ঢাকাবুধবার , ২৪ নভেম্বর ২০২১
আজকের সর্বশেষ সবখবর

প্রতারণার মামলায় গ্রেফতারী পরোয়ানা নিয়ে নির্বাচনের মাঠে নবীগঞ্জের হাবিব !

দৈনিক আমার হবিগঞ্জ
নভেম্বর ২৪, ২০২১ ৯:১৫ পূর্বাহ্ণ
Link Copied!

তারেক হাবিব :   প্রতারণা ও আত্মসাতের মামলায় গ্রেফতারী পরোয়ানা নিয়ে নির্বাচনে অংশগ্রহন করেছেন নবীগঞ্জ উপজেলার নবীগঞ্জ সদর ইউনিয়নের আওয়ামী লীগ মনোনীত চেয়ারম্যান পদপ্রার্থী হাবিবুর রহমান হাবিব। তবে গ্রেফতারী পরোয়ানা থাকলেও বীরদর্পে চষে বেড়াচ্ছেন এদিক ওদিক।

 

দৈনিক আমার হবিগঞ্জের হাতে আসা সিআর সিআর-৬৩/২১ (আশু) মামলার তথ্য পর্যালোচনা করে জানা যায়, ২০ লাখ টাকা প্রতারনা করে আত্মসাত করার ঘটনায় হাবিবের বিরুদ্ধে ব্রাক্ষণবাড়ীয়া আদালতে মামলা দায়ের করেন আশুগঞ্জ উপজেলার চরচারতলা গ্রামের মৃত হাজী আবুল খায়েরের পুত্র সাইফুল ইসলাম নামে এক ব্যবসায়ী।

 

 

 

 

 

 

 

 

 

ছবি : তৎকালীন সময়ে একটি মামলায় পুলিশের হাতে আটক হওয়া হাবিব (ইনসেটে হাবিবের ফাইল ছবি)

 

 

 

 

 

 

 

 

 

 

 

 

 

 

 

আদালত মামলাটি আমলে নিয়ে তদন্তের জন্য আশুগঞ্জ থানা পুলিশকে নির্দেশ দিলে পুলিশ ঘটনার সত্যতা পেয়ে আদালতে প্রতিবেদন দাখিল করে। এ ঘটনায় হাবিবের বিরুদ্ধে সমন জারি করে আদালত। তবে সমন জারি হলেও আদালতকে বৃদ্ধাঙ্গুলী দেখিয়ে বহাল তবিয়তে থাকেন হাবিব। পরে আদালত তার বিরুদ্ধে গ্রেফতারী পরোয়ানা জারি করেন।

 

মামলার বাদী সাইফুল ইসলাম জানান, নবীগঞ্জ বিবিয়ানা বিদ্যুৎ প্লান্টের পুরাতন কন্টেইনারের টেন্ডার পাইয়ে দেবায় নাম করে ২০ লাখ টাকা গ্রহন করেন। পরে টেন্ডার পাইয়ে দিতে না পারলেও টাকা ফেরত দেননি তিনি। এক সময় লেনদেন অস্বীকার করে নানা প্রকার হুমকি-ধমকি দিতে থাকেন হাবিব।

 

অমুক এমপির ঘনিষ্ট তমুক মেয়রের বন্ধুর পরিচয়ে চলেন বীরপর্দে তিনি। তার বিরুদ্ধে হবিগেঞ্জর শীর্ষ আওয়ামী লীগ নেতাদের কাছে বিচার দিয়েও কোন প্রতিকার হয়নি। তিনি অভিযোগ করে আরও বলেন, ‘হাবিবুর রহমান হাবিবের বিরুদ্ধে নবীগঞ্জ থানায় পরোয়ানা থাকার পরও ক্ষমতার দাপটে তাকে গ্রেফতার করা হচ্ছে না। এরই মাঝে আমরা জানতে পেরেছি সে আসন্ন ইউপি নির্বাচনে নবীগঞ্জ সদর ইউনিয়নে নৌকা প্রতীক নিয়ে নির্বাচনী মাঠে প্রকাশ্যে কাজ করছেন। এই খবর আমাকে হতবাক করেছে। তবে গ্রেফতারী পরোয়না নিয়ে উচ্চ আদালতে গিয়েও আগাম জামিন হয়নি তার।

 

নবীগঞ্জ থানার ওসি ডালিম আহমেদ জানান, হাবিবুর রহমান হাবিবের বিরুদ্ধে তার থানায় কোন গ্রেফতারী পরোয়ানার আদেশ নেই। তবে প্রাপ্তি সাপেক্ষে প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা নেয়া হবে।

 

হবিগঞ্জ জেলা নির্বাচন কর্মকর্তা মোঃ সাদেকুল ইসলাম জানান, নুন্যতম তার বিরুদ্ধে ২ বছরের সাজা হওয়ার আগ পর্যন্ত আমরা কিছুই করতে পারব না। গ্রেফতারী পরোয়ানার বিষয়টি আদালত ও সংশ্লিষ্ট থানা দেখবেন।

 

অভিযুক্ত হাবিবুর রহমান হাবিবের মোবাইল নাম্বারে বার বার কল দিলেও তিনি কল রিসিভ করেননি। পরে সাংবাদিক পরিচয়ে ক্ষুদে বার্তা পাঠানো হয়। এর আগে হাবিবের বিরুদ্ধে নবীগঞ্জের ছাত্রলীগ নেতা হেভেন চৌধুরী (২৬)কে পরিকল্পীত ভাবে হত্যা করার অভিযোগে গ্রেফতার হন হাবিব। ২০১৯ সালের ২৮ অক্টোবর লন্ডন প্রবাসীর জমি বিক্রি, জালিয়াতি ও প্রতারণার দায়ে হাবিবকে আবারও কারাগারে প্রেরণ করেন আদালত। এ ঘটনায় আবারও দীর্ঘদিন কারাভোগ করেন তিনি।

 

২০১০ সালের ৭ মার্চ জলমহাল নিয়ে নবীগঞ্জ উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা সুলতানা ইয়াসমীন ও তার অফিস সহকারীকে লাঞ্ছিত করে হত্যার হুমকি প্রদান করে হাবিব। এ ব্যাপারে ওই দিন মামলা দায়ের করা হয় তার বিরুদ্ধে।

 

প্রসঙ্গত, আগামী ২৮ নভেম্বর নবীগঞ্জ সদর ইউনিয়ন থেকে আওয়ামী লীগ মনোনীত নৌকা প্রতীকে চেয়ারম্যান পদে নির্বাচনে অংশগ্রহন করছেন হাবিব।

Developed By The IT-Zone