ঢাকাMonday , 23 May 2022
আজকের সর্বশেষ সবখবর

ফরমায়েশী সিদ্ধান্তে অব্যাহতি দেয়ার জের : হবিগঞ্জ পৌর আওয়ামী লীগের ১৪ নেতার পদত্যাগ

Link Copied!

দলীয় সিদ্ধান্ত ভঙ্গ করে নৌকা প্রতীকের বিরুদ্ধে বিদ্রোহী হয়ে নির্বাচনে অংশগ্রহন করার দায়ে হবিগঞ্জ পৌর আওয়ামী লীগের সভাপতি নিলাদ্রী শেখর পুরকায়স্থ টিটু ও সাধারণ সম্পাদক মোতাচ্ছিরুল ইসলামসহ আরও দুই আওয়ামলী লীগ নেতাদের দল থেকে অব্যাহতি প্রদানের এক দিন পর গত রোববার (২২মে) পৌর আওয়ামী লীগের ১৪ নেতা একযোগে পদত্যাগ করেছেন।

পদত্যাগকারী নেতারা হবিগঞ্জ পৌরসভার ৯টি ওয়ার্ড আওয়ামী লীগের সভাপতি ও সাধারণ সম্পাদক। তাদের পদত্যাগের বিষয়টি নিশ্চিত করেছেন হবিগঞ্জ জেলা আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক অ্যাডভোকেট আলমগীর চৌধুরী।

সুত্র জানা যায়, পৌর আওয়ামী সভাপতি ও সাধারণ সম্পাদককে ফয়মায়েশী সিদ্ধান্তে অব্যাহতি দেওয়া প্রতিবাদ হিসেবে পৌরসভার ৯টি ওয়ার্ডের নেতারা একযোগে পদত্যাগ করেছেন। পদত্যাগ পত্রে যদিও তারা ব্যক্তিগত কারণ উল্লেখ করছেন তারা।

পদত্যাগকারী নেতারা হলেন, হবিগঞ্জ পৌর আওয়ামী লীগের ১ নম্বর ওয়ার্ডের সাধারণ সম্পাদক শামীম খান, ২ নম্বর ওয়ার্ডের সভাপতি পারভেজ মিয়া, সাধারণ সম্পাদক আলী আরমান খান, ৩ নম্বর ওয়ার্ডের সভাপতি কাজল সরকার, সাধারণ সম্পাদক মো. নুরুল ইসলাম, ৪ নম্বর ওয়ার্ডের সাধারণ সম্পাদক মোঃ মহিউদ্দিন শিপন, ৫ নম্বর ওয়ার্ডের সভাপতি শাহ ইউসুফ আলী (ভারপ্রাপ্ত) ও সাধারণ সম্পাদক মোঃ শামছুর রহমান সোহেল, ৬ নম্বর ওয়ার্ডের সভাপতি মোঃ মানিক মিয়া, সাধারণ সম্পাদক মোহাম্মদ শামীম খান, ৭ নম্বর ওয়ার্ডের সভাপতি মোঃ সারোয়ার হোসেন ও সাধারণ সম্পাদক শাহ মহিবুল আলম, ৮ নম্বর ওয়ার্ডের সভাপতি মোহাম্মদ ফুল মিয়া ও সাধারণ সম্পাদক ফজলুল
করিম।

হবিগঞ্জ জেলা আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক অ্যাডভোকেট মোঃ আলমগীর চৌধুরী দৈনিক আমার হবিগঞ্জ’কে বলেন, নেতাদের পদত্যাগপত্র পেয়েছি। পরবর্তীতে এ বিষয়ে জেলা আওয়ামী লীগের সভায় আলোচনা করে সিদ্ধান্ত নেওয়া হবে।

হবিগঞ্জ পৌর আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক ও হবিগঞ্জ সদর উপজেলা চেয়ারম্যান মোতাচ্ছিরুল ইসলাম জানান, পদত্যাগের বিষয়টি তিনি জেনেছেন, তবে কি কারণে তারা পদত্যাগ করেছেন এটা তার জানা নেই।

এর আগে, গত ১৪ মে শনিবার বিকেলে হবিগঞ্জ শহরের টাউনহলস্থ জেলা আওয়ামী লীগের কার্যকরি কমিটির এক সভায় দলীয় শৃঙ্খলা ভঙ্গ ও বিদ্রোহী হয়ে নির্বাচনে অংশগ্রহণ করার দায়ে ৪ নেতাকে অব্যাহতি প্রদানের সিদ্ধান্ত গ্রহন করে জেলা আওয়ামী লীগ।

এদিকে, তথ্যানুসন্ধানে জানা যায়, বানিয়াচং উপজেলার সুবিদপুর থেকে নৌকার প্রার্থীর বিরুদ্ধে বিদ্রোহী হয়ে নির্বাচনে অংশগ্রহণ করেন সাবেক ইউপি চেয়ারম্যান মোঃ সজিব আলী। নৌকার প্রার্থীর বিরুদ্ধে বিদ্রোহী হয়ে নির্বাচনে অংশগ্রহণ করার ফলে নিজের অবস্থান ধরে রাখতে বেশ হিমশিম খেতে হয়েছিল নৌকার প্রার্থীকে। সাবেক এই বিদ্রোহী প্রার্থী সজিব আলী আছেন জামাই আদরে। আছেন বর্তমান জেলা আওয়ামী লীগের সহ সভাপতি পদে।

২০১৯ সালে হবিগঞ্জ পৌরসভা নির্বাচনে তৎকালীন নৌকার প্রার্থী মিজানুর রহমান মিজানের বিরুদ্ধে বিদ্রোহী প্রার্থী নিলাদ্রী শেখর পুরকায়স্থ টিটুর পক্ষে প্রকাশ্যে প্রচার-প্রচারণা করেছেন জেলা যুবলীগের সাবেক সভাপতি আতাউর রহমান সেলিম। দলীয় সিদ্ধান্ত অমান্যকারী এই নেতাকে রাখা হয়েছে হবিগঞ্জ জেলা আওয়ামী লীগের যুগ্ম-সাধারণ সম্পাদক পদে। টিটুর পক্ষে প্রকাশ্যে মিটিং-মিছিল ও প্রচার-প্রচারণা করেছেন আব্দুর রহমান। তিনি বর্তমানে হবিগঞ্জ সদর উপজেলা আওয়ামী লীগের ভারপ্রাপ্ত সাধারণ সম্পাদক পদে দায়িত্ব পালন করছেন।

গত উপজেলা পরিষদ নির্বাচনে নৌকা মনোনীত প্রার্থী মশিউর রহমান শামীমের বিরুদ্ধে এবং বর্তমান উপজেলা চেয়ারম্যান মোতাচ্ছিরুল ইসলামের পক্ষে প্রকাশ্যে মিটিং-মিছিল ও প্রচার-প্রচারণা করেছেন আব্দুর রহিম। তিনিও হবিগঞ্জ জেলা আওয়ামী লীগের সিনিয়র সদস্য হিসেবে দায়িত্ব পালন করছেন।

একইভাবে বিদ্রোহী এই উপজেলা চেয়ারম্যানের বিরুদ্ধে প্রকাশ্যে কাজ করেছেন সজল খান নামে আরও এক নেতা। তিনি আছেন বর্তমান হবিগঞ্জ জেলা আওয়ামী লীগের উপ-প্রচার ও প্রকাশনা সম্পাদক পদে।

জেলা আওয়ামী লীগের আরো অনেক পদধারী নেতা প্রকাশ্যে টিটু-মোতাচ্ছিরের পক্ষে নির্বাচনী প্রচার-প্রচারণায় ছিল বলে দৈনিক আমার হবিগঞ্জের কাছে তথ্য প্রমাণ আছে। এর মধ্যে জেলা আওয়ামী লীগের সহ সভাপতি আকরাম আলী, অর্থ বিষয়ক সম্পাদক মিজানুর রহমান শামীম অন্যতম।