ঢাকাবুধবার , ৯ নভেম্বর ২০২২
আজকের সর্বশেষ সবখবর

বন্ধ হচ্ছে না কুদালিয়া-কুশিয়ারায় অবৈধভাবে বালু বিক্রি : নিরব প্রশাসন

দিলোয়ার হোসেন,আজমিরীগঞ্জ
নভেম্বর ৯, ২০২২ ৮:৪৪ পূর্বাহ্ণ
Link Copied!

আজমিরীগঞ্জ উপজেলার জলসুখা ইউনিয়নের কুদালিয়া-কুশিয়ারায় জলমহাল খননের নামে অবৈধভাবে বালু বিক্রি চলমান থাকা নিয়ে আজমিরীগঞ্জের বিভিন্ন মহলে চলছে আলোচনা সমালোচনা।

দীর্ঘদিন যাবত বিভিন্নভাবে প্রশাসনের নাকের ডগায় বালু বিক্রি করে আসলেও বালুখেকো সিন্ডিকেটকে ধরতেে বা ড্রেজার বন্ধ করতে আজমিরীগঞ্জ প্রশাসনের নীরবতা লোকমুখে বিভিন্ন সমালোচনার জন্ম দিচ্ছে।

প্রতি ঘনফুট বালু ১০-১২ টাকা ধরে অবাধে বিক্রি করে লক্ষ লক্ষ টাকা হাতিয়ে নিচ্ছে জলসুখা ইউনিয়নের নোয়াগড় গ্রামের সাবেক মেম্বার শাহজাহান মিয়ার নেতৃত্বে বালুখেকো সিন্ডিকেটটি।

শাহজাহান মিয়া ও তার সঙ্গীয় কয়েকজনের সাথে সরাসরি আলাপ করে জানা যায়,আজমিরীগঞ্জ প্রশাসন কোন সমস্যা না,প্রশাসন নাকি তাদের বলে দিয়েছে স্থানীয় সাংবাদিক যদি কোন সংবাদ প্রকাশ না করে তাহলে প্রশাসনের কোন সমস্যা নাই।

এরি ধারাবাহিকতায় তারা নাকি মাসিক চুক্তি সমেত আজমিরীগঞ্জ এর স্থানীয় সাংবাদিকদের দুটি গ্রুপকে ম্যানেজ করে ফেলেছে। সংবাদ প্রকাশ বন্ধ থাকলে তাদের বালু বিক্রিতে আর কোন বাধা নেই।

সাংবাদিক ম্যানেজের ধারাবাহিকতায় শাহজাহান মিয়া গং বিভিন্ন ভাবে যে সকল সাংবাদিক ড্রেজারের সংবাদ প্রকাশ করছে তাদের ম্যানেজের চেষ্টা ও হুমকি দিয়ে সংবাদ প্রকাশে বাধার সৃষ্টি করছে।

অবৈধভাবে অবাধে বালু বিক্রি করায় সরকার যেমন মোটা অংকের রাজস্ব হারাচ্চে ঠিক তেমনি অপরিকল্পিতভাবে ড্রেজিং এর কারনে কুদালিয়া-কুশিয়ারা নদী তার নাব্যতা হারানোর শংকায় রয়েছে,যা অদূর ভবিষ্যতে বড় ধরনের পরিবেশ বিপর্যয়ের আশংকায় রয়েছে।

উপজেলা প্রশাসনের নীরবতায় আজমিরীগঞ্জে সার্বিক পরিবেশ ও আইন-শৃঙ্খলার অবনতি রক্ষায় স্থানীয় সচেতন মহল জেলা প্রশাসন হবিগঞ্জকে অপরকল্পিত ড্রেজিং বন্ধ ও অবৈধভাবে বালু বিক্রি বন্ধে সঠিক পদক্ষেপ গ্রহন করার জন্য অনুরোধ জানাচ্চেন।

আবার জলসুখা গ্রামের কয়েকজন জানান কিছু দিনের মধ্যেই জেলা প্রশাসন বরাবর তারা ড্রেজার বন্ধ করার জন্য স্মারকলিপি প্রদান ও পরিবেশ রক্ষায় মানববন্ধন কর্মসূচি পালন করবেন।

ড্রেজার বন্ধ হবে কিনা,বালু বিক্রির ব্যাপারে সঠিক পদক্ষেপ কি হবে,প্রশাসনের বরাতে সাংবাদিক ম্যানেজে শাহজাহান মিয়ার বক্তব্যেের সত্যতা যাচাই করতে আজমিরীগঞ্জ উপজেলা সহকারী কমিশনার ভূমি শফিকুল ইসলাম ও উপজেলা নির্বাহী অফিসার সুলতানা সালেহা সুমিকে মোবাইলে একাধিক কল ও হোয়াটসঅ্যাপে একাধিক ক্ষুদে বার্তা পাঠানোর পরও তারা কোন রকম বক্তব্য দেননি তাই তাদের বক্তব্য দেয়া সম্ভব হয়নি।

Developed By The IT-Zone