্ষেত্রে টেক্সটাইলস, ফার্মাসিউটিক্যালস, চামড়া, কৃষি ও খাদ্য প্রক্রিয়াজাতকরণ মূল্যশৃঙ্খল, অটোমোবাইলস, পরিষেবা খাত প্রধান লক্ষ্য হবে।

সম্মেলনে বাংলাদেশ প্রতিনিধি দলে উপস্থিত ছিলেন পররাষ্ট্রমন্ত্রী ড. এ কে এ মোমেন, স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী আসাদুজ্জামান খান, বাণিজ্যমন্ত্রী টিপু মুনশি, পানিসম্পদ প্রতিমন্ত্রী জাহিদ ফারুক, রেলমন্ত্রী নুরুল ইসলাম সুজন,  প্রধানমন্ত্রীর নিরাপত্তা বিষয়ক উপদেষ্টা মেজর জেনারেল (অব.) তারিক আহমেদ সিদ্দিক, পররাষ্ট্র প্রতিমন্ত্রী মো. শাহরিয়ার আলম এবং তথ্য ও যোগাযোগ-প্রযুক্তি প্রতিমন্ত্রী জুনাইদ আহমেদ পলক। ভারতীয় প্রতিনিধি দলে ছিলেন পররাষ্ট্রমন্ত্রী ড. এস জয়শঙ্কর, জাতীয় নিরাপত্তা উপদেষ্টা অজিত ডোভাল, এবং পররাষ্ট্রসচিব হর্ষ বর্ধন শ্রিংলা।

Developed By The IT-Zone