ঢাকারবিবার , ৫ জুন ২০২২
আজকের সর্বশেষ সবখবর

বানিয়াচংয়ে প্রধান শিক্ষক মনিরুলের বিরুদ্ধে তদন্ত শুরু

রায়হান উদ্দিন সুমন
জুন ৫, ২০২২ ৫:৩৭ অপরাহ্ণ
Link Copied!

সরকারি নির্দেশনা মোতাবেক সারা দেশের ন্যায় বানিয়াচং উপজেলার ১৬৬ বিদ্যালয়ে স্টুডেন্ট কাউন্সিল নির্বাচন অনুষ্ঠিত হলেও একমাত্র উপজেলা সদরের বানিয়াচং ৪নং দক্ষিণ-পশ্চিম ইউনিয়নের অন্তর্গত বনমথুরা সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ে অনুষ্ঠিত হয়নি এই নির্বাচন।

বিষয়টি নিয়ে গত শুক্রবার (৩ জুন) দৈনিক আামর হবিগঞ্জ পত্রিকায়“সরকারি নির্দেশনা অমান্য করলেন শিক্ষক মনিরুল :নেয়া হবে ব্যবস্থা-টিইও”এই শিরোনামে একটি সচিত্র সংবাদ প্রকাশিত হয়।

সংবাদটি প্রকাশের পর উপজেলা প্রশাসনসহ উপজেলা প্রাথমিক শিক্ষা কর্মকর্তার নজরে আসলে নড়চেড়ে বসেন তারা। একপর্যায়ে উপজেলা প্রাথমিক শিক্ষা কর্মকর্তা শফিকুর ইসলাম সরকার উক্ত বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষকের স্টুডেন্ট কাউন্সিল নির্বাচন না করার বিষয়টি তদন্ত সাপেক্ষে ব্যবস্থা নেয়ার আশ্বাস প্রদান করেছিলেন।

তারই ধারাবাহিকতায় উপজেলা সহকারি শিক্ষা কর্মকর্তা উত্তম কুমার দাশকে বিষয়টি সরেজমিনে তদন্ত করে রিপোর্ট দেয়ার জন্য দায়িত্ব প্রদান করেন তিনি । রবিবার (৫জুন) বেলা এগারটার দিকে তদন্তকারী কর্মকর্তা উত্তম কুমার দাশ বানিয়াচং বনমথুরা সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ে তদন্ত করতে গিয়ে উপস্থিত হলে সেখানে প্রধান শিক্ষক মনিরুল ইসলাম অনুপস্থিত দেখতে পান। পরে বিদ্যালয়ের অন্যান্য শিক্ষকদের সাথে বিস্তারিত কথা বলে ফিরে আসেন উত্তম কুমার দাশ।

এই বিষয়ে উপজেলা শিক্ষা কর্মকর্তা শফিকুল ইসলাম সরকার দৈনিক আমার হবিগঞ্জকে জানান,বিষয়টি তদন্ত করে রিপোর্ট প্রদানের জন্য এটিইও উত্তম কুমার দাশকে পাঠিয়েছিলাম। কিন্তু যার বিরুদ্ধে তদন্ত করা হবে সেই প্রধান শিক্ষক মনিরুল ইসলাম অফিসিয়ালি কোনো ধরণের ছুটি না নিয়ে ই বিদ্যালয়ে অনুপস্থিত ছিলেন।

তদন্তকারী কর্মকর্তা তাৎক্ষণিক যা পেয়েছেন তা দিয়ে রিপোর্ট আকারে আজ-কালের মধ্যে আমরা জেলা শিক্ষা কর্মকর্তার বরাবরে তদন্ত রিপোর্ট প্রেরণ করব।

প্রসঙ্গত,বানিয়াচং মনমথুরা সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষক মনিরুল ইসলামের বিরুদ্ধে বিদ্যালয়ের পুকুর লীজের টাকা, গাছ কর্তন, অভিভাবকদের সাথে দুর্ব্যবহার, নানা অনিয়ম ও অপকর্মের দায়ে তার অপসারণ ও স্থানান্তরের দাবি ও নানা অনিয়মের অভিযোগসহ তৎকালীন উপজেলা নির্বাহী অফিসার মামুন খন্দকারের নিকট আবেদন জানিয়েছিলেন উক্ত বিদ্যালয়ের পরিচালনা কমিটির সভাপতি হামদু মিয়া।

তার এই আবেদনের প্রেক্ষিতে বিভাগীয় মামলা দায়ের করা হয়। মামলা দায়ের করার পর দীর্ঘ এক বছরেরও বেশি সময় ধরে তদন্ত শেষে শিক্ষক মনিরুলের বিরুদ্ধে অভিযোগগুলো প্রমাণিত হওয়ায় নিম্ন গ্রেডে বেতন অবনমিতকরণ কল্পে ব্যবস্থা নেয় সংশ্লিষ্ট কর্তৃপক্ষ।

Developed By The IT-Zone